corona virus btn
corona virus btn
Loading

‘প্রক্রিয়া শুরু করছি, দ্রুত রাজ্যে কয়েক হাজার প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ হবে’: পার্থ চট্টোপাধ্যায়

‘প্রক্রিয়া শুরু করছি, দ্রুত রাজ্যে কয়েক হাজার প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ হবে’: পার্থ চট্টোপাধ্যায়

প্রাথমিকের 'টেট' নেওয়ার প্রস্তুতি চূড়ান্ত স্কুল শিক্ষা দপ্তরের। পুরভোটের পরেই 'টেট' হওয়ার সম্ভাবনা।

  • Share this:

#কলকাতা: প্রাথমিকের শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে অবশেষে রাজ্যের অবস্থান স্পষ্ট করলেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। প্রক্রিয়া শুরুর পাশাপাশি খুব দ্রুত রাজ্যে কয়েক হাজার প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ হবে বলেও জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী।

পুরভোটের পরই প্রাথমিকের টেট নিতে চলেছে প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ, এ কথা জানিয়েছেন তিনি। এ প্রসঙ্গে শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেন ‘প্রাথমিকের শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু করার প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। দ্রুত রাজ্যে কয়েক হাজার প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ করা হবে।’

২০১৭-তে বিজ্ঞপ্তি দেওয়ার পর কয়েক লক্ষ প্রার্থী ইতিমধ্যেই টেট দেওয়ার আবেদন করেছেন। এক্ষেত্রে আবারও টেট দেওয়ার জন্য রেজিস্ট্রেশনের পোর্টাল চালু করা হবে বলেই স্কুল শিক্ষা দপ্তর সূত্রে খবর।

ফলে বলা চলে, চার বছর পর রাজ্যে ফের প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগের প্রক্রিয়া শুরু করতে চলেছে স্কুল শিক্ষা দপ্তর। ইতিমধ্যেই প্রাথমিকের টেট নেওয়ার প্রস্তুতিও চূড়ান্ত করে ফেলেছে স্কুল শিক্ষা দপ্তর। এর আগে রাজ্যে দুই দফায় প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ হয়েছে। কিন্তু নানা আইনি জটিলতার কারণে নিয়ো়গ প্রক্রিয়া শেষ করতে অনেকটাই সময় লেগেছে প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের। সেইসব আইনি জটিলতা কাটিয়ে় ফের প্রাথমিকের টেট হতে চলেছে বলেই স্কুল শিক্ষা দপ্তর সূত্রে খবর।

রাজ্যে শেষবার প্রাথমিকের টেট নেওয়া হয়েছিল ২০১৫ সালে। সেই টেট ঘিরে একাধিক বিতর্ক থাকলেও তার ফলাফল ২০১৬ সালে প্রকাশ করা হয়। কিন্তু তারপর থেকে রাজ্যে প্রাথমিকের টেট নেওয়াা হয়নি। যার জেরে থমকে রয়েছে প্রাথমিকের শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়া। যদিও ২০১৭ সালের অক্টোবর মাসে টেট নেওয়ার জন্য বিজ্ঞপ্তি জারি করে প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ। বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী লক্ষাধিক প্রার্থী ইতিমধ্যেই আবেদনও করে রেখেছে। কিন্তু প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগের জন্য কত শূন্যপদ রয়েছে তার নির্দিষ্ট তথ্য তৈরি না হওয়ায় টেট নেওয়া যায়নি বলেই স্কুল শিক্ষা দপ্তর সূত্রে খবর।

এবার সেই প্রাথমিকের টেট নিতেই তৎপরতা শুরু করেছে স্কুল শিক্ষা দপ্তর। সূত্রের খবর, এই মুহুর্তে রাজ্যে প্রাথমিক স্কুলগুলিতে ৩০ হাজারেরও বেশি শূন্য পদ রয়েছে। তবে পুরভোটের আগে টেট নেওয়া সম্ভব না হলেও পুজোর আগেই পুরো প্রক্রিয়া শেষ করতে চায় স্কুল শিক্ষা দপ্তর। সেক্ষেত্রে ন্যাশনাল কাউন্সিল ফর টিচার্স এডুকেশনের নিয়ম মেনেই শিক্ষক নিয়োগ করবে স্কুল শিক্ষা দফতর। মূলত প্রাথমিক শিক্ষক হওয়ার ক্ষেত্রে d.el.ed বা প্রশিক্ষণ বাধ্যতামূলক করেছে এনসিটিই। সেই নিয়ম মেনেই নিয়োগের প্রস্তুতি নিচ্ছে দপ্তর।

SOMRAJ BANDOPADHYAY

First published: February 29, 2020, 10:08 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर