কলকাতা

?>
corona virus btn
corona virus btn
Loading

ছত্রধর মাহাতোদের হাউজ অ্যারেস্ট করতে মরিয়া NIA

ছত্রধর মাহাতোদের হাউজ অ্যারেস্ট করতে মরিয়া NIA
ছত্রধর মাহাতো

২৭ অক্টোবর, ২০০৯ সালে লালগড় বিস্ফোরণের মামলায় ছত্রধর মাহাতো জেলে থাকার সময় বাঁশতলায় রাজধানী এক্সপ্রেস আটকে বিক্ষোভ দেখায় পুলিশের সন্ত্রাস বিরোধী জনসাধারণের কমিটি।

  • Share this:

#কলকাতা: সময় যত গড়াচ্ছে, ততই মরিয়া দেখাচ্ছে NIA-কে। করোনা আক্রান্ত ছত্রধর মাহাতো, তাই গৃহ পর্যবেক্ষণে। করোনা রিপোর্টে সংশয়ী এনআইএ-এর পাল্টা, ছত্রধর মাহাতোকে গ্রেফতার নয়, প্রয়োজনে হাউস অ্যারেস্টের নির্দেশ দিক বিশেষ আদালত। এনআইএ বিশেষ আদালতে ছত্রধরের পাশাপাশি দিলীপ মাহাতো, চন্দ্রশেখর মাহাতো, মৃণালকান্তি মাহাতো, বাজমনি টুডুদেরও হাউস অ্যারেস্টের আবেদন জাতীয় তদন্তকারী সংস্থার।

আর এতেই স্পষ্ট এনআইএ-র মরিয়া মনোভাব। করোনায় গৃহ পর্যবেক্ষণে থাকায় ৫ জনই আপাতত স্বস্তিতে। গ্রেফতারি আবেদনের শুনানি ১২ অক্টোবর। ওইদিন ৫ জনের করোনা চিকিৎসা সংক্রান্ত রিপোর্ট পেশের নির্দেশ দিয়েছে বিশেষ আদালত। ২০০৯ সালে শালবনির সিপিআইএম নেতা প্রবীর মাহাতো খুনের মামলায় ছত্রধর সহ ২৭ জনের নামে চার্জশিট দেয় সিআইডি। ২৭ অক্টোবর, ২০০৯ সালে লালগড় বিস্ফোরণের মামলায় ছত্রধর মাহাতো জেলে থাকার সময় বাঁশতলায় রাজধানী এক্সপ্রেস আটকে বিক্ষোভ দেখায় পুলিশের সন্ত্রাস বিরোধী জনসাধারণের কমিটি।

রাজধানী এক্সপ্রেসকে পণবন্দি করে ছত্রধরের মুক্তির দাবি তোলে কমিটি। ২০০৮-০৯ সময়কালে মাও নাশকতার ছক, বেআইনি কার্যকলাপ সহ একাধিক ঘটনার নেপথ্যের কারণ জানতে ৩০ মার্চ ২০২০ নির্দেশিকা জারি করা হয় কেন্দ্রের তরফে। এনআইএ-কে তদন্ত করতে নির্দেশ দেওয়া হয় কেন্দ্রের তরফে। সেই নির্দেশিকা মেনে ছত্রধর মাহাতোকে নোটিস পাঠায় এনআইএ। সিআরপিসি ১৬০ ধারার নোটিসে গ্রেফতারির আশঙ্কা তৈরি হয়। হাইকোর্টে নোটিস চ্যালেঞ্জ করে মামলা করে ছত্রধরেরা। বিচারপতি দেবাংশু বসাক ধরমপুরের এলাকার মধ্যে এনআইএ-কে জিজ্ঞাসাবাদে সবুজ সঙ্কেত দেয়। এরপর ২৬ অগাস্ট নগর দায়রা আদালতে ছত্রধরদের বিরুদ্ধে ইউএপিএ জুড়তে চেয়ে আবেদন করে এনআইএ।

সোমবার বিশেষ আদালতে এনআইএ-র আইনজীবী শ্যামল ঘোষ জানান, ২৬ অগাস্টের আদেশ মোতাবেক ইউএপিএ অভিযুক্ত ছত্রধর সহ ৫ জনের পুনরায় গ্রেফতার চায় এনআইএ। গ্রেফতার করে হেফাজতে নেওয়ার জন্য আদালত ছত্রধরদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করুক। এই সময় তপ্ত হয়ে ওঠে বিশেষ আদালতের এজলাস। ছত্রধর মাহাতোদের আইনজীবী দেবাশিস রায়, কৌশিক সিনহা, শশিকান্ত সিং-রা জানান, ইউএপিএ অন্তর্ভুক্তকরণ নিয়ম মেনে হয়নি। পর্যাপ্ত শুনানির সুযোগ পায়নি অভিযুক্তরা। এজলাসে অভিযুক্তদের রেখে শুনানির পর ইউএপিএ অন্তর্ভুক্ত হতে পারে। ছত্রধর মাহাতো করোনা আক্রান্ত । ঝাড়গ্রাম জেলা হাসপাতালের চিকিৎসকদের পরামর্শে গৃহ পর্যবেক্ষণে রয়েছে। বাকিরা ছত্রধরের সঙ্গে থাকায় স্বেচ্ছায় কোয়ারান্টাইনে। তাঁদের সুস্থ হয়ে আসা পর্যন্ত মুলতবি থাক আদালতের কাজ।

করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ছত্রধর মাহাতো, এমনটা মানতে নারাজ এনআইএ। তাঁর দ্বিতীয় করোনা পরীক্ষা চায় সংস্থা। হোম কোয়ারান্টাইন ছত্রধর মাহাতো থাকলে তাঁকে হাউস অ্যারেস্ট করার নির্দেশ দিক আদালত। দিল্লির চিকিৎসকদের তত্বাবধানে থাকবে ছত্রধর মাহাতো। সুস্থ হয়ে উঠলে তাঁকে হেফাজতে নেবে এনআইএ। ছত্রধরদের আইনজীবী কৌশিক সিনহা বক্তব্য, " ঝাড়গ্রাম জেলা হাসপাতালের করোনা রিপোর্ট আদালত গ্রহণ করেছে। ১৪ দিন নূন্যতম কোয়ারেনটাইনের শর্ত মেনে মামলা রেখেছে কোর্ট। ১১ বছর পর এনআইএ অতিসক্রিয়তায় পরিস্কার অভিসন্ধি নিয়ে কাজ করছে জাতীয় সংস্থা।"

ARNAB HAZRA

Published by: Arindam Gupta
First published: September 28, 2020, 8:56 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर