সরলো পুরনো নেমপ্লেট, বিধানসভার অলিন্দে বদলের ছোঁয়া

অধিবেশন শুরুর আগেই বদলে গিয়েছে নামের ফলক। নয়া ফলক ইতিমধ্যেই বসে গিয়েছে।

অধিবেশন শুরুর আগেই বদলে গিয়েছে নামের ফলক। নয়া ফলক ইতিমধ্যেই বসে গিয়েছে।

  • Share this:

#কলকাতা: দশ বছর বাদে ফলক বদল হল রাজ্যের তিন হেভিওয়েট পার্থ-ববি-জ্যোতিপ্রিয়র। নয়া ফলক পেলেন পুলক রায়, রথীন ঘোষ, বঙ্কিম হাজরা। এগুলো সব ক'টাই রাজ্য বিধানসভার ঘর। যেখানে এবার বসবেন রাজ্যের মন্ত্রীরা। শুরু করা যাক পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে দিয়েই। মুখ্যমন্ত্রীর পাশেই, মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের ঘর। তার অবশ্য ঘর বদল হয়নি। তবে ঘরের ফলক বা নেমপ্লেটে বদল এসেছে। ২০১১ সাল থেকে শিল্প ও পরিষদীয় মন্ত্রী হিসাবে এই ঘরেই বসতেন তিনি৷ পরবর্তী সময়ে তিনি শিক্ষা মন্ত্রী হয়েও এই  ঘরেই বসতেন তিনি। এবার ফের দফতর বদল হয়ে তিনি শিল্প মন্ত্রী। তবে তিনি মুখ্যমন্ত্রীর পাশের ঘরেই এবার বসবেন। তবে অধিবেশন শুরুর আগেই বদলে গিয়েছে নামের ফলক। নয়া ফলক ইতিমধ্যেই বসে গিয়েছে।

অন্যতম বদল ফিরহাদ হাকিমের ঘরেও। মুখ্যমন্ত্রী বিধানসভার যে ব্লকে বসেন সেই অংশের একেবারে শেষের ঘর ফিরহাদ হাকিমের। তিনি অবশ্য একই ঘরেই বসবেন। তার দফতর বদল হলেও, বিধানসভায় ঘর বদল হয়নি। বদল হল তার ঘরের ফলক। পুর ও নগরোন্নয়ন দফতরের মন্ত্রী ছিলেন এবার তিনি পরিবহণ ও হাউজিং এর দায়িত্বে।পাশাপাশি ঘরেও এসেছে বদল। ফিরহাদ হাকিমের পাশেই রয়েছে শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়ের ঘর। তার দফতর বদল হয়েছে। কিন্তু বিধানসভায় ঘর বদল হয়নি। তার ঘরের ফলক এবার বদল হল। তিনি ছিলেন বিদ্যুৎ মন্ত্রী আপাতত তিনি হয়েছেন কৃষি মন্ত্রী। ফলে তার ঘরের ফলকও বদল করা হয়েছে।উত্তর ২৪ পরগণার দুই মন্ত্রীর ঘর অবশ্য পাশাপাশি রয়েছে। তার মধ্যে একজন এবার নতুন। অপরজনের দফতর বদল হয়েছে৷ জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকের দফতর ছিল গত ১০ বছর ধরে খাদ্য। এবারে সেটিতে বদল এসেছে। নয়া দফতর তিনি পেয়েছেন বন দফতর। তবে গত ১০ বছর ধরে তার যে ঘর ছিল সেটাই আছে। অবশ্য তার ঘরের ফলক বদল হয়েছে।

ঠিক পাশেই ঘর পেয়েছেন খাদ্যের নয়া মন্ত্রী রথীন ঘোষ। রথীন ঘোষ অবশ্য এবার প্রথম মন্ত্রী। তিনি নতুন ঘর পেয়েছেন। তার পাশেই অবশ্য ঘর অরুপ বিশ্বাসের। তিনি ছিলেন পূর্ত ও ক্রীড়া দফতরের দায়িত্বে। এবার তিনি বিদ্যুৎ দফতর পেয়েছেন। তার ঘর অবশ্য একই আছে। তবে ফলক বদল হয়েছে। নয়া মন্ত্রীদের মধ্যে একমাত্র রথীন ঘোষ নিচের তলায় ঘর পেয়েছেন।  বাকি সবাই উপরে ঘর পেয়েছেন। বিধানসভা সূত্রে খবর, পূর্ণ মন্ত্রীদের জন্য একটা নির্দিষ্ট ঘর দেওয়া হয়। স্বাধীন দায়িত্ব প্রাপ্ত ও রাষ্ট্র মন্ত্রীদের জন্যে ঘর সাধারণত বড় ঘরে ভাগ করে দেওয়া হয়। এবার বিধানসভায় সব মন্ত্রীদের জন্যে মোট ৪৪টি ঘর নির্দিষ্ট করা হয়েছে।

Published by:Pooja Basu
First published: