• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • রাজ্য বিজেপি-তে রদবদল! দিলীপ-মুকুল ভারসাম্য রেখেই তারুণ্যে গুরুত্ব দিল দল

রাজ্য বিজেপি-তে রদবদল! দিলীপ-মুকুল ভারসাম্য রেখেই তারুণ্যে গুরুত্ব দিল দল

প্সম্প্রতি অমিত শাহের সংস্পর্শে আসার জেরে কোয়ারেন্টাইনে গেলেন রাজ্যের ৪ সাংসদ ও ১ মন্ত্রী। সেল্ফ আইসোলেশনের তালিকায় রয়েছে কেন্দ্রীয় বন ও পরিবেশ প্রতিমন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়, স্বপন দাশগুপ্ত, এস এস আলুওয়ালিয়া, সৌমিত্র খাঁ, নিশীথ প্রামাণিক ৷ রতীকী চিত্র৷

প্সম্প্রতি অমিত শাহের সংস্পর্শে আসার জেরে কোয়ারেন্টাইনে গেলেন রাজ্যের ৪ সাংসদ ও ১ মন্ত্রী। সেল্ফ আইসোলেশনের তালিকায় রয়েছে কেন্দ্রীয় বন ও পরিবেশ প্রতিমন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়, স্বপন দাশগুপ্ত, এস এস আলুওয়ালিয়া, সৌমিত্র খাঁ, নিশীথ প্রামাণিক ৷ রতীকী চিত্র৷

অন্য দল থেকে বিজেপি-তে যোগ দেওয়া যোগ্য নেতাদের গুরুত্বপূর্ণ পদ দিয়েও বিধানসভা ভোটের আগে বার্তা দিল বিজেপি।

  • Share this:

#কলকাতা: ২০২১-এর বিধানসভা নির্বাচনকে পাখির চোখ করে রাজ্য বিজেপি-তে উল্লেখযোগ্য রদবদল করলেন দলের রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। রদবদলে প্রধান্য দেওয়া হয়েছে লড়াকু চরিত্র  ও বিগত ১ বছরে রাজনৈতিক সাফল্যের দিককে। অন্য দল থেকে বিজেপি-তে  যোগ দেওয়া যোগ্য নেতাদের গুরুত্বপূর্ণ পদ দিয়েও বিধানসভা ভোটের আগে বার্তা দিল বিজেপি।

রাজ্য সভাপতির নিজস্ব ক্যাবিনেট বলতে বোঝায় সাধারণ সম্পাদক মণ্ডলীকে। ৫ জনের এই কমিটিই দলের সবচেয়ে প্রভাবশালী ও কার্যকরী ভূমিকা পালন করে। এই কমিটিতে এ বার ২টি গুরুত্বপূর্ণ পরিবর্তন হয়েছে। প্রতাপ বন্দ্যোপাধ্যায় ও রাজু  বন্দ্যোপাধ্যায়ের জায়গায় অন্তর্ভুক্ত হয়েছেন লকেট চট্টোপাধ্যায় ও জ্যোতির্ময় সিং মাহাত।  দুজনেই সাংসদ। বিগত লোকসভা নির্বাচনের সাফল্যই শুধু নয়। নিজেদের সংসদ এলাকার বাইরেও এঁরা যথেষ্ট জনপ্রিয় নেতৃত্ব।

রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ

লকেট মহিলা মোর্চার নেত্রী হিসাবে সফল। জনপ্রিয় তারকা মুখ। অন্যদিকে বয়সে তরুণ পুরুলিয়ার সাংসদ জ্যোতির্ময় সিং মাহাত শুধু পুরুলিয়ার নয়, গোটা জঙ্গলমহলেই যথেষ্ট জনপ্রিয় নেতা। ১২ জনের সহ-সভাপতির তালিকায় উল্লেখযোগ্য সংযোজন ব্যারাকপুরের সাংসদ অর্জুন সিং ও রীতেশ তিওয়ারি।

বিজেপির একাংশের মতে, ভাটপাড়া সহ ব্যারাকপুর শিল্পাঞ্চলে তৃণমূলের বিরুদ্ধে অর্জুনের সাফল্যকে স্বীকৃতি দিতেই তাঁকে সহ সভাপতি করা হল। অন্যদিকে,  বিজেপির অভ্যন্তরীণ রাজনীতিতে রাহুলপন্থী বলে পরিচিত রীতেশকে ফিরিয়ে এনে ঘরোয়া কোন্দলে সমন্বয়ের বার্তা দিলেন দিলীপ।

আবার বিগত লোকসভা ভোটে সফল না হলেও, লড়াকু ভাবমূর্তি ও সাংগঠনিক কাজে সাফল্যের নিরিখে  ভারতী ঘোষ, মাফুজা খাতুনের মত মুখকেও সহ সভাপতির তালিকায় রেখে দেওয়া হল। রাজ্য বিজেপি-র সাম্প্রতিক পালাবদলে চোখে পড়ার মত রদবদল হয়েছে দলের প্রধান মোর্চা বা শাখা সংগঠনগুলিতে। লকেটের ছেড়ে আসা চেয়ারে অগ্নিমিত্রা পাল,  যুব মোর্চার দেবজিৎ সরকারের জায়গায় সাংসদ সৌমিত্র খাঁ,  এসসি মোর্চার সভাপতি পদে বাগদার বিধায়ক দুলাল বর,  এসটি মোর্চার দায়িত্বে মালদহের সাংসদ, সিপিএম-এর প্রাক্তন বিধায়ক খগেন মূর্মুকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

রাজ্য কমিটির আংশিক তালিকায় রদবদল প্রসঙ্গে  রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন,  'সংগঠনে নতুন রক্ত সঞ্চালন জরুরি। সেটা মাথায় রেখেই নতুনদের জায়গা করে দেওয়া হল। '

রাজনৈতিক মহলের মতে, রাজ্য কমিটির রদবদলের মধ্যে দিয়ে অনেক বার্তা দিল বিজেপি। শুধু তারুণ্য বা বিগত নির্বাচনী সাফল্যই নয়, অন্য দল থেকে আসা নেতৃত্বকে দলে পদ ও গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব দেওয়া নিয়ে টালবাহানা চলছিল, এই পরিবর্তনে সেটাও একঝটকায় অনেকটা সরিয়ে দিতে পেরেছেন দিলীপ।

তবে, বর্তমান তালিকা নিয়েও আলোচনা, বিতর্কের অবকাশ নেই তা নয়৷ বিজেপির অন্যতম তাত্ত্বিক নেতা ও মুখপাত্র  শমীক  ভট্টাচার্যকে ঘিরে আশা ছিল দলের একাংশের। সেই আশা পূরণ হয়নি।  বিধায়ক ও বিধানসভায় দলীয় নেতা মনোজ টিগ্গাকে আদিবাসী মোর্চার দায়িত্ব  দেওয়া হতে পারে, এমন চর্চা ছিল দলের অন্দরে। কিন্তু মনোজের ভাগ্যে শিকে ছেঁড়েনি এবারেও। রাজ্য বিজেপি নেতৃত্বের কড়া সমালোচনা করায় নেতাজি পরিবারের চন্দ্র বসুকে যে ভাবে ছুড়ে ফেলল রাজ্য  বিজেপি, তা নিয়েও দলে সবাই একমত নন।

ARUP DUTTA

Published by:Arindam Gupta
First published: