Madan Mitra: 'হেলেও নই, ঢোঁড়াও নই, আমি জাত গোখরো', মদন মিত্রর মুখে কেন মিঠুনের ডায়লগ!

গ্রেফতার হওয়ার রাতেই অসুস্থ হয়ে পড়েন মদন। তাঁকে তড়িঘড়ি এসএসকেএম হাসপাতালের উডবার্ন ওয়ার্ডে ভর্তি করানো হয়। ফুসফুসেও সংক্রমণের চিহ্ন ধরা পড়ে। সেই থেকে তিনি এসএসকেএমেই চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

Madan Mitra:কালো টি-শার্ট আর জিন্স পড়ে, হাতে মোমবাতি নিয়ে করলেন আরতি। চোখে ট্রেডমার্ক সানগ্লাস পরেই পুজোয় বসলেন মদন মিত্র।

  • Share this:

    #কলকাতা: ফলহারিণী পুজো করলেন কামারহাটির বিধায়ক মদন মিত্র। কালো টি-শার্ট আর জিন্স পড়ে, হাতে মোমবাতি নিয়ে করলেন আরতি। চোখে ট্রেডমার্ক সানগ্লাস পরেই পুজোয় বসলেন মদন মিত্র। তবে কি এমন ঘটনা ঘটল যার জেরে পুজোয় বসতে হল মদন মিত্রকে! তিনি অবশ্য বলছেন, "আজকাল কিছু মানুষকে দেখলাম আমায় নিয়ে চিন্তিত। এমন কিছু মানুষ চাইছে মদন মিত্র খতম হয়ে যাক৷ মদন মিত্র ধ্বংস হয়ে যাক। কিন্তু কথায় আছে রাখে রাম, তো মারে কে?" তাই নিজের ফ্ল্যাটেই পুজো-আচ্চা করলেন তিনি ঘনিষ্ঠদের সাথে নিয়ে।

    তবে তিনি পুজো করছেন বাড়ির লোক সেটা জানে না বলেই সোশ্যাল মিডিয়ায় লাইভ করেছেন তিনি। কিন্তু কারা ক্ষতি চাইছে মদন মিত্রের? কারও নাম বা পরিচয় ১৮ মিনিটের লাইভে তিনি বলেননি। শুধু বলেছেন, "যারা আমার ক্ষতি চাইছে তাদের অনেকেই আছেন, যাদের জীবনের চরম ক্ষতির দিনে আমি তাদের পাশে ঈশ্বরের মতো দাঁড়িয়েছিলাম। আবার এমন হতে পারে তাদের জীবনের চরম ক্ষতির দিনে আমি বন্ধুর মতো পাশে দাঁড়াব। আবার এও ঠিক হতে পারে, যারা যারা আমার ক্ষতি করতে চাইছেন, তাদের সুখে এমন বিঘ্ন ঘটবে যে তারা আমার কাছে এসে বলবেন,প্রভু না জেনে তোমার ক্ষতি করতে চেয়েছি৷"

    নিজেকে  সাধারণ মানুষ হিসেবে ঘোষণা করে কিছু ঘটনার উল্লেখ করেছেন তিনি। সেখানেই বলেছেন, "আমি ভোটে লড়তে গেলাম দেখলাম আমি-সহ আমার গোটা পরিবারের করোনা হয়ে গেল। আমার গাড়ি দুর্ঘটনায় পড়েছিল। এসব কি আমার পাপের জন্যে হচ্ছে? নাকি আমায় কেউ অভিশাপ দিচ্ছে? আমার পাপ আমি বুঝে নেব। আমায় যারা অভিশাপ দিচ্ছেন দিন। আমি ফলহারিণী পুজো করছি তাই। আমি সকলের মঙ্গল কামনা করছি।"

    গত সোমবার সকালে আগুন লেগে যায় মদন মিত্রের ভবানীপুরের বাড়িতে। তা নিয়েও তিনি মুখ খুলেছেন। মদনবাবু বলেছেন, " আমি আমার বাড়িতে গিয়েছিলাম। ভবানীপুরে নিজের বাড়িতে নাতির সাথে খেলতে গিয়েছিলাম। দেখলাম ভীষণ শব্দে কিছু একটা ফাটল। আমাকে সবাই পাঁজাকোলা করে বের করল। আমার চিন্তা ছিল আমার নাতি কোথায়? দেখলাম ও খেলছে। আগুনে একটা পিঁপড়েও মারা যায়নি। আর জিনিস? দেখুন আমার হাতের ঘড়ি। এটার দাম ধরে নিন ১ লাখ টাকা। আজ থেকে ১০ বছর বাদে এটার দাম এমনিই হয়ে যাবে ১০ লাখ টাকা। মদন মিত্রের ঘড়ি বলে এটা নিলামে উঠবে। আমি তাই জিনিস নিয়ে কেয়ার করিনা। আমার বাড়ি ১৮৭৬ সালের তৈরি। বাড়ির একতলা পুড়ে গেছে। বাড়ির সব সামগ্রী এক তলার পুড়ে গেছে। মিনিমাম ২০ লাখ টাকার সম্পত্তি নষ্ট।"

    এরপরেই আবেগতাড়িতভাবে তিনি বলে ওঠেন, " মা আমার এই ক্ষতি কেন? আর কত ক্ষতি হবে আমার? কিন্তু আমি দেখলাম আমি দিব্যি দাঁড়িয়ে আছি। আমি অক্সিজেন নিচ্ছি। ওহ লাভলি। বাড়ির আগুন যুদ্ধকালীন পরিস্থিতিতে ঠিক হয়ে গেল। আগুন বড় না আগুনের থেকে বাঁচা বড়।" তবে কে বা কারা তার ক্ষতি করতে চাইছে তা নিয়ে সরাসরি কিছু না বললেও মদন মিত্র মিঠুন চক্রবর্তীর ডায়লগ ধার করে বলেছেন, "আমি হেলেও নই, আমি ঢোঁড়াও নই, আমি জাত গোখরো। গোখরোর লেজে যারা পা দিচ্ছেন তারা সাবধানে থাকবেন।" তবে পুজো তিনি সকলের মঙ্গল কামনায় করছেন বলে এদিন উল্লেখ করেছেন মদন মিত্র। তিনি বলেছেন, "আমি প্রতিহিংসার জন্য পুজো করতে আসিনি। আমি মা'কে শুধু বলব আমি কোনও পাপ করিনি। তবে পাপ আমায় দিও,পুণ্য সকলকে দিও।"

     তবে হুশিয়ারি দিয়ে মদন মিত্র বলেছেন, "অনেকে আমায় অপছন্দ করে। হিংসা করে। আমায় দেখতে ভালো বলে রাগ করে। আমার শিরদাঁড়া সোজা আছে তাই আমায় হিংসা করে। দল যেদিন চারদিকে বেইমান ছিল, সেদিন আমি বলেছিলাম আমি গদ্দার নই৷ আমি ইমানদার।" যদিও কাকে উদ্দেশ্য করে এই কথা তা ১৮ মিনিটের ফেসবুক লাইভে বলেননি মদন মিত্র।

    Published by:Arka Deb
    First published: