শুধুই বিকাশ, রাজ্যে বাকি সব আসনে জামানত বাজেয়াপ্ত বামেদের

নির্বাচন কমিশনের নিয়ম অনুযায়ী, প্রদত্ত ভোটের ছয় ভাগের এক ভাগ ভোট পেলে জামানত রক্ষা হয়। যা শতাংশের হিসেবে ১৬ শতাংশের সামান্য বেশি। বামেরা এ রাজ্যে ৭ শতাংশ ভোট পেয়েছে৷

News18 Bangla
Updated:May 24, 2019 04:15 PM IST
শুধুই বিকাশ, রাজ্যে বাকি সব আসনে জামানত বাজেয়াপ্ত বামেদের
ফাইল ছবি
News18 Bangla
Updated:May 24, 2019 04:15 PM IST

#কলকাতা: বাম ভোট 'রামে' গিয়েছে৷ সোশ্যাল মিডিয়ায় দেদার ঘুরছে এই মন্তব্যটি৷ আসলে স্বাধীনতার পর থেকে এখনও পর্যন্ত পশ্চিমবঙ্গ থেকে বামেদের একটিও সাংসদ লোকসভায় সভায় যায়নি, এমনটা হয়নি৷ এ বারেই প্রথম৷ যাদবপুরে বিকাশ ভট্টাচার্য ছাড়া রাজ্যের সব লোকসভা আসনেই জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে বামেদের৷ বিকাশ ভট্টাচার্যের প্রাপ্ত ভোট ৩ লক্ষ ২ হাজার ২৬৪৷ এক ধাক্কায় ৮ শতাংশ ভোট কমে গেল বামেদের৷ এমনকী এ রাজ্যে কোনও লোকসভা আসনে দ্বিতীয় স্থানেও নেই বামেরা৷

নির্বাচন কমিশনের নিয়ম অনুযায়ী, প্রদত্ত ভোটের ছয় ভাগের এক ভাগ ভোট পেলে জামানত রক্ষা হয়। যা শতাংশের হিসেবে ১৬ শতাংশের সামান্য বেশি। বামেরা এ রাজ্যে ৭ শতাংশ ভোট পেয়েছে৷ যাদবপুরের সিপিআইএম প্রার্থী বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্য পেয়েছেন ২০.৯৯ শতাংশ ভোট। অর্থাৎ তাঁর জামানত রক্ষা পেল। বাকি কেন্দ্রে জামানত রক্ষা করতে পারেনি বামেরা।

২০১৪ সালেও লোকসভা ভোটে এ রাজ্যে দুটি আসন পেয়েছিল বামেরা৷ মাত্র ৫ বছরের মাথায় সব ওলটপালট হয়ে গেল৷ ২০১৪ সালে মুর্শিদাবাদ ও রায়গঞ্জ জিতেছিল বামেরা৷ ২০১৯-এ দুটিই হাতছাড়া হল৷ রায়গঞ্জে সিপিআইএম প্রার্থী মহম্মদ সেলিম পেয়েছেন ১ লক্ষ ৮২ হাজার ৩৫টি ভোট৷ মুর্শিদাবাদে সিপিআইএম প্রার্থী ছিলেন বদরুজ্জা খান৷ তিনি ভোট পেয়েছেন ১ লক্ষ ৮০ হাজার ৭৯৩৷

একমাত্র মালদা দক্ষিণ আসন ছেড়ে রেখে বাকি ৪১ আসনে প্রার্থী দিয়েছিল বামেরা। সব কেন্দ্রেই জামানত বাজেয়াপ্ত হওয়ার পথে বামেদের।

First published: 04:15:38 PM May 24, 2019
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर