সরকারের ডিজিটাল ইন্ডিয়া প্রকল্পের সমর্থন, আধার কার্ডের আদলে বিয়ের মেনু তৈরি করে চমকে দিলেন কলকাতার দম্পতি

মেনু কার্ডের এই ছক ভাঙা নকশার ছবি কেউ একজন ফেসবুকে শেয়ার করেন। আর তার পর থেকেই এই ছিবি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে যায়

মেনু কার্ডের এই ছক ভাঙা নকশার ছবি কেউ একজন ফেসবুকে শেয়ার করেন। আর তার পর থেকেই এই ছিবি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে যায়

  • Share this:

#কলকাতা: আধুনিক যুগে বিয়ে ব্যাপারটা শুধুই অমুক ওয়েডস তমুকে এসে আর দাঁড়িয়ে নেই। এখন বিয়ে মানেই যেন গ্র্যান্ড ওয়েডিং, একটা কোনও চমক যেন সেখানে থাকতেই হবে। সৃষ্টিশীল মানুষরা এর হাত ধরে তাঁদের প্রতিভা দেখানোর সুযোগও পেয়ে যান বিয়েবাড়িতে। এই যেমন কলকাতার এক দম্পতি সম্প্রতি এক দারুণ চমক দিলেন। তাঁরা তাঁদের বিয়ের মেনু কার্ড তৈরি করলেন আধার কার্ডের আদলে। মেনু কার্ডের এই ছক ভাঙা নকশার ছবি কেউ একজন ফেসবুকে শেয়ার করেন। আর তার পর থেকেই এই ছিবি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে যায়। বহু মানুষ এই ছবিতে লাইক দিয়ে তাঁদের পছন্দের কথা জানান, আবার অনেকেই এই ছবি নিজেদের অ্যাকাউন্টে শেয়ারও করেন।

রাজারহাটের গোগোল সাহা এবং সুবর্ণা দাস তাঁদের বিয়েতে অনেক ভেবেচিন্তে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। তাই তাঁরা অন্যদের চেয়ে এগিয়ে থাকতে বিয়ের মেনু কার্ড ডিজাইন করেন একটু অন্য ধাঁচে। গোগোল আর সুবর্ণা দু'জনেই খুব খুশি হয়েছেন এটা দেখে যে তাঁদের ডিজাইন করা মেনু কার্ড সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রশংসিত হয়েছে এবং ভাইরালও হয়েছে।

কিন্তু হঠাৎ কেন এমন ভাবে ডিজাইন করা হল বিয়ের মেনু কার্ড? গোগোল অকপটে স্বীকার করেন যে এই আইডিয়া পুরোটাই তাঁর স্ত্রী সুবর্ণার মস্তিষ্কপ্রসূত। আসলে তাঁরা দু'জনেই নরেন্দ্র মোদি সরকারের ডিজিটাল ইন্ডিয়া প্রকল্পকে সমর্থন করেন। আর তাঁদের এই সমর্থন-ই অন্য ভাবে প্রকাশ পেয়েছে তাঁদের বিয়ের মেনু কার্ডে। আর যেহেতু আধার দিয়েই মূলত ডিজিটাল ইন্ডিয়ার সূচনা হয়েছে, তাই আধারকেই এক্ষেত্রে তাঁরা বেছে নিয়েছেন।

সস্ত্রীক গোগোল জানান যে বিয়েবাড়িতে অনেক অতিথি-ই এই মেনু কার্ড দেখে চমকে যান। তাঁরা নবদম্পতির সঙ্গে ঠাট্টা করে বলেন যে, এই বিয়েতে প্রবেশের অনুমতি পেতে গেলে যে বিশেষ আধার কার্ড লাগবে, সেটা কোথায় পাওয়া যাবে!

অন্যরকম মেনু কার্ড সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল করে দেওয়ার আইডিয়া যার, সেই সুবর্ণা একজন স্বাস্থ্যকর্মী আর তাঁর স্বামী গোগোল কাজ করেন সেলস ও মার্কেটিং বিভাগে। লকডাউনের প্রভাবে অনেকেরই বিয়ে আটকে গিয়েছিল। সেই বিধিনিষেধ সামান্য ঢিলে হওয়ার পরে অনেকেই একটু অন্য ধাঁচে বিয়ে করছেন, যাতে এই ঘটনা সারা জীবন সবার মনে থাকে!

Published by:Ananya Chakraborty
First published: