Home /News /kolkata /
Kolkata Municipality: কলকাতা পুরসভার ১০০ বছরের প্রাচীন ছাপার যন্ত্র! আরও কত আশ্চর্য ইতিহাস, দেখতে পাবেন সবাই

Kolkata Municipality: কলকাতা পুরসভার ১০০ বছরের প্রাচীন ছাপার যন্ত্র! আরও কত আশ্চর্য ইতিহাস, দেখতে পাবেন সবাই

ঐতিহ্যের কলকাতা পুরসভা

ঐতিহ্যের কলকাতা পুরসভা

Kolkata Municipality: সম্প্রতি মেয়র পরিষদের বৈঠকে এই সংক্রান্ত আলোচনার প্রসঙ্গ উঠতেই শতবর্ষ প্রাচীন যন্ত্রকে টাউন হলের মিউজিয়ামে নিয়ে যাওয়ার প্রস্তাব দেন স্বয়ং মেয়র।

  • Share this:

#কলকাতা:  শতবর্ষ প্রাচীন ব্রিটিশ আমলের লেটার প্রেস মেশিন যাবে টাউন হলের মিউজিয়ামে। কলকাতা পুরসভায় পাশ হল প্রস্তাব। কলকাতা পুরসভার ছাপাখানা হবে অত্যাধুনিক। টেকস্যাভি ডিজিটাল প্রেস তৈরির ভাবনা মেয়র ফিরহাদ হাকিমের। শতবর্ষের পুরনো লেটার প্রেস। ব্রিটিশ আমলে কলকাতা পুরসভার কাজের জন্য সাগর পার করে এসেছিল ছাপার যন্ত্র। এই দুই যন্ত্রের মধ্যে একটি তৈরি হয়েছিল জার্মানিতে। অপরটি ইংল্যান্ডে তৈরি লেটার প্রেস।

১০০ বছরের ও বেশি পুরনো দুটি বাতিল মুদ্রণ যন্ত্রের স্থান হতে চলেছে নবনির্মিত টাউন হলে। টাউন হলের মিউজিয়ামে প্রদর্শনীর জন্য রাখা হবে। কলকাতার টাউন হলকে একটু অন্যভাবে সাজাতে চাইছে কলকাতা পৌরসভা কর্তৃপক্ষ। পুরনো কলকাতাকে দেখা যাবে এখানে। কলকাতা পুরসভার নিজস্ব ছাপাখানাতে এই দুটি যন্ত্র দীর্ঘদিন ধরেই বাতিল হয়ে পড়ে আছে। পাশাপাশি অফসেট প্রিন্টিং মেশিন বসেছে। আগের মতো কলকাতা পুরসভায় সেই ছাপার কাজ আধুনিক মানের নয়। এ বার তাই কলকাতা পুরসভার ছাপাখানাকে অত্যাধুনিক করে তুলতে চাইছেন মেয়র ফিরহাদ হাকিম।  স্বাধীনতার আগে ব্রিটিশ আমল হোক কিংবা স্বাধীনতার পরবর্তী সময়ের নানা মুদ্রণ যন্ত্রে বদলে স্মার্ট মেশিন বসানোর পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন - নিউটাউনে পার্ক ব্যবহারে আজব ফরমান ঘিরে বিস্মিত বাসিন্দারা

সম্প্রতি মেয়র পরিষদের বৈঠকে এই সংক্রান্ত আলোচনার প্রসঙ্গ উঠতেই শতবর্ষ প্রাচীন যন্ত্রকে টাউন হলের মিউজিয়ামে নিয়ে যাওয়ার প্রস্তাব দেন স্বয়ং মেয়র। প্রস্তাবে শীলমোহর পড়েছে বলে পুরসভা সূত্রের খবর। পুরনো যা কিছু বদলে সংস্কার হবে কলকাতা পুরসভার প্রধান কার্যালয়ের ছাপাখানা। মেয়র পারিষদ বৈঠকে ঠিক হয়েছে, ব্রিটিশদের নিয়ে আসা এই দুটি মুদ্রণ যন্ত্র হেরিটেজ হিসেবে টাউন হলে রাখা হবে। সেখানে সাধারণ মানুষ দেখতে পাবেন। পুরনো আমলে যে ভাবে অক্ষরের পর অক্ষর বসিয়ে বসিয়ে ছাপা হত তেমনই যন্ত্র। ছাপাখানার অপ্রয়োজনীয় যা কিছু নিলাম হবে। পুরনো যন্ত্রপাতি সহ ছাপাখানার নানা সরঞ্জাম।

আরও পড়ুন: পদ্মা সেতু দেখতে এসে মারাত্মক দুর্ঘটনা! ঘটে গেল রক্তারক্তি কাণ্ড, শোরগোল চারিদিকে

বর্তমানে এসএনব্যানার্জি রোডের কলকাতা পুরসভার ছাপাখানায় চারটি কম্পিউটার এবং একটি অফসেট মেশিন রয়েছে। সেগুলিকেও বদলে ফেলা হবে। ছাপাখানায় আধুনিক যন্ত্র বসানো হবে। কলকাতা পুরসভার বর্ষীয়ান আধিকারিকদের অনেকেই জানালেন, একটা সময় এই ছাপাখানায় যথেষ্ট ভাল কাজ হত। সরকারের অন্যান্য বিভাগের প্রয়োজনীয় কাজও করা হতো। সেই জন্যেই কলকাতা পুরসভার ছাপাখানায় সে সময় ২০০ জন কর্মচারী ছিলেন। বর্তমানে তা কমতে কমতে ২০ তে দাঁড়িয়েছে।

মেয়র পারিষদ বৈঠকে ফিরহাদ হাকিমের প্রস্তাব, ছাপাখানাকে আধুনিক করে গড়ে তোলা শুধু নয়, কার্যকারী করে তুলতে হবে।  আগামী দিনে যাতে হৃত গৌরব ফিরে পায় কলকাতা পুরসভার ছাপাখানা। ছাপার কাজের জন্য সরকারের অন্য দফতরের বরাত পেতে যাতে পুরসভা চেষ্টা চালাতে পারে। তেমনটা বাস্তবে হলে কলকাতা পুরসভার কোষাগারেও অর্থাগম হবে।

কলকাতা পুরসভার সূত্রে খবর ২০১২ সালে একবার এই ছাপাখানাকে আধুনিক করার উদ্যোগ নিয়েছিলেন তৎকালীন বিভাগীয় মেয়র পারিষদ তারক সিং। সেই সময় যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশেষজ্ঞদের দিয়ে সার্ভের কাজও করানো হয়। কলকাতা পুরসভার শতবর্ষ প্রাচীন ছাপাখানা সংস্কারে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় প্রায় দুই কোটি টাকার খরচের প্রস্তাব দিয়েছিল। কোনো এক অজ্ঞাত কারণে বিশ্ববিদ্যালয়ের সেই প্রস্তাব আর দিনের আলো দেখেনি। এবার ফের ছাপাখানা নিয়ে পুর-উদ্যোগ শুরু হয়েছে। ছাপাখানাকে অত্যাধুনিক করে কার্যকারী করে তুলতে চাইছেন খোদ মেয়র।

BISWAJIT SAHA

Published by:Uddalak B
First published:

Tags: KMC

পরবর্তী খবর