corona virus btn
corona virus btn
Loading

চিনা লাইট বিক্রির মন নেই টেরিটি মার্কেটের,'ভারতীয় জওয়ানদের বলিদানটাই শেষ কথা', বলছে ব্যবসায়ীরা

চিনা লাইট বিক্রির মন নেই টেরিটি মার্কেটের,'ভারতীয় জওয়ানদের বলিদানটাই শেষ কথা', বলছে ব্যবসায়ীরা

গত ৮ থেকে ১০ বছর ধরে কলকাতার এই টেরিটি মার্কেটেই সবথেকে বেশি চিনা লাইট বিক্রি হয়।

  • Share this:

#কলকাতা: সোমবার রাতে লাদাখের গালওয়ান উপত্যকায় অনুপ্রবেশকারী চিনা সেনাবাহিনীর সঙ্গে ভারতীয় সেনাবাহিনীর সংঘর্ষ হয়। ভারতীয় সেনাবাহিনীর ২০ জন জওয়ান শহীদ হন। তারপর থেকেই দেশজুড়ে চিনা দ্রব্য বয়কট করার সুর চড়তে শুরু করেছে। ইতিমধ্যেই কেন্দ্রের একাধিক সংস্থা চিনের বিভিন্ন সংস্থার সঙ্গে করা চুক্তি বাতিল করার প্রক্রিয়া শুরু করে দিয়েছে। চিনা দ্রব্য বয়কট করার জন্য একাধিক জায়গায় বিক্ষোভ আন্দোলন শুরু করেছেন নাগরিকরা। তারই মাঝে চিন থেকে আমদানি করা বিভিন্ন ধরনের লাইট বিক্রির মন হারিয়েছে মধ্য কলকাতার অন্যতম মার্কেট টেরিট্টি মার্কেটের ব্যবসায়ীরা। কলকাতার এই মার্কেটে সব থেকে বেশি চিনা লাইট বিক্রি হয়। কিন্তু গত মঙ্গলবার এরপর থেকে সেই চিনা লাইট বিক্রির মন নেই এই মার্কেটের ব্যবসায়ীদের। তবে ইচ্ছা না থাকলেও পেটের জ্বালাতেই স্টক খালি করতে চাইছেন এই মার্কেটের ব্যবসায়ীরা।

রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ব্যবসায়ীরা টেরিটি মার্কেটে এসেই সাধারণত লাইট কিনে নির্দিষ্ট জায়গায় বিক্রি করেন। বিশেষত এই মার্কেটে চিনা লাইটের চাহিদাই বেশি থাকে ব্যবসায়ী ও ক্রেতাদের কাছে। কেননা কম দামে চিনা লাইট পাওয়া যায় এই মার্কেট থেকেই। পুজোর আগে বা দীপাবলীর আগে এই মার্কেট আবার পা রাখার পর্যন্ত জায়গা থাকে না। কেননা পুজোর সময় বিভিন্ন বাড়িতে সাজানোর জন্য যে লাইট গুলো লাগানো হয় বেশিরভাগ লাইটই চিন থেকে আমদানি করা। কিন্তু গত সোমবারের লাদাখের গালওয়ান উপত্যকায় অনুপ্রবেশকারী চিনা সৈন্য বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে কুড়ি জন ভারতীয় সেনাবাহিনীর জওয়ান শহীদ হয়েছেন। তার পরপরই এই মার্কেটের ব্যবসায়ীদের কাছে চিনা লাইট থেকে শুরু করে একাধিক জিনিস বিক্রি করার মানসিকতা নেই।

মূলত ঝাড়বাতি, বাড়ি সাজানোর বিভিন্ন ধরনের লাইট, বাল্ব অনেকটাই কম দামে পাওয়া যায়। যার জেরে ক্রেতাদের কাছে চিন থেকে আমদানি করা এই লাইট বা সরঞ্জামগুলির চাহিদা অনেকটাই বেশি। সোমবারের ঘটনার পর এই মার্কেটের ব্যবসায়ীদের কাছে এখন ভারতীয় বেদেসে তৈরি করা বিভিন্ন লাইট বা ঘর সাজানোর ঝাড় বাতির চাহিদা বাড়ছে। ব্যবসায়ীরা অবশ্য বলছেন " চিন থেকে আমদানি করা এই লাইট গুলোর দাম অনেকটাই কম। কিন্তু এদেশে যে লাইট গুলি তৈরি হয় তার দাম অনেকটাই বেশি। আর তাই দাম বেশি হবার জন্য চিনা লাইট গুলির কদরই এখন বেড়ে গেছে ক্রেতাদের কাছে।"

তবে চিনের দ্রব্য এ দেশের বাজারে বিক্রি বন্ধ হয়ে গেলে ক্ষতির সম্মুখীন হতে হবে এই মার্কেটের ব্যবসায়ীদের। কিন্তু তা সাময়িক ক্ষতি হিসেবেই হবে বলে বলছেন টেরিটি মার্কেটের ব্যবসায়ীরা। লকডাউনের আগেই শেষবার চিন থেকে আমদানি করে মাল ঢুকেছে টেরিটি মার্কেটে। তারপর লকডাউন চলার জন্য গত দু'মাসেরও বেশি মার্কেটের ব্যবসা বন্ধ ছিল। তার উপরে এই ধরনের ঘটনা আরো চিন্তা বাড়াচ্ছে এই মার্কেটের ব্যবসায়ীদের কাছে। বিক্রি করতে না চাইলেও যে সরঞ্জামগুলি ওপর বিনিয়োগ করে রাখা আছে তা যদি বিক্রি না হয় তাহলে প্রবল ক্ষতির সম্মুখীন হবেন বলেই বলছেন ব্যবসায়ীরা। এ প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে এক ব্যবসায়ী বলেন " আমরা চাইনা চিনা লাইট বিক্রি করতে। কিন্তু আমাদের যে বিনিয়োগ ইতিমধ্যেই হয়ে রয়েছে সেই স্টক গুলি আমরা খালি করতে চাই। না হলে আমরা প্রচুর ক্ষতির সম্মুখীন হব।" তবে চিনা দ্রব্যের বদলে এই মার্কেটের ব্যবসায়ীরা এখন চাইছেন ভারতীয় প্রযুক্তিতে তৈরি করা এই ধরনের লাইট। ব্যবসায়ীরা চিনার লাইট এর পাশাপাশি এদেশের লাইট বিক্রি করেন। কিন্তু বিক্রিটা বেশি চিনা লাইটের। এ প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে এক ব্যবসায়ী বলেন " এদেশেও যদি এই ধরনের লাইট পাওয়া যায় কেন আমরা চিনের ওপর নির্ভর করব। আমরাও চাই এ দেশেই তৈরি হোক এই ধরনের লাইট যাতে ক্রেতাদের চাহিদা মেটানো যায়।"

SOMRAJ BANDOPADHYAY

Published by: Ananya Chakraborty
First published: June 19, 2020, 2:20 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर