কলকাতা

corona virus btn
corona virus btn
Loading

রাজ্যের প্রতিটা মহকুমায় ক্রেতা সুরক্ষা দফতর খুলতে চলেছে সরকার

রাজ্যের প্রতিটা মহকুমায় ক্রেতা সুরক্ষা দফতর খুলতে চলেছে সরকার

এ বার প্রতিটা মহকুমাতে একটি করে ক্রেতা সুরক্ষা আদালত খোলার পরিকল্পনা নিয়েছে দফতর। যাতে অনেক বেশি মানুষের কাছে পৌঁছানো যায় ।

  • Share this:

SHANKU SANTRA

#কলকাতা: হাইকোর্টের নির্দেশে কলকাতায় চতুর্থ নম্বর ক্রেতা সুরক্ষা দফতর খুলছে শিয়ালদহ কোর্টের চতুর্থ তলে। এর আগে কলকাতায় তিনটি ক্রেতা সুরক্ষা আদালত ছিল। নতুন এই আদালতে হওয়ার ফলে উপকৃত হবেন পূর্ব কলকাতার বেশ কয়েকটি ওয়ার্ডের মানুষেরা।  ২০১১ সালের পর খাদ্য ও সরবরাহ দফতর থেকে, ক্রেতা সুরক্ষা দফতরকে সম্পূর্ণ ভাবে আলাদা করে, স্বাধীন মন্ত্রীর হাতে তুলে দেন, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়।সেই দফতরের স্বাধীন মন্ত্রী, নতুন করে এই দফতরকে মানুষের সেবায় তুলে ধরেন - মন্ত্রী সাধন পাণ্ডে।

গতকাল বুধবার সাধন পাণ্ডে বলেন, তিনি সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছেন। কারণ, প্রোমোটার কিংবা কোনও বড় ব্যবসায়ী এই আদালতে দোষী সাব্যস্ত হওয়ার পর হাইকোর্টে চলে গিয়ে জামিন নিয়ে নিচ্ছেন। যার ফলে ভুক্তভোগীরা সেই অন্ধকারেই থেকে যাচ্ছেন। কখনও হাইকোর্টের বিচারপতি ক্রেতা সুরক্ষার বিচারককে ডেকে বলছেন, তিনি যে নিদান দিয়েছেন সেটা দিতে পারেন না। সেই জন্য সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছেন মন্ত্রী। যাতে ক্রেতা আদালতের রায়ের মধ্যে হাইকোর্ট কোনও ভাবে নাক গলাতে না পারে। তিনি আশাবাদী, এই রায় খুব তাড়াতাড়ি আসবে। যার ফলে ভুক্তভুগী ক্রেতারা উপকৃত হবেন।

শিয়ালদহ আদালতে নতুন ক্রেতা সুরক্ষা আদালত তৈরি হওয়ার কারণে অনেকে বেশ খুশি। অনেকের দাবি, এই সরকারের আমলে প্রচুর মানুষ এই আদালতের দ্বারস্থ হচ্ছেন। হাতে নাতে ফলও পাচ্ছে সাধারণ মানুষ।  মন্ত্রী সাধন পাণ্ডে, এও বলেন, জেলায় ভুক্তভুগীদের জেলা সদরে যেতে হয়। ক্রেতা সুরক্ষার মামলা করতে বা অভিযোগ জানাতে।

অনেকে আছেন অনেক দূরত্ব হওয়ার জন্য অভিযোগ জানানোর পরিকল্পনা নিয়েও পিছিয়ে যান। এ বার প্রতিটা মহকুমাতে একটি করে ক্রেতা সুরক্ষা আদালত খোলার পরিকল্পনা নিয়েছে দফতর। যাতে অনেক সরল উপযোগী সুবিধা হবে সবার। আর এর ফলে অসাধু ব্যবসায়ীদের দৌরাত্ম্য অনেক কমে যাবে।  মন্ত্রী নিজেই দাবি করে বলেন, অন্য রাজ্যে খাদ্য দফতরের সঙ্গে ক্রেতা সুরক্ষা দফতর রয়েছে। একমাত্র পশ্চিম বাংলায় দুটি দফতর আলাদা। যার ফলে প্রচুর মানুষ এই দফতরের সুবিধা পাচ্ছেন এবং লাভবান হচ্ছেন।

First published: December 24, 2020, 8:03 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर