Clash & Murder in Tollygunj: টালিগঞ্জে ২ ঠিকাকর্মীর বচসা, ছাদ থেকে আচমকা ধাক্কা, মর্মান্তিক মৃত্যু

প্রতীকী ছবি।

মাদক কেনার টাকা নিয়ে মেট্রো রেলের দুই ঠিকা শ্রমিকের মধ্যে বচসা-হাতাহাতি, ছাদ থেকে ঠেলে ফেলে খুন ।

  • Share this:

    #কলকাতা: মাদক কেনার টাকা নিয়ে মেট্রো রেলের দুই ঠিকা শ্রমিকের মধ্যে বচসা-হাতাহাতি। বচসা চলাকালীন এক শ্রমিক অপরজনকে ধাক্কা মারলে পড়ে গিয়ে জ্ঞান হারায়। তড়িঘড়ি এসএসকেএম হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে মৃত্যু হয় তাঁর। এমনই অভিযোগ পাওয়ার পর রিজেন্ট পার্ক থানার পুলিশ ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩০৪ ধারা অর্থাৎ অনিচ্ছাকৃত খুনের মামলা শুরু করেছে ওপর শ্রমিকের বিরুদ্ধে। তবে ঘটনার পর থেকে পলাতক অভিযুক্ত।

    রবিবার দুপুরে টালিগঞ্জ মেট্রো লাইনের ওপরের ছাদে শুয়েছিলেন লালগোলার বাসিন্দা পেশায় ঠিকা শ্রমিক তিনকড়ি শেখ। পুলিশ সূত্রে খবর, ওই সময় তিনকড়ির সহকর্মী পেশায় শ্রমিক মুরসালিন শেখ এসে টাকা চান মাদক কেনার জন্য। সেই সময় মাদক কেনার টাকা না দেওয়ায় তিনকড়ি এবং মুরসালিনের মধ্যে বচসা বেধে যায়। এরপর হঠাৎই তিনকড়িকে ধাক্কা মারে মুরসালিন। ধাক্কা সামলাতে না পেরে ছাদের ওপর পড়ে যায় তিনকড়ি, অভিযোগ তিনকড়ির দাদা আনিসুদ্দিন শেখের। এরপর সেখানে কর্মরত অন্যান্য শ্রমিকরা ঘটনাস্থলে এসে দেখেন তিনকড়ি সংজ্ঞাহীন অবস্থায় পড়ে রয়েছে। তৎক্ষণাৎ তিনকড়িকে উদ্ধার করে নিয়ে যাওয়া হয় এসএসকেএম হাসপাতালে এবং সেখানে ভর্তি করা হয়। সোমবার সকালে হাসপাতালে মারা যান তিনকড়ি।

    রিজেন্ট পার্ক থানার তরফে সকালে একটি অস্বাভাবিক মৃত্যুর মামলা রুজু করা হয়।  পরে মৃত তিনকড়ির দাদার অভিযোগের ভিত্তিতে অনিচ্ছাকৃত খুনের অভিযোগ দায়ের করে পুলিশ। তিনকড়ির মৃত্যুর খবর পেয়ে এলাকা ছাড়া হয়েছে মুরসালিন। তার খোঁজ শুরু করেছে পুলিশ। ইতিমধ্যে এসএসকেএম হাসপাতালে তিনকড়ির ময়না তদন্ত করা হয়েছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট হাতে পেলে তিনকড়ির মৃত্যুর আসল কারণ জানা যাবে বলে দাবি পুলিশের। বহুদিন ধরেই মেট্রোর ঠিকা শ্রমিক হিসেবে কাজ করতেন তিনকড়ি। তাঁর গ্রাম লালগোলার অনেকেই এখানে কাজ করেন। টালিগঞ্জ মেট্রো সংলগ্ন এলাকায় ফুটপাতের কাছে অস্থায়ী ছাউনি বানিয়ে থাকেন ওঁরা। পুলিশ জানতে পেরেছে এখন নাইটশিফটে কাজ চলছে, তাই দুপুরে ওই ছাদে বিশ্রাম নিচ্ছিলেন তিনকড়ি।

    Amit Sarkar

    Published by:Shubhagata Dey
    First published: