একাঙ্ক নাটক সাঙ্গ হল শাহী বাসভবনে, রাজীব-প্রবীররা আজ থেকে পদ্মাসনে

একাঙ্ক নাটক সাঙ্গ হল শাহী বাসভবনে, রাজীব-প্রবীররা আজ থেকে পদ্মাসনে

পরিপাটি ফ্রেম: অবশেষে বিজেপিতে যোগ দিলেন রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়, প্রবীর ঘোষালরা।

হাওড়া জেলার এ হেন ধ্বসের পরে প্রশ্ন পরে রইল একটাই, তৃণমূল কি এই জেলায় ঘুরে দাঁড়াতে পারবে?

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: ইংরেজিতে বলে 'এক্সোডাস'। বাংলা করলে দাঁড়ায় মহানিস্ক্রমণ। তৃণমূল থেকে বিজেপিতে যোগ দেওয়ার যে হিড়িক তাঁকে এভাবেই আখ্যয়িত করছেন অনেকে। শুভেন্দু অধিকারীকে দিয়ে শুরু হওয়া সেই খেলা অবশেষে সাঙ্গ হল। বহু নাটকীয় উত্থানপতনের পর অমিত শাহর বাসভবনে আজ, শনিবার সন্ধ্যায় আনুষ্ঠানিক ভাবে বিজেপিতে  যোগদান করলেন রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়, প্রবীর ঘোষাল, বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়, রথীন চক্রবর্তীরা। হাওড়া জেলার এ হেন ধ্বসের পরে প্রশ্ন পরে রইল একটাই, তৃণমূল কি এই জেলায় ঘুরে দাঁড়াতে পারবে?

    দল ছেড়ে প্রথম বিদ্রোহ ঘোষণা করেছিলেন শুভেন্দু অধিকারী। বিজেপিতে তারপর তাঁর উত্থান ধূমকেতুর মতো। অমিত শাহের থেকে পতাকা নিতে না নিতেই তোপ দাগা শুরু করেছিলেন শুভেন্দু অধিকারী। অমিত শাহই যোগদান করালেন রাজীবদের। কিন্তু এক্ষেত্রেও রাজীব ট্রেন্ডসেটার রইলেন। ঘনঘটা নয়, বর্ণচ্ছটা নয়, কুৎসা নয়, গোটা অনুষ্ঠানটা কার্যত রাজীবের নেতৃত্বেই বাঁধা হল নীচুতারে। শহর ছাড়ার আগেই সে কথা রাজীব বলে গিয়েছিলেন, বলেছিলেন, কুৎসা নয়, খেয়োখেয়ি নয় শিষ্টাচার বজায় রেখে মানুষের সঙ্গে কাজ করতে চান তিনি।

    নিখুঁত চিত্রনাট্য নাকি একান্ত অনুভব জানা নেই। তবে এদিনও প্রবীর-রাজীবের মুখে ছিল মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নাম। রাজীব সঙ্গ করেছেন দুই দশক, আর প্রবীর ঘোষাল। ফলে নতুন যাত্রার আগে কেউই অস্বস্তি লুকোতে পারেনি। প্রবীর বলছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রতি শ্রদ্ধা থাকবে। আর রাজীব দূর থেকেই তাঁর উদ্দেশ্যে প্রণাম জানান। তারপরই নতুন পথে পাড়ি দেওয়া। রাজীব প্রবীরদের এই যোগদানের চিত্রনাট্যটি সামান্য টাল খেয়েছিল ডুমুরজোলার শাহী সভা বাতিল হওয়ায়। কিন্তু শেষমেশ সময়ের আগে, দিল্লি গিয়েই নাটকে ইতি টানলেন রাজীবরা।

    রাত পেরোলেই ঝাঁপিয়ে পড়ে পূর্ণ উদ্যমে কাজ করতে চাইছেন রাজীব প্রবীররা, যাতে কাজের জন্য দল ছাড়া, এই তত্ত্বটি মান্যতা পায়। তাঁদের পথ দেখাবেন মেন্টর শুভেন্দু। ইতিমধ্যেই বৈঠক করে রাজীবদের শুভেন্দু জানিয়ে দিয়েছেন পথ দেখাবেন তিনি। অনেকেই আজকের এই নিখুঁত ফ্রেমটাকে দেখে বলছেন , ষোলকলাপূর্ণ হল। এখন দেখার দলত্যাগীরা কতটা ডিভিডেন্ট দিতে পারেন গেরুয়া শিবিরকে।

    Published by:Arka Deb
    First published: