• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • CBI SETS 4 BASE CAMPS FOR INVESTIGATION ON POST POLL VIOLENCE IN WEST BENGAL SB

Cbi on Post Poll Violence: চার জায়গায় বেসক্যাম্প, বিরাট টিম রাজ্যে ঘুরছে সিবিআই-এর টিম! লক্ষ্যে কারা?

আসরে সিবিআই

Cbi on Post Poll Violence: ভোট পরবর্তী অশান্তির তদন্তের সুবিধার্থে ইতিমধ্যেই বাংলাকে চার ভাগে ভাগ করে নিয়েছে সিবিআই। উত্তরবঙ্গ , দক্ষিণবঙ্গ, পূর্বাঞ্চল ও কলকাতা-এই চারটি ভাগে ভাগ হয়ে কাজ শুরু করে দিয়েছে সিবিআই।

  • Share this:

    #কলকাতা: বাংলার বিধানসভা ভোটকে কেন্দ্র করে ঘটা হিংসা নিয়ে জোর কদমে আসরে নেমে পড়ল সিবিআই। ইতিমধ্যেই হাইকোর্টের নির্দেশে ভোট পরবর্তী অশান্তি মামলায় ধর্ষণ ও খুনের ঘটনার তদন্তভার পেয়েছে সিবিআই। আর তারপরই ওইসব মামলার তদন্তের দায়িত্ব নিয়ে সিবিআই মোট ৯টি মামলা রুজু করেছে। তদন্তের সুবিধার্থে ইতিমধ্যেই বাংলাকে চার ভাগে ভাগ করে নিয়েছে সিবিআই। উত্তরবঙ্গ , দক্ষিণবঙ্গ, পূর্বাঞ্চল ও কলকাতা-এই চারটি ভাগে ভাগ হয়ে কাজ শুরু করে দিয়েছে সিবিআই।

    জানা গিয়েছে, কলকাতার গণ্ডি পেরিয়ে জেলা সফরে বেরিয়ে পড়েছে সিবিআই টিম। একটি টিম আসানসোলের উদ্দেশে রওনা দিয়েছে ইতিমধ্যেই। অন্য একটি টিম গেছে উত্তরবঙ্গে। সিবিআই সূত্রের খবর, নিজাম প্যালেস বা সিজিও কমপ্লেক্স নয়, সিবিআই টিমের বেস ক্যাম্প হবে চারটি জায়গায়। একটি ক্যাম্প হবে দুর্গাপুরে। সেখান থেকেই বাঁকুড়া, পশ্চিম মেদিনীপুর, বীরভূম, সহ বেশ কয়েকটি পশ্চিমের জেলার মামলার তদন্ত করবে।

    আর একটি বেস ক্যাম্প হবে কোচবিহারে। সেখান থেকেই গোটা উত্তরবঙ্গ অপারেট হবে। বাকি দুটি ক্যাম্প হবে কলকাতা সংলগ্ন এলাকায়। এই সমস্ত বেস ক্যাম্প থেকেই সিবিআই গোয়েন্দারা অপারেশন পরিচালনা করবেন।

    প্রসঙ্গত, গত ১৯ অগস্ট ভোট পরবর্তী হিংসার মামলায় সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দেয় কলকাতা হাইকোর্ট। ভোটের পর বেশ কয়েকটি খুন ও মহিলাদের বিরুদ্ধে ঘটা অপরাধের তদন্ত করছে কেন্দ্রীয় তদন্ত সংস্থা। এর মধ্যে রয়েছে বেলেঘাটার অভিজিৎ সরকার খুনের ঘটনাও। ওইসব মামলার তদন্ত করবে স্পেশাল ক্রাইম ব্রাঞ্চ। এর জন্য ১০৯ জনের একটি টিম গঠন করা হয়েছে। ওই প্রত্যেকটি মামলার আলাদা করে তদন্ত করবে সিবিআই। ইতিমধ্যেই সিবিআইয়ের ৪ জয়েন্ট ডিরেক্টের কলকাতায় এসেছেন। অপেক্ষাকৃত কম গুরুত্বপূর্ণ মামলার তদন্তের জন্য সৌমেন মিত্র, সুমন বালা-সহ ৩ জন আইপিএসকে নিয়ে গঠন করা হয়েছে ৩ সদস্যের সিট। সুপ্রিম কোর্টের অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতির নজরদারিতে কাজ করবে সিট। অন্যদিকে, মানবাধিকার কমিশনের রিপোর্টের প্রেক্ষিতে দুষ্কৃতীদের তালিকায় একাধিক তৃণমূল নেতার যুক্ত থাকার আবেদনও খারিজ করেছে কলকাতা হাইকোর্ট।

    Published by:Suman Biswas
    First published: