• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • West Bengal Municipal Elections: চার থেকে ছয় সপ্তাহ পিছিয়ে দেওয়া হোক পুরভোট, কমিশনকে পরামর্শ হাইকোর্টের

West Bengal Municipal Elections: চার থেকে ছয় সপ্তাহ পিছিয়ে দেওয়া হোক পুরভোট, কমিশনকে পরামর্শ হাইকোর্টের

পিছিয়ে দেওয়া হোক ভোট, মনে করছে হাইকোর্ট৷

পিছিয়ে দেওয়া হোক ভোট, মনে করছে হাইকোর্ট৷

প্রসঙ্গত আগামী ২২ জানুয়ারি শিলিগুড়ি, বিধাননগর, চন্দননগর এবং আসানসোল পুরনিগমে ভোট হওয়ার কথা (West Bengal Municipal Elections)৷

  • Share this:
#কলকাতা: বর্তমান করোনা পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে চার থেকে ছয় সপ্তাহের জন্য পিছিয়ে দেওয়া হোক চার পুরনিগমের ভোট (West Bengal Municipal Elections)৷ রাজ্য নির্বাচন কমিশনকে এমনই পরামর্শ দিল কলকাতা হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি প্রকাশ শ্রীবাস্তব এবং অজয় কুমার মুখোপাধ্যায়ের ডিভিশন বেঞ্চ৷ নির্বাচন পিছনো হবে কি না, সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে নির্বাচন কমিশনকে ৪৮ ঘণ্টা সময়ও বেঁধে দিয়েছে হাইকোর্ট (Calcutta High Court)৷

প্রসঙ্গত আগামী ২২ জানুয়ারি শিলিগুড়ি, বিধাননগর, চন্দননগর এবং আসানসোল পুরনিগমে ভোট হওয়ার কথা৷ কিন্তু বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে ভোট পিছনোর আবেদন জানিয়ে জনস্বার্থ মামলা দায়ের হয় কলকাতা হাইকোর্টে৷

আরও পড়ুন: রাস্তায় হঠাৎ খুলে গেল মশারি, তার মধ্যে... চন্দননগরে বিজেপি-র অভিনব কৌশল

মামলার শুনানি চলাকালীন বৃহস্পতিবারই রাজ্য নির্বাচন কমিশন এবং রাজ্য সরকারের কাছ থেকে চার পুরনিগম এলাকার কোভিড পরিস্থিতি নিয়ে বিস্তারিত তথ্য চেয়েছিল কলকাতা হাইকোর্ট৷

আরও পড়ুন: কোভিড বিধি? অভিনব কায়দায় প্রচারে একাই-একশো চন্দননগরের 'বাইক-ভোলা'!  

বৃহস্পতিবারের শুনানিতে নির্বাচন কমিশনের তরফে যুক্তি দেওয়া হয়, বিজ্ঞপ্তি জারি হওয়ার পর একমাত্র রাজ্যের তরফে বিপর্যয় ঘোষণা করা হলেই তারা ভোট পিছোতে পারে৷

কিন্তু এ দিন কলকাতা হাইকোর্টের প্রধান বিচাপতির ডিভিশন বেঞ্চ সংবিধানের ২৪৩-এর (জেড এ) ধারা তুলে ধরে স্পষ্ট করে দেয়, রাজ্যে স্থানীয় ভোট পিছনোর ক্ষেত্রে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়ার অধিকারী রাজ্য নির্বাচন কমিশনই৷

পুরভোট পিছিয়ে দেওয়া নিয়ে জনস্বার্থ মামলায় রাজ্য নির্বাচন কমিশন এবং রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে বার বারই দাবি করা হয়েছে, যথাযথ কোভিড বিধি মেনেই নির্বাচনের আয়োজন সম্ভব৷  যদিও মামলাকারীদের তরফে বার বারই রাজ্যের সার্বিক কোভিড পরিস্থিতি এবং গোটা দেশের মধ্যে রাজ্যের সংক্রমণের হার কী অবস্থায় রয়েছে, তা তুলে ধরা হয়৷ ভোট পিছিয়ে দেওয়ার এক্তিয়ার রাজ্য নির্বাচন কমিশনের আছে কি না, তাও জানতে চেয়েছিল হাইকোর্ট৷

হাইকোর্টের রায়ের পর তৃণমূল সাংসদ সৌগত রায় বলেন, 'হাইকোর্টের এই পরামর্শকে উপেক্ষা করা উচিত নয়৷ রাজ্য নির্বাচন কমিশন নিশ্চয়ই সেই পরামর্শ বিবেচনা করে সিদ্ধান্ত নেবে৷'

বিজেপি নেতা শমীক ভট্টাচার্যের বক্তব্য, 'আমরা হাইকোর্টের রায়কে স্বাগত জানাচ্ছি৷ আমরা বলেছিলাম মানুষ গণতান্ত্রিক অধিকার প্রয়োগ করতে না পারলে নির্বাচনের কোনও মানেই হয় না৷'

আইনজীবী এবং সিপিএম নেতা বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্য বলেন, 'অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ নির্দেশ৷ হাইকোর্টের নির্বাচন কমিশনকে তাদের সাংবিধানিক অধিকার স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন৷ হাইকোর্ট মনে করছে, এই পরিস্থিতিতে সুষ্ঠু এবং অবাধ নির্বাচন সম্ভব নয়৷ এখন দেখার যে রাজ্য নির্বাচন কমিশন নিজেদের সাংবিধানিক অধিকার প্রয়োগ করে কি না৷'

Published by:Debamoy Ghosh
First published: