আধার কার্ড নাকি বিয়ের মেনু কার্ড? বাঙালি বিয়েতে নতুন চমক, বিভ্রান্ত অতিথিরা! ফেসবুকে ভাইরাল ছবি

বাঙালি বিয়েতে আধার কার্ডের নকশা অবলম্বনে মেনু কার্ডটি তৈরি করা হয়েছিল। যা দেখে অতিথিরাই কেবল হতবাক হননি, সোশ্যাল মিডিয়ায় চরম ভাইরাল তাঁদের বিয়ের মেনু কার্ড।

বাঙালি বিয়েতে আধার কার্ডের নকশা অবলম্বনে মেনু কার্ডটি তৈরি করা হয়েছিল। যা দেখে অতিথিরাই কেবল হতবাক হননি, সোশ্যাল মিডিয়ায় চরম ভাইরাল তাঁদের বিয়ের মেনু কার্ড।

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: বিয়ে নিয়ে প্রত্যেকের মনেই হরেক রকম সাধ থাকে। বিয়ের ওই একটা দিন, মুহূর্ত গুলোকে আরও অনন্য করে তোলার জন্য বহু দম্পতি পোশাক থেকে বিয়ের আয়োজন কিংবা বিয়ের আমন্ত্রণ কার্ডে নিয়ে আসে আলাদা স্বাদ। যাতে সবার থেকে আলাদা হয় তাঁদের এই বিশেষ দিন। তবে এ বার এক বাঙালি দম্পতি তাঁদের বিয়েতে খাবারের মেনু কার্ডে এনেছেন অভিনব চিন্তা ভাবনা। আধার কার্ডের নকশা অবলম্বনে মেনু কার্ডটি তৈরি করা হয়েছিল। যে দেখে অতিথিরাই কেবল হতবাক হননি, সোশ্যাল মিডিয়ায় চরম ভাইরাল তাঁদের বিয়ের মেনু কার্ড।

    অতিথিদের মধ্যে একজন নবদম্পতির বিয়ের মেনু কার্ড ফেসবুকে দেওয়া মাত্রই বিভিন্ন সামাজিক প্ল্যাটফর্মে সঙ্গে সঙ্গে ভাইরাল হয় ছবি। আর তারপরেই নেটদুনিয়ায় শুরু হয়ে যায় এই নিয়ে চর্চা। সংবাদ মাধ্যমকে ওই যুগল গোগল সাহা এবং সুবর্ণা দাস জানিয়েছেন, তাঁদের বিয়ের মেনু কার্ড ব্যাপক হারে সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করা দেখে তাঁরা ভীষণ খুশি হয়েছেন।

    গোগল সাহা এবং সুবর্ণা দাস।

    কিন্তু বিয়ের মেনু কার্ডে এই অভিনব চিন্তা ভাবনা পেলেন কীভাবে দম্পতি? সাহা জানিয়েছেন, "আসলে এই অনবদ্য ভাবনা আসলে আমার স্ত্রী সুবর্ণার। আমরা দুজনেই ডিজিট্যাল ইন্ডিয়াকে সমর্থন করি। তাই এর চেয়ে ভাল উপায় আর কী বা হতে পারে?"। তিনি আরও বলেছেন, বিয়েতে আমন্ত্রিত অতিথিরা মেনু কার্ড দেখে একেবারে হতভম্ব হয়েছিলেন। কেউ কেউ ভেবেছিলেন, বিয়ে বাড়িতেও বোধ হয় আজকাল আধার কার্ড বাধ্যতামূলক। কেউ কেউ আবার জিজ্ঞাসা করেছিলেন সাহাকে যে, তিনি তাঁর আধার কার্ড ডিনার টেবিলে ফেলে এসেছিলেন কি না! এ বিষয়টি খুবই মজাদার ছিল দম্পতির মতে।

    গোগল সাহা এবং সুবর্ণা দাস, সোমবার দিন ১ ফেব্রুয়ারি গাঁটছড়া বাঁধেন এবং তাঁরা উভয়ই কলকাতার রাজারহাট এলাকার বাসিন্দা। সুবর্ণা পেশায় স্বাস্থ্যকর্মী এবং গোগল পেশায় একজন বিক্রয় ও বিপণন কর্মচারী।

    Published by:Somosree Das
    First published: