• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • Bangla News | Maheshtala Police: 'অত্যাচারী পুলিশ অফিসারের পদত্যাগ চাই', ফের মারধরে অভিযুক্ত খোদ পুলিশ!

Bangla News | Maheshtala Police: 'অত্যাচারী পুলিশ অফিসারের পদত্যাগ চাই', ফের মারধরে অভিযুক্ত খোদ পুলিশ!

Bangla News | Maheshtala Police

Bangla News | Maheshtala Police

যে থানায় কর্মরত পুলিশ অফিসার, সেই থানাতেই অভিযুক্ত সাব-ইন্সপেক্টরের বিরুদ্ধে মারধরের অভিযোগ দায়ের হল (Bangla News | Maheshtala Police)।

  • Share this:

#কলকাতা: কলকাতার এক্সাইড মোড়ের পরে এবার ঘটনাস্থল মহেশতলা। কলকাতা পুলিশের পর এবার একই অমানবিকতার অভিযোগ রাজ্য পুলিশের এক অফিসারের বিরুদ্ধে। যে থানায় কর্মরত পুলিশ অফিসার, সেই থানাতেই অভিযুক্ত সাব-ইন্সপেক্টরের বিরুদ্ধে মারধরের অভিযোগ দায়ের হল (Bangla News | Maheshtala Police)। মহেশতলার বাসিন্দা সুমন্ত বেরাকে কালীপুজোর দিন রাতে বেধড়ক মারধর করার অভিযোগ ওঠে মহেশতলা থানার সাব-ইন্সপেক্টর আবুল মারজানের বিরুদ্ধে (Bangla News | Maheshtala Police)। সেই ঘটনায় অভিযুক্ত পুলিশ অফিসারের বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থা না নেওয়ার কারণে মহেশতলা থানায় বুধবার দিনভর বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন স্থানীয় বাসিন্দারা (Bangla News | Maheshtala Police)। মহেশতলা থানার পর ডায়মন্ড হারবারের পুলিশ সুপারের কাছে অভিযুক্ত সাব-ইন্সপেক্টর আবুল মারজানের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ জমা পড়ে বৃহস্পতিবার।

পরিবারের তরফে শ্রীকান্ত বেরা মহেশতলা থানার পাশাপাশি ডায়মন্ডহারবারের পুলিশ সুপারের কাছে লিখিতভাবে অভিযোগ দায়ের করেছেন অভিযুক্ত সাব-ইন্সপেক্টরের বিরুদ্ধে। বুধবার সকাল থেকে মহেশতলা থানার সামনে স্থানীয় তৃণমূল বিধায়ক দুলাল দাসের নেতৃত্বে অভিযুক্ত পুলিশ অফিসারের অপসারণের দাবিতে অবস্থান বিক্ষোভে সামিল হন স্থানীয় মানুষ জন। পুলিশের বিরুদ্ধে অমানবিক অত্যাচারের প্রতিবাদে সরব হন বিক্ষোভকারীরা। থানার দেওয়ালেই অভিযুক্ত পুলিশ অফিসারের অপসারণের দাবি-সহ একাধিক বিষয়ে পোস্টারও সাঁটিয়ে দেওয়া হয়। যদিও পুলিশের তরফে পাল্টা সুমন্তর বিরুদ্ধেই পুলিশকে মারধর ও সরকারি কাজে বাধা দেওয়ার একাধিক অভিযোগ আনা হয়েছে।

আরও পড়ুন: লজ্জার কলকাতা, চোর সন্দেহে যুবকের বুকে পা সিভিক ভলান্টিয়ারের! গোটা দেশে ঘুরছে এই দৃশ্য

আরও পড়ুন: এত অমানবিক! কলকাতার সিভিক ভলান্টিয়ারের কুকর্ম গোটা দেশে নিন্দিত, দেখুন...

জেলা পুলিশ সুপার অভিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, কালীপুজোর দিন রাতে নুঙ্গি স্টেশন বাজারে একটি অশান্তির খবর পেয়ে পুলিশ সেখানে পৌঁছায়। তারপর সেখানে পুলিশের ওপর চড়াও হয় কিছু মানুষ। শারীরিকভাবে নিগ্রহ করা হয় পুলিশকে। যদিও মহেশতলা থানার সাব-ইন্সপেক্টরের বেধড়ক মারেই সুমন্ত বেরা আক্রান্ত হওয়ার অভিযোগ প্রসঙ্গে পুলিশ সুপার বলেন, 'অভিযোগ পেয়েছি। সব দিক খতিয়ে দেখা হচ্ছে'। যদিও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন সুমন্ত বেরার পরিবারের তরফে পুলিশকে মারধর করার কথা অস্বীকার করা হয়েছে। আক্রান্তের দাদা সুকান্ত বেরার কথায়, 'পুলিশ নিজের দোষ ঢাকতেই মিথ্যা মামলা সাজাচ্ছে। প্রয়োজনে আমার ভাইয়ের ওপর পুলিশ যেভাবে অকথ্য অত্যাচার চালিয়েছে সে ব্যাপারে আদালতের দ্বারস্থ হব।'

Published by:Raima Chakraborty
First published: