তাপস পালের মৃত্যুতে শোকাহত বিজেপির অনুপম, জানালেন বহু অজানা কথা

তাপস পালের মৃত্যুতে শোকাহত বিজেপির অনুপম, জানালেন বহু অজানা কথা
  • Share this:

#কলকাতা: আদায়-কাঁচকলায় রাজনৈতিক মতাদর্শ। কিন্ত তাপস পালের মৃত্যুর পরে বিজেপি নেতা অনুপম হাজরার গলাও কথা বলতে বলতে ধরে আসছিল। বারবারই বলছিলেন, "রাজনৈতিক মতাদর্শ আলাদা হতে পারে। কিন্তু আমার সঙ্গে সম্পর্ক খুবই ভাল ছিল। মানতেই পারছি না এত তাড়াতাড়ি উনি চলে গেলেন!!"

মৃত্যুর খবর পাওয়ার পরেই ফেসবুকে দীর্ঘ পোস্ট করে তাপস পালের সঙ্গে ব্যক্তিগত সম্পর্কের কথা জানান তিনি। তার সঙ্গে জুড়ে দেন পার্লামেন্টের সেন্ট্রাল হলে তোলা একটা অন্তরঙ্গ মুহূর্তের রঙিন ছবি। পোস্টে অনুপম লেখেন, "তৃণমূলের নেতা হিসেবে, হয়তো তোমার একটা উক্তির জন্য তুমি আজও সমালোচিত। কিন্তু অভিনেতা হিসেবে তুমি ছিলে অনন্য। তুমি একটা উক্তি করে সবার কাছে খারাপ, অথচ ধর্ষণ আর মানুষ খুন করেও বহাল তবিয়তে তৃণমূলের বহু নেতা আজও দিদিমনির স্নেহের পাত্র !!! অথচ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পাশে দাঁড়িয়ে পশ্চিম বাংলায় সম্ভবত তুমিই প্রথম দেখিয়েছিলে অভিনেতা থেকে নেতা হওয়া যায় !!! কিন্তু শেষের দিকে তৃণমূলের হঠাৎ করে দলের মধ্যেই তোমাকে অচেনা করে দেওয়া (যেহেতু তখন তৃণমূলের তোমাকে ব্যবহার করা শেষ), ছিল তোমার অবসাদে চলে যাওয়ার অন্যতম কারণ। সেটা কেউ না জানলেও আমি অন্তত কিছুটা জানি। পার্লামেন্টের সেন্ট্রাল হলে একসঙ্গে আড্ডা দেওয়ার দিনগুলো খুব মনে পড়ছে। মানতেই পারছি না তুমি চলে গেলে!!!"

এরপরই অনুপমের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, তাপস পালের সঙ্গে সম্পর্ক দীর্ঘদিনের। আগে দেখা হলেই নানা বিষয়ে কথা হত। কিন্তু বেশ কিছুদিন ধরে মানসিক অবসাদে ভুগছিলেন। শেষ কয়েকবার দেখা হলেও কেমন যেন চুপ করে থাকতেন। নিজেকে একেবারে গুটিয়ে নিয়েছিলেন। অনুপম বলেন, "তাপস দা বারবার বলত, সিপিএমের হার্মাদদের উপর রাগ করে, আবেগপ্রবণ হয়ে কথাগুলো বলে ফেলেছি। বলার পরে অনুভব করেছি, সেগুলো বলা আমার ঠিক হয়নি। দিদি আশা করি আর একটা সুযোগ দেবেন সাংসদ হিসাবে প্রতিনিধিত্ব করার। আমি তো আর মানুষ খুন করিনি।"

প্রসঙ্গত, মুম্বইয়ের একটি বেসরকারী হাসপাতালে মঙ্গলবার ভোররাতে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন অভিনেতা তাপস পাল। মৃত্যুকালে বয়স হয়েছিল ৬১। ১ ফেব্রুয়ারি বান্দ্রার হাসপাতালে ভরতি হওয়ার পর থেকেই তিনি ভেন্টিলেশনে ছিলেন। ৬ ফেব্রুয়ারি ভেন্টিলেশন থেকে বের করা হয়। পয়লা ফেব্রুয়ারি মেয়ে সোহিনী পালের কাছে, মার্কিং যুক্তরাষ্ট্রে যাওয়ার কথা ছিল। বিমান ধরার আগেই বুকে ব্যাথা অনুভব করেন। ভর্তি করা হয় হাসপাতালে। তারপর থেকে রাখা হয়েছিল ভেন্টিলেশনে। মাঝে চিকিত্সায় সামান্য সাড়া দিলেও সোমবার থেকে অবস্থার অবনতি শুরু হয়। মঙ্গলবার রাত ৩টে ৩৬ মিনিটে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন।

First published: February 18, 2020, 11:51 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर