• হোম
  • »
  • খবর
  • »
  • IPL
  • »
  • KANE WILLIAMSON BRILLIANT 66 IN VAIN AS DELHI CAPITALS WINS THE MATCH IN SUPER OVER RRC

SRH vs DC: সুপার ওভারে সুপারহিট দিল্লি

SRH vs DC: সুপার ওভারে সুপারহিট দিল্লি

সুপার ওভারে জিতল দিল্লি

সুপার ওভারে দিল্লির হয়ে ব্যাট করতে নামেন শিখর এবং পন্থ। চার নম্বর বলে বাউন্ডারি মারলেন পন্থ। রিভার্স সুইপ করে। পরের দুটো বল রশিদ দুর্দান্ত করলেও দিল্লির জয় আটকাতে পারল না সানরাইজার্স

  • Share this:

    দিল্লি জয়ী সুপার ওভারে

    #চেন্নাই: দিল্লির তোলা ১৫৯ রান তাড়া করা খুব সহজ হবে না সানরাইজার্স হায়দরাবাদের কাছে সেটা জানা ছিল। চেন্নাইয়ের মন্থর উইকেট দ্বিতীয়ার্ধে আরও মন্থর হয়ে যাবে সেটা বোঝার জন্য ক্রিকেট বিশেষজ্ঞ হওয়ার দরকার ছিল না। ডেভিড ওয়ার্নার রান আউট হয়ে গেলেন ৬ রান করে। জনি বেয়ারস্টো লড়াই চালিয়ে গেলেন। আবেশ খান, রাবাডাদের বিরুদ্ধে নিজের স্বাভাবিক আক্রমনাত্মক ব্যাটিং বজায় রাখলেন। ১৮ বলে ৩৮ রানের ইনিংসে মারলেন চারটে বিশাল ছক্কা। কিন্তু আবেশ খানের বলে মারতে গিয়ে ধরা পড়লেন ধাওয়ানের হাতে। ইংলিশ ব্যাটসম্যান আউট হওয়ার পর রান তোলার গতি অনেকটা থেমে গেল।

    মিডল অর্ডারে বিরাট সিং এবং অভিজ্ঞ কেদার যাদব ব্যর্থ। অমিত মিশ্র ফিরিয়ে দিলেন কেদারকে। সানরাইজার্স চাপে পড়ে গেল এরপর। কিন্তু উইকেটে যতক্ষণ কেন উইলিয়ামসন ছিলেন ততক্ষণ আশা ছিল কমলা ব্রিগেডের। ঠান্ডা মাথার উইলিয়ামসন চুপচাপ নিজের কাজটা করে যাচ্ছিলেন। খারাপ বলগুলো মাঠের বাইরে পাঠানোর পাশাপাশি এক এবং দুই রান নিয়ে স্কোরবোর্ড চালু রেখেছিলেন। যতটা সম্ভব টানার চেষ্টা করছিলেন। নিজের অর্ধশতরান পূর্ণ করলেন। কিন্তু অভিশেক শর্মা সমর্থন করতে পারলেন না উইলিয়ামসনকে। অশ্বিনের বলে এলবি হয়ে ফিরে গেলেন মাত্র পাঁচ করে।

    পরের ওভারেই রশিদ খান এলবি হলেন অক্ষরের বলে রিভার্স সুইপ করতে গিয়ে। করোনা সারিয়ে মাঠে নেমে দুরন্ত বল করলেন অক্ষর। ঘূর্ণি উইকেটে তাঁকে খেলতে গিয়ে চাপে পড়ল সানরাইজার্স ব্যাটসম্যানরা। পেলেন দুটি উইকেট। উইলিয়ামসন অঙ্ক কষে এগোলেন। অমিত মিশ্রকে শেষ ওভারে আক্রমণ করলেন। কারণ তিনি জানতেন দলকে জেতাতে হলে এই ওভারে যত সম্ভব রান তুলতে হবে। উল্টোদিকে বিজয় শঙ্করের কাজ ছিল এক রান নিয়ে উইলিয়ামসনকে ছেড়ে দেওয়া। কিন্তু ব্যর্থ বিজয়। মাত্র ৮ রান করে আবেশ খানের বলে প্লেড অন হলেন।

    এরপর ম্যাচ বাঁচানো সম্ভব ছিল না কমলা ব্রিগেডের পক্ষে। কিন্তু সূচিত দুটি বাউন্ডারি মেরে স্বপ্ন দেখাতে শুরু করেছিলেন সানরাইজার্স দলকে। শেষ ওভারে প্রয়োজন ছিল ১৬ রান। রাবাডা বল হাতে থাকলে কাজটা অসম্ভব। উইলিয়ামসন বাউন্ডারি মেরে চাপ বাড়িয়ে দিলেন দক্ষিণ আফ্রিকান পেসারের। এরপর সকলকে চমকে দিয়ে সূচিত লং অনের ওপর দিয়ে ছক্কা হাঁকালেন। শেষ ১ বলে ২ রান প্রয়োজন ছিল। ম্যাচ ড্র হওয়ায় গড়াল সুপার ওভারে। ওয়ার্নার এবং উইলিয়ামসন মিলে মাত্র ৭ রান তুললেন। বুদ্ধি করে বল করলেন অক্ষর। সানরাইজার্স হায়দরাবাদের হয়ে বল করতে এলেন রশিদ খান। দিল্লির হয়ে ব্যাট করতে নামেন শিখর এবং পন্থ। চার নম্বর বলে বাউন্ডারি মারলেন পন্থ। রিভার্স সুইপ করে। পরের দুটো বল রশিদ দুর্দান্ত করলেও দিল্লির জয় আটকাতে পারল না সানরাইজার্স।

    Published by:Rohan Chowdhury
    First published: