হাফিজকে গ্রেফতার সম্ভব হয়েছে গত দু’বছর ধরে তিনি চাপ দেওয়াতেই, দাবি ট্রাম্পের

হাফিজকে গ্রেফতার সম্ভব হয়েছে গত দু’বছর ধরে তিনি চাপ দেওয়াতেই, দাবি ট্রাম্পের
  • Share this:

#নয়াদিল্লি: হাফিজ সইদের গ্রেফতারিকে গুরুত্ব দিতে চাইছে না কেন্দ্র। তাদের আশঙ্কা, কয়েকদিনের মধ্যেই জামিন পেয়ে বহাল তবিয়তে কাজ চালাবেন কুখ্যাত জঙ্গি নেতা। হাফিজ সইদের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নিতেই হবে। এই দাবিতে ইসলামাবাদের ওপর চাপ বাড়াচ্ছে নয়াদিল্লি।

টেরর কভারিং প্রাকটিস - কূটনৈতিক ক্ষেত্রে আজকাল প্রায়ই ব্যবহার করা হয় এই কথাটি। বিশেষত, পাকিস্তানের ক্ষেত্রে। হাফিজ সইদের গ্রেফতারিও আরও এক টেরর কভারিং প্রাকটিস। এব্যাপারে সন্দেহের অবকাশ দেখছে না মোদি সরকার।

এদিকে হাফিজের গ্রেফতারির কৃতিত্ব নিয়ে ট্যুইটে ডোনাল্ড ট্রাম্প লেখেন, '১০ বছর তল্লাশি চালানোর পর মুম্বই হামলার মাস্টারমাইন্ডকে গ্রেফতার করল পাকিস্তান। তাঁর খোঁজে গত দু’বছরে প্রবল চাপ সৃষ্টি করা হয়েছিল।'

কৌশলগত কারণেই হাফিজ সইদের লোকদেখানো গ্রেফতারি বলে দাবি কেন্দ্রের। আর তাই এনিয়ে পাক প্রশাসনকেই কাঠগড়ায় তুলছে মোদি সরকার।

হাফিজের গ্রেফতারি নিয়ে উঠে এসেছে চাঞ্চল্যকর তথ্য

সন্ত্রাসে অর্থ যোগানের অভিযোগ আনা হয়েছে পঞ্জাব প্রভিন্সিয়াল অ্যান্টি টেররিস্ট অ্যাক্টে (প্যাট) গ্রেফতারি হাফিজ সইদ দুই সন্দেহভাজনকে অনলাইনে টাকা পাঠান বলে অভিযোগ সরাসরি সন্ত্রাসে জড়িত থাকার অভিযোগ আনা হয়নি এই ধারায় সবোর্চ্চ ৬ মাস জেলে থাকতে হবে

লস্কর-ই-তৈবার মাস্টারমাইন্ড। যে সংগঠনের ছাতার তলায় কাজ করে শতাধিক জঙ্গি সংগঠন, সেই হাফিজ সইদের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসে জড়িতথাকার অভিযোগ বা প্রমাণ কোনটাই মেলেনি। তাই অন্যবারের মতো এবারও হাফিজ সইদের জেল থেকে ছাড়া পাওয়া স্রেফ সময়ের অপেক্ষা।অভিযোগ ও ধারা খতিয়ে দেখার পর তা অনেকটাই স্পষ্ট। তাই হাফিজ সইদ নিয়ে চাপ আলগা করছে না নয়াদিল্লি।

First published: July 19, 2019, 8:07 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर