UN General Assembly : আরও পাঁচ বছর জাতিসংঘের মহাসচিব গুতেরেজ

আবার গুরুদায়িত্বে গুতেরেজ

মহাসচিব পদে টানা দ্বিতীয় মেয়াদে দায়িত্ব গ্রহণের পর তিনি বিশ্বজুড়ে চলমান কোভিড–১৯ মহামারি থেকে প্রাপ্ত শিক্ষা কাজে লাগানোর প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। ২০২২ থেকে ২০২৬ সাল পর্যন্ত জাতিসংঘের শীর্ষ পদে দায়িত্ব পালন করবেন তিনি।

  • Share this:

    #নিউইয়র্ক: ঠান্ডা মাথা, প্রগাঢ় জ্ঞান এবং প্রচুর অভিজ্ঞতার জন্য এমনই শ্রদ্ধার চোখে দেখা হয় তাঁকে। যখন যে দায়িত্ব গ্রহণ করেছেন, শতকরা ১০০ ভাগ পূর্ণ করার চেষ্টা করেছেন। তাঁর ট্র্যাক রেকর্ড কথা বলে। ফের জাতিসংঘের মহাসচিব হিসেবে শপথ নিয়েছেন আন্তোনিও গুতেরেস। শুক্রবার মহাসচিব পদে টানা দ্বিতীয় মেয়াদে দায়িত্ব গ্রহণের পর তিনি বিশ্বজুড়ে চলমান কোভিড–১৯ মহামারি থেকে প্রাপ্ত শিক্ষা কাজে লাগানোর প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। ২০২২ থেকে ২০২৬ সাল পর্যন্ত জাতিসংঘের শীর্ষ পদে দায়িত্ব পালন করবেন তিনি।

    নিউইয়র্কে জাতিসংঘের সদর দপ্তরে শপথ গ্রহণের পর সংবাদ সম্মেলনে আন্তোনিও গুতেরেস (৭২) বলেন, ‘আমাদের সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ, আমাদের সামনে বড় একটি সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে, এই সমস্যাকে (করোনা মহামারি) বদলে দিয়ে এমন একটি বিশ্ব তৈরি করা, যা থেকে শিক্ষা গ্রহণ করা যেতে পারে।’ তিনি আরও বলেন, বৈশ্বিক সমস্যা সমাধানে কার্যকর আন্তর্জাতিক সহযোগিতার মাধ্যমে বিশ্বের সবুজ ও টেকসই উন্নয়নের অগ্রযাত্রা এগিয়ে নিতে কাজ করবেন। ১৯৯৫ থেকে ২০০২ সাল পর্যন্ত পর্তুগালের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন আন্তোনিও গুতেরেস।

    ২০১৬ সালে পাঁচ বছরের জন্য জাতিসংঘের মহাসচিব মনোনীত হন তিনি। দায়িত্ব নেন পরের বছরের ১ জানুয়ারি। বান কি মুনের পর ২০১৭ সাল থেকে জাতিসংঘের মহাসচিবের দায়িত্ব পালন করে আসছেন অ্যান্তোনিও গুতেরেস। এছাড়া ২০০৫ থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত জাতিসংঘের শরণার্থী সংস্থার প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন উল্লেখ্য, রাষ্ট্রসংঘের মহাসচিব পদের দৌড়ে নাম শোনা গিয়েছিল ভারতীয় বংশোদ্ভূত অরোরা আকাঙ্ক্ষা (Arora Akanksha )। ৩৪ বছরের অরোরা বর্তমানে রাষ্ট্রসংঘের ডেভলপমেন্ট প্রোগ্রামের অডিট কো অর্ডিনেটর।

    তবে আন্তোনিও গুতেরেসের চেয়ারের জন্য তাঁর লড়াই আপাতত শেষ। রাষ্ট্রসংঘের (United Nations) ৭৫ বছরের ইতিহাসে মহাসচিবের পদে বসেননি কোনও মহিলা। সোশ্যালিস্ট ইন্টারন্যাশনালের সভাপতি হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন গুতেরেজ। পরিষ্কার জানিয়ে দিয়েছেন প্যানডেমিক থেকে মুক্তি, জলবায়ু পরিবর্তন এবং দারিদ্র্য দূরীকরণের বিরুদ্ধে কাজে জোর দেবেন তিনি।

    Published by:Rohan Chowdhury
    First published: