Home /News /international /
Mary Akrami: ‘পাকিস্তান মদত দিচ্ছে তালিবানদের, কিন্তু রাষ্ট্রসঙ্ঘ নীরব’, আফগান সমাজকর্মীর এক্সক্লুসিভ সাক্ষাৎকার

Mary Akrami: ‘পাকিস্তান মদত দিচ্ছে তালিবানদের, কিন্তু রাষ্ট্রসঙ্ঘ নীরব’, আফগান সমাজকর্মীর এক্সক্লুসিভ সাক্ষাৎকার

মেরি আকরামি, নিজস্ব ছবি

মেরি আকরামি, নিজস্ব ছবি

যুদ্ধদীর্ণ এবং তালিবানধস্ত আফগানিস্তানে মেয়েদের জন্য নিরলস কাজ করে যাওয়া মেরি আকরামির এক্সক্লুসিভ সাক্ষাৎকার ৷ নিলেন সিএনএন নিউজ ১৮-এর সাংবাদিক কমলিকা সেনগুপ্ত ৷

  • Share this:

আফগান নারীদের দক্ষতা উন্নয়ন কেন্দ্রের অধিকর্তা মেরি আকরামি ৷ ২০০১ বন সম্মেলনে তিনি ছিলেন আফগান নাগরিক সমাজের মুখ ৷ দোহায় তালিবানদের সঙ্গে শান্তি আলোচনার জন্য আফগানিস্তানের প্রাথমিক প্রতিনিধিদলের সদস্য ৷ ২০০৩ সালে আফগান উইমেন্স স্কিল ডেভলপমেন্ট সেন্টার কাবুলে মেয়েদের জন্য শুরু করে প্রথম আশ্রয়শিবির ৷ যুদ্ধদীর্ণ এবং তালিবানধস্ত আফগানিস্তানে মেয়েদের জন্য নিরলস কাজ করে যাওয়া মেরি আকরামির (Mary Akrami) এক্সক্লুসিভ সাক্ষাৎকার ৷ নিলেন সিএনএন নিউজ ১৮-এর (CNN NEWS18) সাংবাদিক  কমলিকা সেনগুপ্ত  (Kamalika Sengupta)৷

আফগানিস্তানের পরিস্থিতি এখন ঠিক কীরকম?

খুবই অনিশ্চিত পরিস্থিতি ৷ আমরা সত্যি জানি না, এই অবস্থা কেন হল ৷ কেউ জানেন না কেন এরকম পরিস্থিতি আবার ফিরে এল ৷ আমরা কিন্তু এর অপেক্ষায় ছিলাম না ৷ যুদ্ধ যদি চলতেই থাকে, আমরা সত্যি জানি না ভবিষ্যতে আমাদের জন্য কী অপেক্ষা করে আছে ৷ এই উদ্বেগজনক পরিস্থিতিতে আমাদের কথা কেউ জিজ্ঞাসা করছে না ৷ আমাদের সমস্যার প্রসঙ্গ কেউ তুলে ধরছে না ৷ পাকিস্তান মদত দিচ্ছে তালিবানদের, বাকিরা সকলে নিশ্চুপ ৷ কেন কেউ অগ্রসর হচ্ছেন না? আমাদের সমস্যা নিয়ে তো রাষ্ট্রসঙ্ঘ সম্পূর্ণ নীরব ৷ কেন?

বলা হয়, মেয়েদের জন্য আফগানিস্তান কঠিন জায়গা ৷ এখন সেখানে মেয়েদের অবস্থা ঠিক কীরকম?

যে অঞ্চলগুলি তালিবানরা দখল করেছে, সেখানে তারা মেয়েদের বাড়ি থেকে বার হতে দিচ্ছে না ৷ আমাদের পক্ষেও সেই মেয়েদের কাছে পৌঁছে তাঁদের রক্ষা করা কষ্টসাধ্য হয়ে দাঁড়িয়েছে ৷ খবর পাচ্ছি, অধিকৃত এলাকায় তারা ১৮ থেকে ৪৫ বছর বয়সি মহিলাদের তালিকা তৈরি করছে ৷ কন্দকশ এবং বদাখশন এলাকায় মেয়েদের তারা সম্পূর্ণ গৃহবন্দি করে রেখেছে ৷ সেইসব বন্দিনীদের কাছে আমরাও পৌঁছতে পারছি না ৷ মহিলাদের তালিবানদের হাতে শিকার হতে দেওয়া যায় না ৷ তালিবানদের শ্রদ্ধা থাকতে হবে মহিলাদের প্রতি ৷ অন্তত দেশের নাগরিক হিসেবে এই সম্মানটুকু প্রাপ্য মহিলাদের ৷ হিংসা কমাতে হবে ৷ আন্তর্জাতিক মহলের কাছে আমার আবেদন, দয়া করে আমাদের জন্য কিছু করুন ৷

চিত্রসাংবাদিক দানিশ সিদ্দিকি নিহত হলেন ৷ বাকি সাংবাদিকদের জীবনও কি আফগানিস্তানে ঝুঁকিপূর্ণ? আফগান সংবাদমাধ্যম কী বলছে?

দানিশের (Danish Siddique) সঙ্গে যা হয়েছে, সেটা খুবই দুঃখজনক ৷ তালিবানদের এটা বোঝা প্রয়োজন যে সংবাদমাধ্যমের কর্মীদের তাদের শ্রদ্ধা করতে হবে ৷ তালিবানরা মানবতা-বিরোধী ৷ দানিশের মৃত্যুতে আমরা মর্মাহত ৷ এর শেষ কোথায়? সংবাদমাধ্যমও এখানে দুঃসহ পরিস্থিতিতে রয়েছে ৷

শোনা যাচ্ছে আফগানিস্তানের সিংহভাগই এখন তালিবানদের দখলে ৷ এটা কি সত্যি?

 আফগানিস্তানে মোট ৩৪ টি প্রদেশ আছে ৷ আমার মনে হয় না এটা সম্পূর্ণ সত্যি যে তার সিংহভাগ অধিকার করে নিয়েছে তালিবানরা ৷ তবে এটা নিশ্চিত যে তারা তাদের উপস্থিতি আরও দৃঢ় করার চেষ্টা চালাচ্ছে ৷ তালিবান আগ্রাসন আফগানিস্তানে বাস্তব ৷ তাদের নিয়ে যে কেউ কথা বলছে না, তাতেই আরও মাথাচাড়া দিচ্ছে তালিবানরা ৷

আর কতদিন চলবে এই পরিস্থিতি? আপনার কি মনে হয়, এই অবস্থা সত্যি কোনওদিন পাল্টাবে?

 যথেষ্ট হয়েছে! যদি সত্যি সবকিছু ঠিকঠাক না হয়, তাহলে পরিস্থিতি হাতের বাইরে চলে যাবে ৷ তাই এটাই প্রকৃত সময় যখন আন্তর্জাতিক মহল আমাদের সাহায্য করতে পারে ৷

Published by:Arpita Roy Chowdhury
First published:

Tags: Afghanistan, Danish Siddique, Mary Akrami, Taliban

পরবর্তী খবর