• Home
  • »
  • News
  • »
  • international
  • »
  • AFGHAN ACTIVIST MARY AKARAMIS EXCLUSIVE INTERVIEW ON THE PRESENT SCENARIO OF TALIBAN AND WAR RAVAGED AFGHANISTAN ARC

Mary Akrami: ‘পাকিস্তান মদত দিচ্ছে তালিবানদের, কিন্তু রাষ্ট্রসঙ্ঘ নীরব’, আফগান সমাজকর্মীর এক্সক্লুসিভ সাক্ষাৎকার

মেরি আকরামি, নিজস্ব ছবি

যুদ্ধদীর্ণ এবং তালিবানধস্ত আফগানিস্তানে মেয়েদের জন্য নিরলস কাজ করে যাওয়া মেরি আকরামির এক্সক্লুসিভ সাক্ষাৎকার ৷ নিলেন সিএনএন নিউজ ১৮-এর সাংবাদিক কমলিকা সেনগুপ্ত ৷

  • Share this:

আফগান নারীদের দক্ষতা উন্নয়ন কেন্দ্রের অধিকর্তা মেরি আকরামি ৷ ২০০১ বন সম্মেলনে তিনি ছিলেন আফগান নাগরিক সমাজের মুখ ৷ দোহায় তালিবানদের সঙ্গে শান্তি আলোচনার জন্য আফগানিস্তানের প্রাথমিক প্রতিনিধিদলের সদস্য ৷ ২০০৩ সালে আফগান উইমেন্স স্কিল ডেভলপমেন্ট সেন্টার কাবুলে মেয়েদের জন্য শুরু করে প্রথম আশ্রয়শিবির ৷ যুদ্ধদীর্ণ এবং তালিবানধস্ত আফগানিস্তানে মেয়েদের জন্য নিরলস কাজ করে যাওয়া মেরি আকরামির (Mary Akrami) এক্সক্লুসিভ সাক্ষাৎকার ৷ নিলেন সিএনএন নিউজ ১৮-এর (CNN NEWS18) সাংবাদিক  কমলিকা সেনগুপ্ত  (Kamalika Sengupta)৷

আফগানিস্তানের পরিস্থিতি এখন ঠিক কীরকম?

খুবই অনিশ্চিত পরিস্থিতি ৷ আমরা সত্যি জানি না, এই অবস্থা কেন হল ৷ কেউ জানেন না কেন এরকম পরিস্থিতি আবার ফিরে এল ৷ আমরা কিন্তু এর অপেক্ষায় ছিলাম না ৷ যুদ্ধ যদি চলতেই থাকে, আমরা সত্যি জানি না ভবিষ্যতে আমাদের জন্য কী অপেক্ষা করে আছে ৷ এই উদ্বেগজনক পরিস্থিতিতে আমাদের কথা কেউ জিজ্ঞাসা করছে না ৷ আমাদের সমস্যার প্রসঙ্গ কেউ তুলে ধরছে না ৷ পাকিস্তান মদত দিচ্ছে তালিবানদের, বাকিরা সকলে নিশ্চুপ ৷ কেন কেউ অগ্রসর হচ্ছেন না? আমাদের সমস্যা নিয়ে তো রাষ্ট্রসঙ্ঘ সম্পূর্ণ নীরব ৷ কেন?

বলা হয়, মেয়েদের জন্য আফগানিস্তান কঠিন জায়গা ৷ এখন সেখানে মেয়েদের অবস্থা ঠিক কীরকম?

যে অঞ্চলগুলি তালিবানরা দখল করেছে, সেখানে তারা মেয়েদের বাড়ি থেকে বার হতে দিচ্ছে না ৷ আমাদের পক্ষেও সেই মেয়েদের কাছে পৌঁছে তাঁদের রক্ষা করা কষ্টসাধ্য হয়ে দাঁড়িয়েছে ৷ খবর পাচ্ছি, অধিকৃত এলাকায় তারা ১৮ থেকে ৪৫ বছর বয়সি মহিলাদের তালিকা তৈরি করছে ৷ কন্দকশ এবং বদাখশন এলাকায় মেয়েদের তারা সম্পূর্ণ গৃহবন্দি করে রেখেছে ৷ সেইসব বন্দিনীদের কাছে আমরাও পৌঁছতে পারছি না ৷ মহিলাদের তালিবানদের হাতে শিকার হতে দেওয়া যায় না ৷ তালিবানদের শ্রদ্ধা থাকতে হবে মহিলাদের প্রতি ৷ অন্তত দেশের নাগরিক হিসেবে এই সম্মানটুকু প্রাপ্য মহিলাদের ৷ হিংসা কমাতে হবে ৷ আন্তর্জাতিক মহলের কাছে আমার আবেদন, দয়া করে আমাদের জন্য কিছু করুন ৷

চিত্রসাংবাদিক দানিশ সিদ্দিকি নিহত হলেন ৷ বাকি সাংবাদিকদের জীবনও কি আফগানিস্তানে ঝুঁকিপূর্ণ? আফগান সংবাদমাধ্যম কী বলছে?

দানিশের (Danish Siddique) সঙ্গে যা হয়েছে, সেটা খুবই দুঃখজনক ৷ তালিবানদের এটা বোঝা প্রয়োজন যে সংবাদমাধ্যমের কর্মীদের তাদের শ্রদ্ধা করতে হবে ৷ তালিবানরা মানবতা-বিরোধী ৷ দানিশের মৃত্যুতে আমরা মর্মাহত ৷ এর শেষ কোথায়? সংবাদমাধ্যমও এখানে দুঃসহ পরিস্থিতিতে রয়েছে ৷

শোনা যাচ্ছে আফগানিস্তানের সিংহভাগই এখন তালিবানদের দখলে ৷ এটা কি সত্যি?

 আফগানিস্তানে মোট ৩৪ টি প্রদেশ আছে ৷ আমার মনে হয় না এটা সম্পূর্ণ সত্যি যে তার সিংহভাগ অধিকার করে নিয়েছে তালিবানরা ৷ তবে এটা নিশ্চিত যে তারা তাদের উপস্থিতি আরও দৃঢ় করার চেষ্টা চালাচ্ছে ৷ তালিবান আগ্রাসন আফগানিস্তানে বাস্তব ৷ তাদের নিয়ে যে কেউ কথা বলছে না, তাতেই আরও মাথাচাড়া দিচ্ছে তালিবানরা ৷

আর কতদিন চলবে এই পরিস্থিতি? আপনার কি মনে হয়, এই অবস্থা সত্যি কোনওদিন পাল্টাবে?

 যথেষ্ট হয়েছে! যদি সত্যি সবকিছু ঠিকঠাক না হয়, তাহলে পরিস্থিতি হাতের বাইরে চলে যাবে ৷ তাই এটাই প্রকৃত সময় যখন আন্তর্জাতিক মহল আমাদের সাহায্য করতে পারে ৷

Published by:Arpita Roy Chowdhury
First published: