corona virus btn
corona virus btn
Loading

সুস্থ হয়ে উঠলেন এইচআইভি আক্রান্ত, বিশ্বের দ্বিতীয় রোগী হিসেবে নজির লন্ডনে

সুস্থ হয়ে উঠলেন এইচআইভি আক্রান্ত, বিশ্বের দ্বিতীয় রোগী হিসেবে নজির লন্ডনে
অ্যাডাম ক্যাস্টিজিলো৷ PHOTO- FACEBOOK

২০১১ সালে টিমোথি ব্রাউন নামে বার্লিনের এক রোগী একই ধরনের চিকিৎসা পদ্ধতির সাহায্যে সম্পূর্ণ সুস্থ হয়ে উঠেছিলেন৷

  • Share this:

#লন্ডন: বিশ্বের দ্বিতীয় ব্যক্তি হিসেবে লন্ডনের এক এইআইভি আক্রান্ত রোগী সম্পূর্ণ সুস্থ হয়ে উঠলেন৷ অ্যাডাম ক্যাস্টিজেলো নামে ওই ব্যক্তির চিকিৎসা পদ্ধতি শেষ হওয়ার প্রায় আড়াই বছর পরেও তাঁর শরীরে নতুন করে এইআইভি সংক্রমণের প্রমাণ মেলেনি৷ এর পরই তাঁকে সম্পূর্ণ সুস্থ বলে দাবি করেছেন চিকিৎসকরা৷ জীবনযুদ্ধে জয়ী হওয়ার পরে এবার নিজেকে 'নতুন আশার দূত' হিসেবে তুলে ধরতে চান অ্য়াডাম৷ সেই কারণেই নিজের পরিচিতি লুকিয়ে না রেখে প্রকাশ্যে তাঁর ফিরে আসার গল্প তুলে ধরতে চাইছেন ওই যুবক৷

চিকিৎসকরা অবশ্য দাবি করেছেন, কোনও ওষুধ নয়৷ বরং স্টেম সেল চিকিৎসা পদ্ধতির সাহায্যেই ওই রোগী সুস্থ হয়ে উঠেছেন৷ কারণ তিনি ক্যান্সারেও আক্রান্ত ছিলেন৷ সেই কারণেই এক সুস্থ ব্যক্তির শরীর থেকে স্টেম সেল নিয়ে তাঁর শরীরে প্রতিস্থাপিত করা হয়৷ আর তা থেকেই ক্যান্সার তো বটেই, অ্যাডামের শরীরে এইআইভি জীবাণু প্রতিরোধ গড়ে তোলার ক্ষমতা তৈরি হয়৷ ফলে এইচআইভি-র চিকিৎসার জন্য অ্যান্টি রেট্রোভাইরাল থেরাপি বন্ধ হওয়ার প্রায় আড়াই বছর পরেও সুস্থ জীবন কাটাচ্ছেন চল্লিশ বছর বয়সি ওই যুবক৷

২০১১ সালে টিমোথি ব্রাউন নামে বার্লিনের এক রোগী একই ধরনের চিকিৎসা পদ্ধতির সাহায্যে সম্পূর্ণ সুস্থ হয়ে উঠেছিলেন৷

কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্যতম শীর্ষ গবেষক রবীন্দ্র কুমার গুপ্ত বলেন, 'এর থেকেই প্রমাণিত হয় যে এইচআইভি-কে নিশ্চিতভাবে সারিয়ে তোলা সম্ভব৷'

চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, স্টেম সেল প্রতিস্থাপন করায় ওই যুবকের শরীরে নতুন প্রতিষেধক কোষ তৈরি হয়৷ যার ফলে তাঁর শরীরে এইআইভি-র জীবাণু নতুন করে সংক্রমণ ছড়াতে পারেনি৷ এর জন্য যে ব্যক্তির স্টেম সেল অ্যাডামকে দেওয়া হয়, তাঁকেই কৃতিত্ব দিচ্ছেন চিকিৎসকরা৷ তাঁরা বলছেন, ওই ব্যক্তির স্টেম সেলে এমন একটি জিন ছিল, যা সচরাচর পাওয়া যায় না৷

তবে চিকিৎসকরা জানাচ্ছেন, এই চিকিৎসা পদ্ধতি অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ৷ ফলে তা বিশ্বের সমস্ত এইচআইভি আক্রান্তের ক্ষেত্রে প্রয়োগ করা সম্ভব নয়৷ একমাত্র অ্যাডামের মতো যে রোগীরা এইআইভি-র সঙ্গে ক্যান্সারের মতো মারণ রোগে আক্রান্ত, তাঁদের ক্ষেত্রে শেষ অস্ত্র হিসেবে এই চিকিৎসা পদ্ধতি প্রয়োগ করা হয়৷ তাছাড়া অন্যান্য রোগীদের ক্ষেত্রে এইচআইভি-র প্রচলিত ওষুধের উপরেই ভরসা রাখছেন চিকিৎসকরা৷ তাঁদের দাবি, সঠিক চিকিৎসা পদ্ধতিতে ওষুধ খেয়েই দীর্ঘ এবং সুস্থ জীবনযাপন করতে পারেন এইচআইভি আক্রান্তরা৷

Published by: Debamoy Ghosh
First published: March 11, 2020, 8:39 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर