Union
Budget 2023

Highlights

হোম /খবর /বিদেশ /
ডেঙ্গি আতঙ্ককেও টেক্কা! মশার কামড় খেয়ে কোমায়! ৩০টি অস্ত্রোপচার ২৭ বছরের তরুণের

ডেঙ্গি আতঙ্ককেও টেক্কা! মশার কামড় খেয়ে কোমায়! ৩০টি অস্ত্রোপচার ২৭ বছরের তরুণের

কোষ পরীক্ষা করে দেখা গিয়েছিল, সেরাটিয়া মার্সেসেন্স নামে একটি ম্যালিগন্যান্ট ব্যাকটেরিয়া তাঁর বা দিকের উরু পর্যন্ত প্রায় অর্ধেক খেয়ে ফেলেছিল।

  • Share this:

#রয়ডেরমার্ক: বাংলা জুড়ে ডেঙ্গির আতঙ্ক। বিভিন্ন জেলায় এই রোগের প্রকোপ বেড়েছে। উদ্বেগে প্রশাসন। এমনই সময়ে শোনা গেল, মশার কামড়ে কোমায় চলে গেলেন এক ব্যক্তি! হল প্রায় ৩০টি অস্ত্রোপচারও। আপাতত যদিও সুস্থ হয়েছেন তিনি।

ঘটনাটি জার্মানির। রয়ডেরমার্কের বাসিন্দা ২৭ বছরের সেবেস্তিয়ান রটস্কে প্রায় মৃত্যুমুখ থেকে ফিরে এসেছিলেন মশার কামড় খেয়ে। মশার এই প্রজাতির নাম এশিয়ান টাইগার। ঘটনাটি ২০২১ সালের। এশিয়ান টাইগার মশার কামড়ে বিভিন্ন জটিল রোগ হতে পারে শরীরে। ইস্টার্ন ইক্যুয়িন এনসেফালাইটিস, ওয়েস্ট নাইল ভাইরাস এবং ডেঙ্গিও।

এই মশার কামড় খেয়ে সেবেস্তিয়ানের দু'পায়ের বুড়ো আঙুল বাদ চলে গিয়েছে। ৩০টি অস্ত্রোপচার হয়েছে তাঁর। এক মাসের জন্য কোমায় ছিলেন এই তরুণ।

আরও পড়ুন: ৯ জন স্ত্রীর মধ্যে ১ জনকে ডিভোর্স, আরও বিয়ে করতে চান এই ব্রাজিলীয় মডেল

জার্মানির এই বাসিন্দার রক্তে বিষক্রিয়ায় হয়ে গিয়েছিল। বেশ কয়েকবার লিভার, কিডনি, হার্ট এবং ফুসফুসের রোগ ধরা পড়েছিল তাঁর। এমনকি সেবাস্তিয়ানকে তার উরুর ত্বক প্রতিস্থাপন করাতে হয়। ফোড়া তুলে ফেলার জন্য।

সেবেস্তিয়ান নিজে এক সংবাদমাধ্যমকে জানান, বলতে গেলে তাঁর বেঁচে থাকার সম্ভাবনা প্রায় ছিলই না। কোষ পরীক্ষা করে দেখা গিয়েছিল, সেরাটিয়া মার্সেসেন্স নামে একটি ম্যালিগন্যান্ট ব্যাকটেরিয়া তাঁর বা দিকের উরু পর্যন্ত প্রায় অর্ধেক খেয়ে ফেলেছিল।

আরও পড়ুন: সমুদ্র তীরে বিভীষিকা! এই ছবি দেখে আঁতকে উঠছেন সকলে

সেবেস্তিয়ান বলেছিলেন, ''আমি দেশের বাইরে যাইনি। ওই মশা তার মানে এখানেই কামড়েছিল। তার পর থেকেই আমি শয্যাশায়ী। জ্বরের ঘোরে খেতে পর্যন্ত পারতাম না। খুব কষ্টে শৌচালয়ে যেতাম। ভেবেছিলাম, এই বোধহয় আমার শেষ ঘনিয়ে আসছে। চিকিৎসকরা খুব তাড়াতাড়ি রোগটি ধরতে পেরেছিলেন। এটা যে এশিয়ান টাইগার মশার কামড়ের কারণেই ঘটেছে, তা বুঝে গিয়েছিলেন তাঁরা।''

রোগ ধরে ফেলার সঙ্গে সঙ্গেই সেবাস্তিয়ানকে ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটে নিয়ে যাওয়া হয়। যেখানে তাঁর চিকিৎসা শুরু হয়। পায়ের আঙুলে অস্ত্রোপচার করে অঙ্গচ্ছেদ করার পরে তিনি ধীরে ধীরে সুস্থ হয়ে ওঠেন।

নিজের ভয়াবহ অভিজ্ঞতার পর সেবেস্তিয়ান সকলকে অনুরোধ করেন সতর্ক থাকার জন্য, তাঁর উপদেশ, এমন কোনও মশার কামড় খেলে অবিলম্বে একজন চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া উচিত।

Published by:Teesta Barman
First published:

Tags: Germany, Mosquito bites