• Home
  • »
  • News
  • »
  • explained
  • »
  • COVESHIELD REDUCES THE CHANCES OF GETTING CORONA AFTER BOTH DOSES BY 93 PERCENT THE RESULT OF THE WORLDS LARGEST STUDY ON THE ARMED FORCES TC SR

Covishield: ৯৩% কার্যকর কোভিশিল্ডের দু’টি ডোজ, বিশ্বের সবচেয়ে বড় গবেষণায় উঠে এল স্বস্তির খবর!

গবেষকরা বলেছেন, অ্যাস্ট্রাজেনেকার (AstraZeneca) কোভিশিল্ড (Covishield) ভ্যাকসিনের দুটি ডোজ নেওয়ার পর ব্রেক থ্রু ইনফেকশন ৯৩ শতাংশ কম হয়েছে।

গবেষকরা বলেছেন, অ্যাস্ট্রাজেনেকার (AstraZeneca) কোভিশিল্ড (Covishield) ভ্যাকসিনের দুটি ডোজ নেওয়ার পর ব্রেক থ্রু ইনফেকশন ৯৩ শতাংশ কম হয়েছে।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: বর্তমান করোনা পরিস্থিতি ভাবিয়ে তুলেছে আপামোর জনসাধারণকে। দেশে করোনা টিকা তৈরি হবার পরেও চিন্তিত বহু মানুষ। করোনা টিকা কতটা নির্ভরযোগ্য সেই নিয়ে অনেকেই সন্দেহ প্রকাশ করেছেন। সম্প্রতি হওয়া গবেষণায় একটু স্বস্তির খবর মিলেছে। করোনা টিকার নির্ভরযোগ্যতা নিয়ে বিশ্বের সব থেকে বড়় গবেষণা হয়েছে। এই গবেষণা করেছে আর্ম ফোর্সেস মেডিকেল কলেজ (AFMC)। দেশের সশস্ত্র বাহিনীর ১৫ লক্ষ ৯০ হাজারের বেশি স্বাস্থ্যসেবা কর্মী (HCW) এবং ফ্রন্টলাইন কর্মীদের (FLW) ওপর এই গবেষণা করা হয়েছে।

গবেষকরা বলেছেন, অ্যাস্ট্রাজেনেকার (AstraZeneca) কোভিশিল্ড (Covishield) ভ্যাকসিনের দুটি ডোজ নেওয়ার পর ব্রেক থ্রু ইনফেকশন ৯৩ শতাংশ কম হয়েছে। গবেষকদের মতে এখনও পর্যন্ত টিকা সংক্রান্ত যতগুলি গবেষণা করা হয়েছে, সেগুলির সবেতেই টিকার পরিমাণ ১০ লক্ষের কম ছিল। কিন্তু, এএফএমসির করা নতুন গবেষণায় ১৫ লক্ষ ৯০ হাজারের বেশি মানুষের ওপর প্রয়োগ করা হয়েছে। গবেষকরা বলেছেন, দেশে কোভিশিল্ডের দুটি টিকা নেওয়া হয়েছে এমন হাজার জনের মধ্যে মাত্র ১৬ জনের করোনা হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। আর বাকিদের জন্য ভয় অনেকটাই কম।

করোনার দ্বিতীয় ঢেউ আছড়ে পড়তেই ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট (Delta Variant) মাথা চাড়া দিয়ে ওঠে। সেই সময়ই এই গবেষণা করা হয়েছিল। যেখানে ৯৫.৪ শতাংশ মানুষ ভ্যাকসিনের ডোজ পেয়ে গিয়েছিল। তাদের মধ্যে বেশিরভাগ মানুষেরই বয়স ছিল ২৮ বছরের মধ্যে। এদের মধ্যে ৯৯ শতাংশ পুরুষরা ছিলেন। এই গবেষণা ১৩৫ দিনের বেশি সময় ধরে চলেছিল। ৩০ মে পর্যন্ত কোভিশিল্ডের একটি ডোজ পেয়েছিল ৯৫ শতাংশ মানুষ এবং ২টি ডোজ পেয়েছিল ৮২.২ শতাংশ মানুষ। এরপর ৩টি ভাগ করা হয়েছিল। যার মধ্যে একটিও টিকা পায়নি এমন মানুষ ছিল (UV), টিকার একটি ডোজ পেয়েছে এমন মানুষ ছিল (PV) এবং দুটি ডোজ পেয়েছে এমন মানুষও ছিল (FP)। সেই অনুযায়ী দেখা যায় যারা একটিও টিক পাননিতাঁদের মধ্যে ১০,০৬১ জন মানুষ করোনা সংক্রমিত হয়। ভ্যাকসিনের একটি ডোজ নিয়েছে এমন ১,১৫৯ জন সংক্রমিত হয়। আর ভ্যাকসিনের দুটি ডোজ নিয়েছে এমন ২,৫১২ জন সংক্রমিত হয়। পুরো প্রক্রিয়া চণ্ডীগড় (Chandigarh) পিজিআইয়ের (PGI) মাধ্যমে করা হয়েছে। এরপর দ্য নিউ ইংল্যান্ড জার্নাল অফ মেডিসিনে (The New England Journal Of Medicine) প্রকাশিত হয়েছে।

নীতি আয়োগের (Niti Aayog) সদস্য ডঃ ভিকে পাল (Dr. V.K. Pal) বলেন, “এই সার্ভে ১৫ লক্ষেরও বেশি চিকিত্সক এবং ফ্রন্ট লাইন কর্মীদের ওপর করা হয়েছে। এদের মধ্যে ব্রেক থ্রু ইনফেকশন ৯৩ শতাংশ কম হয়েছে। তবে টিকা নিলেই যে সংক্রমণ এড়ানো যাবে এমন গ্যারান্টি দেওয়া যাবে না। টিকা নেওয়ার পর প্রত্যেককেই কোভিড বিধি মানতে হবে। এখনো পর্যন্ত করোনার বিরুদ্ধে সম্পূর্ণ গ্যারান্টি দিতে পারে এমন টিকা নেই। তবে কোভিশিল্ড বড় ঝুঁকির থেকে রক্ষা করবে। তাই যত তাড়াতাড়ি সম্ভব টিকা নিয়ে নেওয়াই ভালো।”

সম্প্রতি, ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ মেডিকেল রিসার্চ (Indian Council Of Medical Research) তামিল নাড়ু পুলিশ বিভাগ (Tamil Nadu Police Department), আইসিএমআর (ICMR) ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ এপিডেমিওলজি (National Institute Of Epidemiology) এবং ভেলোরের (Vellore) ক্রিস্টান মেডিকেল কলেজ (Christian Medical College) দ্বারা করা একটি গবেষণা নিয়ে বলেছে, যে ভ্যাকসিনের একটি মাত্র ডোজ ৮২ শতাংশ কার্যকর। দুটি ডোজ ৯৫ শতাংশ কার্যকর।

Published by:Simli Raha
First published: