Home /News /explained /
Bharat Drone Mahotsav 2022: দেশের সবথেকে বড় ড্রোন মহোৎসব চলছে! জানুন ড্রোন ওড়ানোর নিয়মের সাতসতেরো!

Bharat Drone Mahotsav 2022: দেশের সবথেকে বড় ড্রোন মহোৎসব চলছে! জানুন ড্রোন ওড়ানোর নিয়মের সাতসতেরো!

Bharat Drone Mahotsav 2022: শুক্রবার দেশের সবথেকে বড় এই অনুষ্ঠানটির উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির (Prime Minister Narendra Modi) উপস্থিতিতে শুক্রবার দিল্লির প্রগতি ময়দানে ভারতের বৃহত্তম ড্রোন মহোৎসবের সূচনা হল। 'ভারত ড্রোন মহোৎসব ২০২২' নামে দু’দিন ব্যাপী এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে ২৭ মে এবং ২৮ মে।শুক্রবার দেশের সবথেকে বড় এই অনুষ্ঠানটির উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। প্রধানমন্ত্রীর পাশাপাশি এই উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন অসামরিক বিমান পরিবহণ মন্ত্রী জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া (Jyotiraditya Scindia), কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী মনসুখ মান্ডব্য় (Mansukh Mandaviya), রেলমন্ত্রী অশ্বিনী বৈষ্ণো (Ashwini Vaishnaw), পরিবেশ মন্ত্রী ভূপেন্দ্র যাদব (Bhupender Yadav) এবং গ্রামীণ উন্নয়ন মন্ত্রী গিরিরাজ সিং (Giriraj Singh)।

দিল্লিতে ভারতের সবচেয়ে বড় ড্রোন উৎসবের উদ্বোধনের পর নিজের বক্তব্য রাখেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। তিনি বলেন, “এমন একটা সময়ে যখন আমরা আজাদির অমৃত মহোৎসব উদযাপন করছি, সেই সময়ে দাঁড়িয়ে এটা আমার স্বপ্ন যে, ভারতের প্রত্যেকটা নাগরিকের হাতে স্মার্টফোন থাকুক। সেই সঙ্গে দেশের প্রতিটি জায়গায় যেন ড্রোন এবং এবং দেশের প্রতিটি বাড়িতে যেন সমৃদ্ধি থাকে।”

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় কর্তৃক পাওয়া খবর অনুসারে, সরকারি কর্মকর্তা, সশস্ত্র বাহিনী, কেন্দ্রীয় সশস্ত্র পুলিশ বাহিনী, পাবলিক সেক্টর ইউনিট (পিএসইউ), বিদেশি কূটনীতিক সংস্থা, বেসরকারি কোম্পানি এবং ড্রোন স্টার্টআপ কোম্পানি সহ ১৬০০টিরও বেশি প্রতিনিধি সংস্থা এই মহোৎসবে অংশ নেবেন। পিএমও উল্লেখ করেছে যে, ৭০টিরও বেশি প্রদর্শক ড্রোন উৎসবে ড্রোনের বিভিন্ন ব্যবহারের পন্থা প্রদর্শন করবে। এছাড়াও ড্রোন পাইলট শংসাপত্র, প্যানেল আলোচনা, প্রোডাক্ট লঞ্চ, 'মেড ইন ইন্ডিয়া' ড্রোন ট্যাক্সি প্রোটোটাইপের একটি প্রদর্শনও হওয়ার কথা রয়েছে। উড়ন্ত ড্রোনের একটি ভার্চুয়াল পুরস্কারেরও ঘোষণা করা হবে।

এবার জেনে নেওয়া যাক ড্রোন সম্পর্কিত কিছু গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নের উত্তর:

ভারতে কী ধরনের ড্রোন চালানো যাবে?

আমাদের দেশে মূলত পাঁচটি ভিন্ন ভিন্ন ক্যাটাগরির ড্রোন রয়েছে। ন্যানো ড্রোন (২৫০ গ্রামের কম বা সমান); মাইক্রো ড্রোন (২৫০ গ্রামের বেশি এবং ২ কেজির কম বা সমান); ছোট আকারের ড্রোন (২ কেজির বেশি এবং ২৫ কেজির কম বা সমান); মাঝারি আকারের ড্রোন (২৫ কেজির বেশি এবং ১৫০ কেজির কম বা সমান) এবং বড় আকারের ড্রোন (১৫০ কেজির বেশি)।

ভারতে ড্রোন ওড়াতে আমাদের ঠিক কী ধরনের অনুমতি লাগবে?

আমাদের দেশে 'অফিসিয়াল' ড্রোন সাইট বলতে বোঝায় ডিজিটাল স্কাই, যার একটি ইন্টারেক্টিভ এয়ারস্পেস ম্যাপ রয়েছে। এর মানচিত্রটিতে সবুজ, হলুদ এবং লাল ইত্যাদি বিভিন্ন রঙ দ্বারা অঞ্চল ভাগ করা রয়েছে — নো-ফ্লাই জোন বা অঞ্চলগুলি এখানে চিহ্নিত করা রয়েছে, যেখানে আমরা অনায়াসে ড্রোন চালাতে পারব। গ্রিন জোনে ড্রোন চালানোর জন্য আমাদের কোনও প্রকারের অনুমতির প্রয়োজন নেই।

যে কোনও মানুষ কি ড্রোন ওড়াতে পারবেন?

আমাদের যদি ন্যানো ড্রোন থাকে, যার ওজন ২৫০ গ্রামের কম, তাহলে আমাদের কোনও ইউআইএন (UIN)-এর প্রয়োজন হবে না। মাইক্রো ড্রোনের জন্য আমাদের কোনও দূরবর্তী পাইলট লাইসেন্সের প্রয়োজন নেই। তবে অন্যান্য সমস্ত বিভাগের ড্রোনের জন্য UIN-এর মতো নির্দিষ্ট অনুমতির প্রয়োজন রয়েছে।

আরও পড়ুন: জন্মদিনে কাজলকে জড়িয়ে করণ জোহরের রোমান্টিক নাচ! ফাঁস ভিডিও

ড্রোন ওড়ানোর জন্য ইউআইএন-এর প্রয়োজনীয়তা কী?

ইউআইএন-এর (UIN) অর্থ হল ‘ইউনিক আইডেন্টিফিকেশন নম্বর’ এবং এটি ভারতে একটি মানববিহীন এয়ারক্রাফট সিস্টেম রেজিস্ট্রেশনের জন্য জারি করা হয়। অন্য ভাবে বলা যায় যে, প্রতিটি UAS বা ড্রোনের এক একটি ইউনিক নম্বর রয়েছে, যা ছাড়া আমরা ড্রোন পরিচালনা করতে পারব না।

একটি UIN পাওয়ার জন্য় কত খরচ হয়?

একটি UIN পাওয়ার জন্য আমাদের প্রায় ১০০ টাকা খরচ করতে হবে।

ড্রোনের রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়া বা অনুমোদন প্রক্রিয়া কতটা জটিল?

আগে সাধারণ ভাবে ড্রোনের রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়া সমস্যা সাপেক্ষ বিষয় ছিল। কিন্তু ২০২১ সালের নভেম্বর মাসের পর থেকে সরকারি সহায়তায় এই পদ্ধতি অনেকটাই সহজ হয়ে গিয়েছে। ডিজিটাল স্কাই পোর্টালে অনুমোদন, সার্টিফিকেশন সংক্রান্ত সমস্ত তথ্য রয়েছে এবং অনলাইনেই এই কাজটি করা যেতে পারে।

কীভাবে এবং কোথায় আমরা ড্রোন পাইলটের প্রশিক্ষণ নিতে পারব?

কেউ যদি ড্রোন পাইলটের কাজ শিখতে চান, তাহলে তাঁদের কোনও প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের সাহায্য নিতে হবে। সে ক্ষেত্রে ডিরেক্টরেট জেনারেল অফ সিভিল এভিয়েশন (Directorate General of Civil Aviation) দ্বারা অনুমোদিত কোনও কেন্দ্র থেকে সাহায্য নেওয়া যেতে পারে। ড্রোন পাইলট হওয়ার প্রশিক্ষণ নেওয়ার আগে সাধারণত ১,০০০ টাকা আবেদন ফি জমা দিয়ে নির্দিষ্ট ফর্ম পূরণ করতে হয়।

Published by:Piya Banerjee
First published:

Tags: Bharat Drone Mahotsav 2022, Narendra Modi

পরবর্তী খবর