বিয়ের পরের দিনই শাঁখা-পলা-নোয়া কেন খুলে ফেলেছেন! ট্রোলড হলেন অভিনেত্রী ত্বরিতা

ত্বরিতার সাজ-পোশাক নিয়ে নানারকম বিরূপ মন্তব্য ধেয়ে আসে তাঁর দিকে । এই ঘটনায় যথেষ্টই বিরক্ত হন অভিনেত্রী । পরে সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি পোস্ট করে বিষোদ্গার করেন ত্বরিতা ।

ত্বরিতার সাজ-পোশাক নিয়ে নানারকম বিরূপ মন্তব্য ধেয়ে আসে তাঁর দিকে । এই ঘটনায় যথেষ্টই বিরক্ত হন অভিনেত্রী । পরে সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি পোস্ট করে বিষোদ্গার করেন ত্বরিতা ।

  • Share this:

    #কলকাতা: গত ১৫ জানুয়ারি সাত পাকে বাঁধা পড়েছেন টলিউডের জনপ্রিয় জুটি ত্বরিতা চট্টোপাধ্যায় এবং সৌরভ বন্দ্যোপাধ্যায়। তিন বছরের প্রেম পরিণতি পেয়েছে। উত্তম কুমারের ভাই তরুণ কুমারের নাতি সৌরভ। ত্বরিতার সঙ্গে সৌরভের আলাপ শ্যুটিংয়ের সেটেই । অবশেষে গাঁটছড়া বেঁধেছেন দু’জনে । রাজকীয় বিয়ের পর্ব মিটিয়েই এ বার বিয়ের নেমন্তন্ন খেতে হাজির হয়ে গিয়েছিলেন নবদম্পতি । কিন্তু সেই ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করতেই শুরু হয় যত বিতর্ক । ত্বরিতার সাজ-পোশাক নিযে নানারকম বিরূপ মন্তব্য ধেয়ে আসে তাঁর দিকে । এই ঘটনায় যথেষ্টই বিরক্ত হন অভিনেত্রী । পরে সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি পোস্ট করে বিষোদ্গার করেন ত্বরিতা ।

    বিয়ের পরপরই এক বন্ধুর বিয়েতে গিয়েছিলেন ত্বরিতা । সেখানে ত্বরিতাকে দেখা যায় বেশ মর্ডান লুকে । যদিও একটি ট্র্যাডিশনাল শাড়ি পরেছিলেন তিনি । তবে ত্বরিতার হাতে শাঁখা-পলা-নোয়া দেখা যায়নি । সিঁথিতে অবশ্য চওড়া করে সিঁদুর পরেছিলেন তিনি । আর এরপরেই শুরু হয়ে যায় সোশ্যাল মিডিয়ায় নোংরা আক্রমণ । হিন্দু বাড়ির বৌ হয়েও বিয়ের পরের দিনই হাত থেকে শাঁখা-পলা-নোয়া খুলে ফেলায় অনেকেই কটূক্তি করেন ত্বরিতাকে ।

    তবে ত্বরিতাও মুখের উপর জবাব দিতে ছাড়েননি । একটি পোস্টে তিনি লেখেন, ‘‘আমার ফ্রেন্ড লিস্টে থাকা সকলের উদ্দেশ্যে বলা, প্লিজ কেউ শাঁখা-পলা-সিঁদুর নিয়ে জ্ঞান দেবেন না । আমি আবার এত জ্ঞানী হতে চাই না, গুণী হলেই চলবে ।’’

    ত্বরিতার এই পোস্টের পরে অবশ্য বহু মানুষ এবং নায়িকার ভক্তরা তাঁর পাশে দাঁড়ান । তাঁকে সমর্থন করে অনেকেই বলতে থাকেন, প্রতিবাদ করে একেবারেই ঠিক কাজ করেছেন ত্বরিতা । মানুষের ব্যক্তি স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ করার অধিকার ট্রোলাররা পায় কী করে, সেই প্রশ্নও তুলেছেন অনেকে ।

    Published by:Simli Raha
    First published: