Home /News /entertainment /
বড় মা’র কোলে বামাক্ষ্যাপা, তারাপীঠের গর্ভগৃহে ঢুকে মা তারাকে পাগলের মতো জড়িয়ে ধরলেন সব্যসাচী

বড় মা’র কোলে বামাক্ষ্যাপা, তারাপীঠের গর্ভগৃহে ঢুকে মা তারাকে পাগলের মতো জড়িয়ে ধরলেন সব্যসাচী

তারাপীঠে মা তারার সঙ্গে সব্যসাচী চৌধুরি । ছবি- ফেসবুক ।

তারাপীঠে মা তারার সঙ্গে সব্যসাচী চৌধুরি । ছবি- ফেসবুক ।

তারাপীঠ মন্দিরের গর্ভগৃহে ঢুকেই পর্দার বামাক্ষ্যাপা জড়িয়ে ধরলেন মা তারাকে । রক্ত-মাংসের মা আর পাথরের মাতৃ মূর্তির মধ্যে সব বিভেদ দূর হল যেন ।

  • Share this:

    #কলকাতা: তিনি যেন একখানি খাঁটি রত্ন, অন্তত ইন্ডাস্ট্রির সকলেই এক বাক্যে অভিনেতা সব্যসাচী চৌধুরি (Sabyasachi Chowdhury)-কে এই আখ্যা দিতে বিন্দুমাত্র দ্বিধাবোধ করেন না । স্টার জলসার জনপ্রিয় ধারাবাহিক ‘মহাপীঠ তারাপীঠ’ প্রধান চরিত্র ‘বামাক্ষ্যাপা’র রোলে অভিনয় করতে দেখা যায় তাঁকে । একদিকে যেমন বাংলা ইন্ডাস্ট্রির অন্যতম সুদক্ষ অভিনেতা, তেমনই সুবিশাল এক হৃদয়ের অধিকারী তিনি । একদিকে বিনোদনের রসদ জুগিয়ে মানুষের মন ভরান, অন্যদিকে জীবনের রসদ জুগিয়ে পেট চালান অনেক মানুষের । গোটা লকডাউন ও ইয়াস পরবর্তী বিধ্বস্ত বাংলার বিভিন্ন প্রান্তে তিনি ও তাঁর টিম ছুটে চলেন মানুষের দিকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিতে ।

    একদিকে তাঁর বান্ধবী, টেলি অভিনেত্রী ঐন্দ্রিলা শর্মা ফুসফুসের ক্যান্সারে আক্রান্ত । প্রতিনিয়ম তাঁর সেবা, যত্ন, দেখভাল করেন সব্যসাচী । কেমোথেরাপিতে ঐন্দ্রিলার মাথার সব চুল পড়ে গিয়েছে । হাসপাতালের বিছানা, ওষুধ, স্যালাইন, ইঞ্জনেকশনে আটকে পড়েছিল তাঁর জীবন । সেখান থেকেও মনবল জুগিয়ে বান্ধবীকে সুস্থ করতে প্রাণপণ চেষ্টা করে গিয়েছেন অভিনেতা । অবশেষে সফল হয়েছে ঐন্দ্রিলার অপারেশন । সব্যসাচী বলেন, বড় মায়ের ইচ্ছাতেই নাকি সব বাধা কেটে যাবে এ ভাবেই ।

    এ বার পর্দার দুনিয়া ছেড়ে, সত্যিই বড় মা অর্থাৎ মা তারার কাছে গেলেন মায়ের পাগল ছেলে বামাক্ষ্যাপা । শুধু রিল লাইফের নয়, রিয়েল লাইফেও যেন মা তারা ছাড়া আর কিছুই বোঝেন না সব্যসাচী । তাই তারাপীঠ মন্দিরের গর্ভগৃহে ঢুকেই জড়িয়ে ধরলেন মা তারা’কে । রক্ত-মাংসের মা আর পাথরের মাতৃ মূর্তির মধ্যে সব বিভেদ দূর হল যেন ।

    এই নিয়ে আড়াই বছর ধরে চলছে ‘মহাপীঠ তারাপীঠ’ ধারাবাহিকটি । ৫৯৫ পর্ব পেরিয়ে প্রথমবারের জন্য চ্যানেল টপার হয়েছে এই মেগা সিরিয়াল । রেটিং চার্ট অনুযায়ী ধারাবাহিকের প্রাপ্ত নম্বর ৭.৪। এত গুলি দিন পেরিয়েও কোনও ধারাবাহিকের এতটা জনপ্রিয়তা, সত্যিই বিরল । এই খুশির খবর সব্যসাচী ভাগ করে নিয়েছিলেন সোশ্যাল মিডিয়ায় । তাঁর ভক্তদের জানিয়েছিলেন, তাঁরা চ্যানেল টপার হয়েছেন । সঙ্গে এও লিখেছিলেন, ‘‘রাখে বড়মা... তো মারে কোন শালা’’ । এটি ধারাবাহিকে তাঁর জনপ্রিয় একটি সংলাপ ।

    অন্যদিকে ঘটনাটিকে অলৌকিকও বলা চলে, বা কাকতালীয় । কারণ সব্যসাচী ও তাঁর যে টিমটি রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় ফুড ড্রাইভ করছে, তাঁরা গত শুক্রবারই স্থির করেছিল এ বার তারাপীঠ যাওয়া হবে খাবার বিতরণ করতে । এই সিদ্ধান্ত নেওয়ার পরের দিনই খবর আসে ‘মহাপীঠ তারাপীঠ’ চ্যানেলের সমস্ত সিরিয়ালকে টেক্কা দিয়ে প্রথম স্থান দখল করেছে ।

    সব্যসাচীরা সিদ্ধান্ত নেন, ১১ জুন এই কাজ করতে তারাপীঠ যাওয়া হবে । মন্দির সংলগ্ন এলাকার দোকানের ব্যবসায়ী, সেখানকার সাধু-সন্ন্যাসীদের কষ্টে দিন কাটছে । কারণ লকডাউনের কারণে মন্দির বন্ধ থাকছে । খুললেও পুণ্যার্থীরা আসতে পারছেন না । ফলে তাঁদের রোজগার এখন বন্ধ । তাই ত্রাণ বিলি করা হবে মন্দির এলাকায় । সেই মতো মন্দির কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে তাঁরা গতকাল গিয়েছিলেন তারাপীঠে । মা তারাকে জড়িয়ে ধরে আশীর্বাদ চান সব্যসাচী । সেই ছবিই শেয়ার করেন সোশ্যাল মিডিয়ায় ।

    Published by:Simli Raha
    First published:

    Tags: Maa Tara, Sabyasachi Chowdhury, Tarapith

    পরবর্তী খবর