• Home
  • »
  • News
  • »
  • entertainment
  • »
  • মেগা সিরিয়ালে সুযোগ মেলেনি, অবসাদে আত্মহত্যা করলেন সিরিয়ালের অভিনেত্রী

মেগা সিরিয়ালে সুযোগ মেলেনি, অবসাদে আত্মহত্যা করলেন সিরিয়ালের অভিনেত্রী

রবিবার বর্ধমানের  মোহনবাগে নিজের বাড়িতে সিলিং ফ্যানে ওড়নার ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন তিনি। অভিনেত্রীর নাম সুবর্ণা যশ। বয়স ২৩ বছর।

রবিবার বর্ধমানের মোহনবাগে নিজের বাড়িতে সিলিং ফ্যানে ওড়নার ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন তিনি। অভিনেত্রীর নাম সুবর্ণা যশ। বয়স ২৩ বছর।

রবিবার বর্ধমানের মোহনবাগে নিজের বাড়িতে সিলিং ফ্যানে ওড়নার ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন তিনি। অভিনেত্রীর নাম সুবর্ণা যশ। বয়স ২৩ বছর।

  • Share this:

    Saradindu Ghosh

    #বর্ধমান : মেগা সিরিয়ালে পাকা জায়গা না পেয়ে মানসিক অবসাদের জেরে আত্মহত্যা উঠতি অভিনেত্রীর। সিরিয়ালে অভিনয়ের পাশাপাশি নিয়মিত মডেলিংও করতেন তিনি। মনের মত কাজ না পেয়ে তিনি অবসাদে ভুগছিলেন বলে জানা গেছে।  রবিবার বর্ধমানের  মোহনবাগে নিজের বাড়িতে সিলিং ফ্যানে ওড়নার ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন তিনি। অভিনেত্রীর নাম সুবর্ণা যশ। বয়স ২৩ বছর।

    বাবা মায়ের একমাত্র সন্তান সুবর্ণা বর্ধমান বিদ্যার্থী ভবন গার্লস স্কুলের ছাত্রী ছিলেন। সেখান থেকে পাস করার পর কলকাতায় সাংবাদিকতা পড়তে চলে যান। তার বাবা একটি নার্সিংহোমে ম্যানেজারের চাকরি করেন। পরিবারটি সাধারণ মধ্যবিত্ত পরিবার। কলকাতা যাবার পর কিছুদিন নানা কাজে শিক্ষানবিশি করার পরে সুবর্ণা টলিপাড়ায় অভিনেত্রী হিসেবে কাজে যোগ দেন।

    প্রতিষ্ঠা পেতে তিনি মডেলিংও করতেন। তার সঙ্গে সঙ্গে  বেশ কিছু সিরিয়ালে পার্শ্ব চরিত্রে অভিনয় করতেন তিনি। ময়ূরপঙ্খী সিরিয়ালে নায়িকার বান্ধবীর ভূমিকায় দেখা গিয়েছিল । নিয়মিত টালিগেঞ্জর সিনেমা পাড়ায় যাতায়াত ছিল । মেগা সিরিয়ালের পাশাপাশি বিভিন্ন বাংলা সিরিয়ালে জায়গা করে নেওয়ার চেষ্টা চালাচ্ছিলেন। কিছু সিরিয়ালে কাজ করলেও কাঙ্ক্ষিত সাফল্য  পাচ্ছিলেন না। অভিনয় জগতে পাকাপাকি জায়গা করতে না পারায় মানসিক অবসাদে ভুগছিলেন।

    অসুস্থতার খবর পেয়ে তাঁকে বাড়ি ফিরিয়ে এনেছিল পরিবার। গত কয়েক মাস ধরে তাঁর পরিবারের লোকজন   বিভিন্ন জায়গায় চিকিৎসা করাতে নিয়ে যায়। আত্মীয় বাড়িতে কিছুদিন কাটানোর পর রবিবার তিনি বর্ধমানের বাড়িতে ফেরেন। সন্ধ্যায় তিনি বাড়িতে একাই ছিলেন। মা অন্য  কাজে ব্যস্ত ছিলেন। সেই সুযোগে তিনি গলায় ফাঁস লাগিয়ে  আত্মহত্যার পথ বেছে নেন বলে পরিবারের দাবি। বাড়ির লোকরা ঝুলন্ত অবস্থায় তাঁর দেহ দেখতে পান। এলাকার বাসিন্দারা দেহ নামিয়ে বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে য়ান।  চিকিৎসকরা তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।

    Published by:file 18 user
    First published: