• Home
  • »
  • News
  • »
  • entertainment
  • »
  • TOLLYWOOD MOVIES AN EXCLUSIVE INTERVIEW OF APARAJITA APU FAME DIPU AKA ROHAAN BHATTACHARJEE SR

Rohaan Bhattacharjee: ‘ঘাবড়ে গেলে দিপু হেঁচকি খাবে, এটা আমিই ঠিক করেছিলাম’, বললেন রোহন ভট্টাচার্য

Rohaan Bhattacharjee Interview: ‘ইন্ডাস্ট্রিতে আমার জার্নিটা শুরু হয়েছিল ৬০ বছর আগে’, কেন এমন কথা বললেন বছর ত্রিশের অভিনেতা রোহন ভট্টাচার্য ।

Rohaan Bhattacharjee Interview: ‘ইন্ডাস্ট্রিতে আমার জার্নিটা শুরু হয়েছিল ৬০ বছর আগে’, কেন এমন কথা বললেন বছর ত্রিশের অভিনেতা রোহন ভট্টাচার্য ।

  • Share this:

    #কলকাতা: নতুন প্রজন্মের হিরোদের মধ্যে তিনি অন্যতম । সুদর্শন, সুপুরুষ, সুঠাম তাঁর চেহারা, ক্যারাটের বেঙ্গল চ্যাম্পিয়ন তিনি । শুধু তাই নয়, ডান্স, ফাইটিং, ঘোড়া চালানো, মার্শাল আর্ট সবেতেই পারদর্শী । বাংলা ছোট পর্দায় এত দক্ষ অভিনেতা আর আছে কিনা সন্দেহ । তাঁকে এখন সবাই চেনেন । ‘অপরাজিতা অপু’র সকলের প্রিয় ‘দিপু’ তিনি, ওরফে রোহন ভট্টাচার্য (Rohaan Bhattacharjee) । ব্যস্ততার মধ্যেও সময় বের করে ইন্ডাস্ট্রিতে তাঁর জার্নি নিয়ে গল্প জমালেন নিউজ ১৮-বাংলার সঙ্গে ।

    প্রথমেই তাঁর কাছে প্রশ্ন এল এই জার্নি শুরু হল কী করে? রোহনের উত্তর শুনে কিন্তু খানিক চমকে যেতে হয় । রোহন জানালেন তাঁর পথচলা শুরু হয়েছিল আজ থেকে ঠিক ৬০ বছর আগে । কিন্তু সেটা কী করে সম্ভব ? উত্তরে নায়ক জানালেন, তাঁর বাপি (সদ্য প্রয়াত) এই স্বপ্নটা দেখতে শুরু করেছিলেন তাঁর ইয়ং বয়সে । তিনি চাইতেন অভিনেতা হতে । নিয়মিত থিয়েটার করতেন । কিন্তু বাধ সেঁধেছিল নিম্ন-মধ্যবিত্ত পরিবার । এরপর যখন বুঝলেন তাঁর দ্বারা আর অভিনেতা হয়ে ওটা হবে না, তখন রোহনকে ছোট থেকেই তৈরি করছিলেন তিনি । রোজ সিনেমা দেখাতেন আর জিজ্ঞাসা করতেন বড় হয়ে কী হতে চাও । আসলে তিনি একটাই উত্তর খুঁজতেন । রোহন বললেন, ‘‘আমি সে সময় কিছুই বুঝতাম না । একেক দিন একেকটা উত্তর দিতাম । কিন্তু বাপি শান্তি পেতেন না । একদিন কোনও কারণে আমি বলি যে আমি অভিনেতা হতে চাই । সে দিন বাপির মুখটা ছিল দেখার মতো । সে দিন থেকেই আমার ট্রেনিং শুরু হল বাপির হাত ধরে ।’’

    এরপর নিজের বাবার দেখানো পথ ধরেই থিয়েটারের জগতে আসেন রোহন । কৌশিক সেনের হাত ধরে মঞ্চে প্রবেশ । কাজ শিখেছেন সোহাগ সেনের কাছেও । মুখাভিনয় করেছেন অঞ্জন দেবের কাছে । একটি ফিল্ম ইনস্টিটিউট থেকে ডিপ্লোমাও করেছিলেন অভিনয়ের । তারপর শুরু হল স্টুডিও পাড়ায় ঘোরাঘুরি । ২০০৮ সালে প্রথমে পেলেন জুনিয়র আর্টিস্টের কাজ । প্রচণ্ড খারাপ ব্যবহার পেতেন সবার কাছ থেকে । ডিপ্রশন গ্রাস করছিল । বাবার মুখের দিকে তাকাতে পারতেন না রোহন । ঠিক সেই সময়ই একটি অডিশনের ডাক পান । আর পেয়ে যান হিরোর চরিত্র । আকাশ বাংলায় ‘বসুন্ধরা’ বলে ওই সিরিয়াল দিয়েই রোহনের যাত্রা শুরু ।

    এই সিরিয়ালটি করতে করতেই হরনাথ চক্রবর্তীর সহকারী অমিত কুমার সামন্ত একটি সিনেমার জন্য ডাকেন । এরপর পর পর অনেকগুলো ছবিতে চুটিয়ে অভিনয় করেন তিনি । তার মধ্যে ছইল ‘লভ ডায়রি এক প্রেম কথা’, ‘মন শুধু তোকে চায়’, ‘জল’, ‘জামাইবরণ’, ‘ব্ল্যাকমেল’ ইত্যাদি । কিন্তু যে কোনও কারণেই হোক ছবি গুলো তেমন প্রচার পায়নি । বক্স অফিসেও ভাল চলেনি ।

    সে কারণেই একটা বড় কিছু ব্রেক চাইছিলেন রোহন । এরপরেই সুযোগ আসে স্টার থেকে । শুরু হয় ‘ভজ গোবিন্দ’ । রোহন আগে থেকেই বলে দিয়েছিলেন, এমন সিরিয়ালই করবেন, যেখানে হিরোকেই প্রধান হতে হবে । হিরোইন হলে হবে না । আর ‘ভজ গোবিন্দ’-এর তুমুল সাফল্য প্রমাণ করে দিয়েছিল রোহন এই দাবি করার ক্ষমতা রাখেন । এরপর থেকে আর পিছন ফিরে তাকাতে হল না । একে একে ‘কলের বৌ’, তারপর ‘অপরাজিতা অপু’ । মাঝে ‘এ বার জমবে মজা’য় সঞ্চালনর দায়িত্বও সামলেছেন রোহন ।

    ‘অপরাজিতা অপু’ ধারাবাহিকে ‘দিপু’ চরিত্রটি করার পিছনে সবচেয়ে বড় কারণ ছিল চরিত্রটির সারল্য আর অনেক রকম শেডস । যা দেখে আকৃষ্ট হয়েছিলেন রোহন । তবে অনেকেই জানেন না, দিপু যে ঘাবড়ে গেলে হেঁচকি তোলে সেটা সম্পূর্ণই রোহনের কারসাজি । স্ক্রিপ্টে এমন কিছুই ছিল না । তিনিই চরিত্রটাকে আরও একটু ফুটিয়ে তুলতে তার মধ্যে নতুন এই চারিত্রিক বৈশিষ্ট্যটি যোগ করে নিয়েছেন ।

    Published by:Simli Raha
    First published: