Home /News /entertainment /
Shruti Das: ১টা ১১, ১২টা ১২, ঘড়ির বিভিন্ন সময় ফ্রেমবন্দি করে রাখেন শ্রুতি, কেন জানেন?

Shruti Das: ১টা ১১, ১২টা ১২, ঘড়ির বিভিন্ন সময় ফ্রেমবন্দি করে রাখেন শ্রুতি, কেন জানেন?

Shruti Das: 'দেশের মাটি' শেষ হওয়ার পর এখনও পর্যন্ত আর কোনও কাজ শুরু হয়নি তাঁর। অনেকেই ডেকেছেন কিন্তু আবার ফিরিয়েও দিয়েছেন।

  • Share this:

    #কলকাতা: ১টা ১১। ১১টা ১১। ১২টা ১২। অভিনেত্রী শ্রুতি দাসের হোয়াটসঅ্যাপ স্টেটাসে নজর রাখলেই দেখা যাবে, বেশ কয়েক মাস ধরে এই সময়গুলির ছবি ফ্রেমবন্দি করে রাখছেন। তিনি তাঁর ফোনের ওয়াল পেপারের স্ক্রিনশট তুলে রাখেন ঠিক সেই সময়গুলিতে। আর তার ছবি নিয়মিত স্টেটাসে দেন। কেন? তার পিছনে কোন অর্থ বা কারণ নিহিত রয়েছে?

    নিউজ18 বাংলাকে 'দেশের মাটি'র নায়িকা এর কারণ জানালেন। গভীর, কঠিন তত্ত্ব নিয়ে পড়াশোনা করেই তিনি এই চর্চার মধ্যে দিয়ে গিয়েছেন।

    আরও পড়ুন: নির্জন যাত্রাপথে সেন্টিমেন্টই ভরসা? নাকি এভাবেই ফিরে এলেন? রূপঙ্করের নতুন গানে কী বললেন নেটিজেনরা

    গত তিন থেকে চার মাস ধরে নির্দিষ্ট এই সময়ে ঘড়ির কাঁটার দিকে চোখ রাখেন। না, উদ্দেশ্যমূলক নয়। বলা যেতে পারে, কাকতালীয় ভাবে। ঘড়ির কাঁটা হোক বা ফোনের স্ক্রিন। সঙ্গে সঙ্গে সেই সময়টিকে ফ্রেমবন্দি করেন শ্রুতি। রেখে দেন নিজের কাছে অথবা স্টেটাসে দিয়ে দেন। শ্রুতির বিশ্বাস, এই সময়গুলি আসলে 'এঞ্জেল টাইম'। অর্থাৎ যদি কেউ কাকতালীয় ভাবে ওই সময়গুলির দিকে দিনের পর দিন তাকায়, আর সঙ্গে সঙ্গে মনের কোনও ইচ্ছা প্রকাশ করে, এবং মনে করে যে যা সে চাইছে তা পেয়ে গিয়েছে, তবে সেই ইচ্ছা সত্যিই এক দিন পূরণ হবে। শ্রুতির কথায়, "একে বলে ম্যানিফেসটেশন। সময়ের দিকে না তাকিয়ে কেউ খাতাতেও লিখতে পারে। এ রকম একটি নিয়ম রয়েছে, সকালে ঘুম থেকে উঠে কয়েক বার, দুপুরে খাওয়ায় পর আবার রাতে শুতে যাওয়ার আগে নির্দিষ্ট কয়েকটি বার লিখতে হবে তার ইচ্ছার কথা। আর মনে করতে হবে, সেই জিনিসটা আমি পেয়ে গিয়েছি। এক দিন সত্যিই হয়তো পূরণ হবে। এমনটা আমার এক বন্ধুর সঙ্গে ঘটেছে।"

    এ ভাবে বিশ্ব ব্রহ্মাণ্ডের কাছে তাঁর কৃতজ্ঞতা জানান শ্রুতি। অভিনেত্রীর কথায়, "কেবল কোনও কিছু পাওয়ার ইচ্ছেয় নয়, ম্যানিফেস্ট করলে আমার মন ভাল থাকে। যখনই আমি অবসাদগ্রস্ত হয়ে পড়ি, ম্যানিফেস্ট করি। তাতে ইতিবাচকতা ফিরে আসে জীবনে। এটা অবিশ্বাস্য লাগলেও এই প্রক্রিয়ার পিছনে একাধিক বৈজ্ঞানিক যুক্তি রয়েছে। বিজ্ঞান এবং ব্রহ্মাণ্ডকে অস্বীকার করতে আমি নারাজ। আমাদের সঙ্গে যা ঘটে, তা সবই পূর্বলিখিত। বিজ্ঞান এবং ব্রহ্মাণ্ডের এই লীলা চলতেই থাকবে।"

    আরও পড়ুন: আলাস্কায় কদিন আগে সূর্য উঠলে গোলপার্কে পুড়তে হত না তোমায়, বাবাকে চিঠি বিবৃতির

    'দেশের মাটি' এবং 'ত্রিনয়নী' ধারাবাহিকের নায়িকা ছিলেন তিনি। কিন্তু 'দেশের মাটি' শেষ হওয়ার পর এখনও পর্যন্ত আর কোনও কাজ শুরু হয়নি তাঁর। অনেকেই ডেকেছেন কিন্তু আবার ফিরিয়েও দিয়েছেন। সময়টা কঠিন তাঁর জন্য। কিন্তু নিজেকে ভাল রাখার জন্য এই টুকরো টুকরো আলো নিজের জীবনে নিয়ে এসেছেন শ্রুতি।

    Published by:Teesta Barman
    First published:

    Tags: Bengali Serial, Shruti das

    পরবর্তী খবর