Home /News /entertainment /
Sandhya Mukhopadhyay death : কিছুক্ষণ আরও না হয় রহিতে কাছে! সঙ্গীত জগতে সন্ধ্যা নামল, চলে গেলেন গীতশ্রী

Sandhya Mukhopadhyay death : কিছুক্ষণ আরও না হয় রহিতে কাছে! সঙ্গীত জগতে সন্ধ্যা নামল, চলে গেলেন গীতশ্রী

সঙ্গীত জগতে সন্ধ্যা নামল, চলে গেলেন গীতশ্রী

সঙ্গীত জগতে সন্ধ্যা নামল, চলে গেলেন গীতশ্রী

Sandhya Mukhopadhyay death : গানের জগতে তাঁর পরিধি ছিল বিরাট। রবীন্দ্রসঙ্গীত, নজরুলগীতি, লোকগান, খেয়াল, ঠুংরি, আধুনিক গান সবেতেই তিনি মুগ্ধ করেছিলেন সেই সময়ের বাঙালি শ্রোতাকে।

  • Share this:

    #কলকাতা: বাংলা গানের জগতেও সন্ধ্যা নামল। চলে গেলেন কিংবদন্তি গায়িকা সন্ধ্যা মুখোপাধ্যায় (Sandhya Mukhopadhyay death)। সঙ্গীত জগতে তাঁর অশেষ অবদান বাঙালির স্মৃতিভাণ্ডারে চিরসবুজ হয়ে থাকবে। আর তাই আজ বাঙালি শোকাচ্ছন্ন। সোশ্যাল মিডিয়ায় নেটাগরিকরা শেয়ার করছেন গীতশ্রীর গাওয়া কালজয়ী গান।

    দূর থেকে ভেসে আসলেও, তাঁর গান শুনেই বোঝা যায় এই কণ্ঠের অধিকারীনী কে। কণ্ঠের জন্য সন্ধ্যা মুখোপাধ্যায় চিরকালই ব্যতিক্রমী থেকেছেন। বাংলা খেয়াল থেকে শুরু করে পশ্চিমী সঙ্গীতের আদলে তৈরি গান, সবই যেন তাঁর কণ্ঠের সঙ্গে অবলীলায় মিলে যেত। সন্ধ্যা মুখোপাধ্য়ায়ের (Sandhya Mukhopadhyay death) পরিবারই তাঁর গানের উৎসস্থল। তাঁর পূর্বপুরুষ রামগতি মুখোপাধ্যায় উচ্চাঙ্গসঙ্গীত গায়ক ছিলেন। তাঁর ছেলে সারদাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ও একই পথে হাঁটেন। সারদাপ্রসাদের নাতি নরেন্দ্রনাথ মুখোপাধ্যায়ও গানের চর্চা করতেন।

    নরেন্দ্রনাথ মুখোপাধ্যায় বিয়ে করেন হেমপ্রভা দেবীকে। তিনিও টপ্পা গাইতেন। ১৯৩১ সালে তাঁদের কোলেই জন্ম নেন সন্ধ্যা মুখোপাধ্যায় (Sandhya Mukhopadhyay death)। ফলে ছোট থেকেই গানের আবহে বড় হওয়া গীতশ্রীর। কিশোর বয়সেই এইচএমভি থেকে রেকর্ড বের হয় সন্ধ্যা মুখোপাধ্যায়ের। বাঙালি শ্রোতার মুগ্ধতা শুরু সেই থেকেই। চলচ্চিত্র জগতে প্লেব্যাকের সুযোগও এলো তার পর পরই। প্রথম ছবি সমাপিকা। সঙ্গীত পরিচালক রবীন চট্টোপাধ্যায়।

    সেই যাত্রায় এর পরে এলো সুচিত্রা সেনের লিপে গান গাওয়ার সুযোগ। অগ্নিপরীক্ষা ছবিতে গানে মোর ইন্দ্রধনু গেয়ে ইতিহাস তৈরির শুরু গীতশ্রী। স্বর্ণযুগের গানের মধ্যে এই গান চিরতরে জায়গা করে নিল। সুচিত্রা সেনের লিপে তাঁর কণ্ঠ মিলেমিশে একাকার হল। এই জুটিও ইতিহাস তৈরি করেছিল তখনই।

    গানের জগতে তাঁর পরিধি ছিল বিরাট। রবীন্দ্রসঙ্গীত, নজরুলগীতি, লোকগান, খেয়াল, ঠুংরি, আধুনিক গান সবেতেই তিনি মুগ্ধ করেছিলেন সেই সময়ের বাঙালি শ্রোতাকে। তাঁর কণ্ঠের পরিধিও ছিল বিরাট। একেবারে খাদের নোট থেকে চড়া নোট, সবটাই যেন সহজ সরল এক অভ্যেস ছিল সন্ধ্যা মুখোপাধ্যায়ের কাছে। তিনি ছিলেন বড়ে গুলাম আলি খাঁ এর ছাত্রী। তাই উচ্চাঙ্গসঙ্গীতের সুরও সেতু বাঁধত তাঁর কণ্ঠে সহজেই। গান যে ধরনেরই হোক, তাঁর স্বকীয়তা থাকত। আবেগ মাধুর্যে ভরা কণ্ঠ শুনেই তাই বলে দেওয়া যায় এই গান গীতশ্রীর।

    বাংলা ছবির জগতে প্লেব্যাকের সম্রাজ্ঞী তিনি। শুনে নেওয়া যাক তাঁর গাওয়া কিছু কালজয়ী গান-

    ১) গানে মোর ইন্দ্রধনু- অগ্নিপরীক্ষা ছবির এই গানের পরিচালক ছিলেন অনুপম ঘটক।

    ২) মধু মালতী ডাকে আয়- হারজিৎ ছবির জন্য এই গান গেয়েছিলেন গীতশ্রী। সুর দিয়েছিলেন রবীন চট্টোপাধ্যায়। কথা প্রণব রায়ের।

    ৩) এ শুধু গানের দিন - পথে হল দেরি ছবিতে সুচিত্রা সেনের লিপে গাওয়া এই গান কালজয়ী। গৌরীপ্রসন্ন মজুমদারের কথা ও রবীন চট্টোপাধ্য়ায়ের সুর।

    ৪) তুমি না হয় রহিতে কাছে - এই গানটিও পথে হল দেরি ছবির।

    ৫) ঘুম ঘুম চাঁদ ঝিকিমিকি তারা- সবার উপরে ছবিতে এই গান গেয়েছিলেন কিংবদন্তি শিল্পী। গৌরীপ্রসন্ন মজুমদারের কথা ও রবীন চট্টোপাধ্য়ায়ের সুর।

    এছাড়া আরও অসংখ্য কালজয়ী গান আছে সন্ধ্যা মুখোপাধ্যায়ের কণ্ঠে যা বাঙালির কাছে অমূল্য সম্পদ হয়ে থাকবে চিরকাল।

    Published by:Swaralipi Dasgupta
    First published:

    Tags: Sandhya Mukhopadhyay

    পরবর্তী খবর