Home /News /entertainment /
Pallavi Dey Last Birthday: ছুটে গিয়ে কেক খাওয়ালেন মাকে, বন্ধু সায়কের প্রোফাইলে পল্লবীর শেষ জন্মদিনের পার্টির মুহূর্ত চোখে জল আনল নেটিজেনদের

Pallavi Dey Last Birthday: ছুটে গিয়ে কেক খাওয়ালেন মাকে, বন্ধু সায়কের প্রোফাইলে পল্লবীর শেষ জন্মদিনের পার্টির মুহূর্ত চোখে জল আনল নেটিজেনদের

ছবি : সায়কের ফেসবুক

ছবি : সায়কের ফেসবুক

Pallavi Dey Last Birthday: প্রথম টুকরোটা তুলে দিলেন সাগ্নিকের মুখে৷ তার পরই ‘ও মা’ বলে ছুটলেন কেকের টুকরো হাতে৷ একে একে কেক খাইয়ে দিলেন বাবা এবং মাকে৷ তার পরই আব্দার ‘আমাকেও খাইয়ে দাও মা’৷

  • Share this:

    কলকাতা : প্রাণবন্ত ছিলেন৷ ভালবাসতেন হাসি-মজা-ঠাট্টায় জীবন কাটিয়ে দিতে৷ সেভাবেই জমে উঠেছিল পল্লবী দে-এর জন্মদিনের পার্টি৷ মাত্র তিন মাস আগে পল্লবীর শেষ জন্মদিন৷ বাবা মায়ের পাশাপাশি তাঁর জন্মদিনের আনন্দে ছিলেন বন্ধুবান্ধব এবং অবশ্যই বিশেষ বন্ধু সাগ্নিক৷ জন্মদিনের আনন্দ ক্যামেরাবন্দি করেছিলেন তাঁর ঘনিষ্ঠ বন্ধু তথা অভিনেতা সায়ক চক্রবর্তী৷ সামাজিক মাধ্যমে শেয়ার করেছিলেন সায়ক৷ আবার নতুন করে সেই ব্লগ ভাইরাল হয়েছে৷ সেই ভিডিওতে উচ্ছ্বল প্রজাপতির মতোই উড়ে বেড়াচ্ছেন পল্লবী৷ তখন কে আর জানত এটাই তাঁর শেষ জন্মদিন!

    ‘আমি সিরাজের বেগম’ ধারাবাহিকে একসঙ্গে অভিনয় করেছিলেন পল্লবী ও সায়ক৷ শেষ দিন অবধি তাঁদের অন্তরঙ্গ বন্ধুত্ব অটুট ছিল৷ বন্ধুর জন্মদিনে চুটিয়ে আনন্দ করেছিলেন সায়ক৷ তিনি আবার শেয়ার করেছেন পুরনো ভ্লগ৷ ক্যাপশন দিয়েছেন ‘স্মৃতিটুকু থাক’৷ সামাজিক মাধ্যমে সায়কের প্রোফাইল এখন পল্লবীর স্মৃতিময়৷ অনুরাগীরা ব্লগের মন্তব্যবাক্সে লিখেছেন পল্লবীকে তাঁরা ভুলতে পারছেন না৷

    অনুরাগীদের মনের ক্ষত আরও তীব্র হয়ে উঠছে পল্লবীর শেষ জন্মদিনের ভিডিওটি দেখে৷ হাল্কা পেস্তা রঙের পোশাকে তিনি সেলিব্রেশনের মুডে৷ আনা হয়েছিল বাহারি কেক৷ খোলা চুল সামলে কেক কাটলেন৷ প্রথম টুকরোটা তুলে দিলেন সাগ্নিকের মুখে৷ তার পরই ‘ও মা’ বলে ছুটলেন কেকের টুকরো হাতে৷ একে একে কেক খাইয়ে দিলেন বাবা এবং মাকে৷ তার পরই  মায়ের হাতে কেক খাওয়ার আব্দার৷

    আরও পড়ুন : ‘হয়তো অধিকার ছাড়াই ইন্টারফেয়ার করতাম...’, ‘বোন’ পল্লবীর জন্য বাকরুদ্ধ সোহিনী

    জন্মদিনের পার্টিতে সকলের সামনেই পল্লবীর হাতে উপহার তুলে দিয়ে আলিঙ্গন করে কপালে স্নেহচুম্বন এঁকে দেন সাগ্নিক৷ এর পর চলে খাওয়া দাওয়া আর দেদার আড্ডা৷ পিছনে চলেছে আবহ অনুযায়ী গান৷ কেক কাটার সময় ‘হ্যাপি বার্থডে’ গান, তো তার পরই পুরনো দিনের হিন্দি গান৷ সঙ্গে চলছে বন্ধুদের সঙ্গে হাসি, মজা আর বন্ধুদের সঙ্গে খুনসুটি৷

    আরও পড়ুন : সিক্ত শরীরে বিকিনির আলিঙ্গন, অতল জলের আহ্বানে মৎস্যকন্যা কিমের জলকেলির ছবি দেখুন

    আরও পড়ুন : ‘‘আমাদের কোনও কথার দরকার নেই...’’ বাহুলগ্না পল্লবীর মুহূর্তরা আজ স্মৃতি

    তার পর শুরু উপহার খোলার পর্ব৷ বন্ধুদের উপহারের মোড়ক একে একে খোলেন পল্লবী৷ সবার আগে খোলা হয় সাগ্নিকের দেওয়া উপহারই৷ মোড়ক থেকে বার হয় দামী মোবাইল৷ এ বার সাগ্নিকের কপালে চুম্বন পল্লবীর৷ পাশাপাশি চলে বন্ধুদের সঙ্গে নাচগান৷ ভিডিও দেখে স্পষ্ট, প্রেম বা বন্ধুত্ব নিয়ে পল্লবীর কোনও লুকোচুরি ছিল না৷ বাবা মায়ের সামনেই তিনি সাগ্নিকের সঙ্গে স্বচ্ছন্দ ও খুশি৷ সেই ছবি এত দ্রুত কেন করুণ পরিণতি নিল? উত্তরের অপেক্ষায় পল্লবীর বন্ধুরা৷

    Published by:Arpita Roy Chowdhury
    First published:

    Tags: Pallavi dey, Sayak Chakraborty

    পরবর্তী খবর