Kangana Ranaut: "ভয়ঙ্কর তো করোনা, সেরে উঠেও শান্তি নেই!" কেন এমন বললেন কঙ্গনা?

কঙ্গনা

আমার নেগেটিভ রিপোর্ট (Kangana COVID19) আসার পরও যা যা হল...বলছেন অভিনেত্রী৷ দেখুন সেই ভিডিও

  • Share this:

#মুম্বই: অভিনেত্রী কঙ্গনা রানাওয়াতের (Kangana Ranaut) গত মাসের গোড়ার দিকে করোনা রিপোর্ট পজিটিভ আসে। অভিনেত্রী নিজেই Instagram পোস্ট করে এই খবর জানিয়েছেন। এরপর তিনি করোনা থেকে সুস্থ হওয়ার কথাও অনুরাগীদের সঙ্গে শেয়ার করেছেন। এবার একটি নতুন পোস্টে তিনি করোনা পরবর্তী দিনগুলিতে কীভাবে চলা উচিত সেই কথাই বলেছেন।

তিনি বলেন, "আমি করোনাভাইরাস থেকে সুস্থ হওয়ার অভিজ্ঞতা সম্পর্কে কথা বলতে এসেছি, আমি যখন আক্রান্ত ছিলাম সেই সময়ে আমার অভিজ্ঞতা অন্য রকম ছিল, আর আমি যখন এর থেকে ধীরে ধারে সুস্থ হয়ে উঠতে শুরু করি, তখন অন্য অভিজ্ঞতা হয়েছে, অসলে এটি একটি Fake Recovery। আমার নেগেটিভ রিপোর্ট আসার ঠিক একদিন পরে অমি অনুভব করেছি যে আমি আগের মতো - ওয়ার্কআউট এবং শ্যুট শিডিউল-এর জন্য প্রস্তুত, কিন্তু যখন আমি এই কাজগুলো করতে গিয়েছি, তখন বুঝতে পেরেছি আমি সুস্থ নই, আমাকে আবার রেস্ট নিতে হয়েছে”। কঙ্গনা এই কথাগুলো বলেই সকলকে সাবধান করেছেন এই ভাইরাস সম্পর্কে। করোনা থেকে সুস্থ হয়ে ওঠা সকলকেই সাবধানে থাকার পরামর্শ দিয়েছেন অভিনেত্রী।

৮ মে করোনা পরীক্ষা করিয়েছিলেন কঙ্গনা। Instagram পোস্টে কঙ্গনা লিখেছিলেন যে,"আমি নিজেকে কোয়ারেন্টাইন করে নিয়েছি৷ কোনও ধারণা নেই যে এই ভাইরাস কীভাবে আমার শরীর জুড়ে পার্টি করছে! তিনি আরও লেখেন যে, আমার খুব দুর্বল ও ক্লান্ত লাগছিল৷ চোখেও হাল্কা জ্বালা করছিল৷ হিমাচলে ফেরার কথা ছিল৷ তাই গতকাল করোনা পরীক্ষা করলাম৷ আজই রিপোর্ট পজিটিভ এল৷ তবে এই করোনাভাইরাস সাধারণ ফ্লু মাত্র৷ তবে একে আমি ধ্বংস করবো৷"

কিছুদিন আগে বিরর্কিত মন্তব্য করার জেরে Twitter থেকে সাসপেন্ড করা হয় কঙ্গনাকে৷ মূলত বিদ্বেষমূলক পোস্ট এবং সাধারণ মানুষের মধ্যে হিংসা ছড়ানোর অভিযোগে ওঠে তাঁর একের পর এক Twitter পোস্টে৷ জনপ্রিয় অভিনেত্রী হিসেবে তাঁর প্রভাব রয়েছে জনমানসে৷ তাই এমন উস্কানিমূলক পোস্টে সমস্যা তৈরি হতে পারে৷ এই অভিযোগের ভিত্তিতে তাঁর Twitter অ্যাকাউন্ট সাসপেন্ড করা হয়৷ কঙ্গনা-কে থালাইভি (Thalaivi) ছবিতে জে. জয়লালিতার (J. Jayalalithaa) চরিত্রে দেখা যাবে। করোনা পরিস্থিতির কারণে ছবিটির মুক্তি আপাতত স্থগিত করা হয়েছ।

Published by:Pooja Basu
First published: