Viral Video: পার্টিতে রেখাকে দেখে চিৎকার করে উঠলেন হেমা! কী হল দুই নায়িকার

কেন এভাবে রেখাকে দেখে চিৎকার করলেন হেমা৷ ভিডিও দেখলেই বুঝবেন৷

কেন এভাবে রেখাকে দেখে চিৎকার করলেন হেমা৷ ভিডিও দেখলেই বুঝবেন৷

  • Share this:

#মুম্বই: এক সময়ে বলিউড ইন্ডাস্ট্রি কাঁপিয়ে দিয়েছিলেন হেমা মালিনী (Hema Malin) ও রেখা (Rekha)। দুই অভিনেত্রীর সৌন্দর্যে ঘায়েল হয়েছেন বহু পুরুষ। আজকালকার অভিনেত্রীদের সম্পর্ক আদায়-কাঁচকলায়! সেই জায়গায় হেমা-রেখার সম্পর্ক কিন্তু দারুণ মধুর। তাঁদের মধ্যেকার বন্ধন কতটা শক্তিশালী তা একটি ভিডিও ক্লিপ দেখে আন্দাজ করা যাবে। ২০১৮ সালের একটি ভিডিও নতুন করে ভাইরাল হয়েছে নেট পাড়ায়। হেমা মালিনীর ৭০তম জন্মদিনের পার্টিতে গিয়েছিলেন রেখা। আরও অন্য অতিথিরাও সেদিন উপস্থিত ছিলেন। ভিডিও ক্লিপটিতে দেখা গিয়েছে রেখাকে দেখেই হেমা মালিনী ছোট বাচ্চাদের মতো চিৎকার করে ওঠেন, তাড়াতাড়ি এগিয়ে গিয়ে উষ্ণ আলিঙ্গন করেছেন। রেখা কোনও দিকে না তাকিয়ে একেবারে পা ছুঁয়ে হেমা মালিনীকে প্রণাম করছেন। একে অপরের প্রতি তাঁদের কতটা বন্ধুপ্রীতি, তা বুঝতে কারও অসুবিধা হয়নি।

গত বছর রেখার জন্মদিনে, হেমা মালিনী একটি সুন্দর নোট লিখেছিলেন। তাতে লেখা ছিল “রেখা তোমাকে জন্মদিনের অনেক শুভেচ্ছা, তুমি আমার অনেক দিনের বন্ধু, অমি সব সময় প্রর্থনা করি তুমি আনন্দে থাকো, শন্তিতে থাকো”। এই দুই অভিনেত্রী এক সঙ্গে একাধিক সিনেমায় কাজ করেছেন। যেমন, আপনে আপনে (Apne Apne), জান হাথেলি পে (Jaan Hatheli Pe), কেহতে হ্যায় মুঝকো রাজা ( Kahte Hain Mujhko Raja)। এছাড়াও ২০১৬-র লোকসভা নির্বাচনে হেমা মালিনীর হয়ে মথুরায় প্রচার করতে গিয়ে একটি গার্লস কলেজকে ৩৫ লক্ষ টাকা দান করেছিলেন রেখা।

১৯৬৩ সালে তামিল ছবি ইথু সাথিয়াম (Ithu Sathiyam) দিয়ে চলচ্চিত্র জগতে কাজ শুরু করেন হেমা মালিনী। এর পর তাঁকে সীতা অউর গীতা (Seeta Aur Geeta), শোলে (Sholay), দ্য বার্নিং ট্রেন (The Burning Train) সহ আরও হিট ছবিতে কাজ করতে দেখা যায়। ২০২০-তে সিমলা মিরচি (Shimla Mirchi) নামে একটি ছবিতে শেষ দেখা গিয়েছিল হেমা মালিনীকে। এই ছবিতে রাজকুমার রাও (Rajkummar Rao) কাজ করেছেন। ১৯৬৬ সালে তেলুগু ছবি রঙ্গুলা রত্নম (Rangula Ratnam) দিয়ে নিজের কেরিয়ার শুরু করেন রেখা। এর পর সিলসিলা (Silsila), উমরাও জান (Umrao Jaan), খুবসুরত (Khoobsurat) সহ বহু হিট ছবিতে দেখা গিয়েছে রেখাকে।

Published by:Pooja Basu
First published: