বিয়ে হয়ে গিয়েছে ফতিমা সানা শেখের? বিষাক্ত সম্পর্ক নিয়ে এ কী বললেন তিনি?

বিয়ে হয়ে গিয়েছে ফতিমা সানা শেখের? বিষাক্ত সম্পর্ক নিয়ে এ কী বললেন তিনি?

বিয়ে হয়ে গিয়েছে ফতিমা সানা শেখের? বিষাক্ত সম্পর্ক নিয়ে এ কী বলতে চেয়েছেন তিনি?

তিনিও এমন বিষাক্ত সম্পর্কে ছিলেন একসময়। যেখানে থেকে বেরোনো সহজ মনে হলেও বের হতে অনেকটা সময় লাগে।

  • Share this:

#মুম্বই: সম্পর্ক সব সময় অতিরিক্ত দু'টো ডানা দেয়, যার উপর ভর করে মানুষ আরও উঁচুতে উড়তে পারে। নিজের অনেক স্বপ্ন পূরণ করতে পারে। কাছের মানুষটি সেই স্বপ্ন পূরণেই সাহায্য করে। এমন সম্পর্ক অনেক কমই হয়। আজও বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই মহিলাদের নিচু করা, দমিয়ে রাখা বা গুরুত্ব না দেওয়ার মানুষ রয়েছে। ফলে এমন মানুষের সঙ্গে সম্পর্ক হলে তা খুব একটা সুখকর হয় না। দেশে বহু মহিলা আছেন, যাঁরা এই সমস্যায় ভুগছেন। অনেকে বেরিয়ে আসতে পারেন অনেকে পারেন না। আর সাধারণ মহিলারাই শুধু নন, এমন সম্পর্ক থেকে বাদ যান না সেলেবরাও।

সম্প্রতি নিজের এমনই এক বিষাক্ত সম্পর্কের কথা, অভিজ্ঞতা ভাগ করে নিলেন অভিনেত্রী ফতিমা সানা শেখ (Fatima Sana Shaikh)। নিজের অভিনীত চরিত্রের কথা বলতে গিয়ে তিনি জানান, তিনিও এমন বিষাক্ত সম্পর্কে ছিলেন একসময়। যেখানে থেকে বেরোনো সহজ মনে হলেও বের হতে অনেকটা সময় লাগে। এবং লেগেছে।

সম্প্রতি আজীব দাসতানস (Ajeeb Daastaans)-এ শশাঙ্ক খৈতানের (Shashank Khaitan) পরিচালিত অংশে মঞ্জুর চরিত্রে অভিনয় করেছেন তিনি। জয়দীপ আলহাওয়াতের (Jaideep Ahlawat) বিপরীতে এই সিনেমায় তাঁকে এক অসন্তুষ্ট সম্পর্কে থাকা স্ত্রীর ভূমিকায় দেখা গিয়েছে। যেখানে শুধুমাত্র রাজনৈতিক স্বার্থ চরিতার্থ করার জন্য তাঁর বিয়ে হয়েছিল। Bollywood Life-কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে ফতিমা জানান, এর আগে তিনি অনুরাগ বসু (Anurag Basu)-র লুডো (Ludo)-তে কাজ করেছেন। যেখানে তাঁর চরিত্র ছিল এক মহিলার, যিনি তাঁর স্বামীকে অত্যন্ত ভালবাসেন এবং তাঁর উপরই নির্ভরশীল। স্বামীর অন্য সম্পর্ক থাকা সত্ত্বেও তাঁর সঙ্গে ঘর করতে বদ্ধপরিকর ছিলেন তিনি।

কিন্তু আদতে ব্যক্তিগত ভাবে একেবারেই এমন নন অভিনেত্রী। নিজে যে ভাবে অন্য ধারার ছবি করে নিজের জায়গা তৈরি করেছেন বলিউডে, তেমনই মানসিকতার দিক থেকেও একেবারেই অন্যরকম তিনি। এই জায়গাও বেশ খানিকটা কঠোর। অর্থাৎ কেউ যদি তাঁকে অপমান করে, ছোট করে মহিলা হিসেবে, তা সে সঙ্গী হোক, তাঁকে মারতেও পারেন তিনি। যদিও এই সানাই ছিলেন বিষাক্ত সম্পর্কে। তিনি সাক্ষাৎকারে বলেন, আমিও এমন সম্পর্কে ছিলাম। এটা বলা খুব কঠিন আমি এটা করে নেব, ওটা করে নেব। যদি সত্যিই কখনও এমন সম্পর্কে কেউ থাকে, তা হলে সে বুঝবে একজন মানুষ কী পরিস্থিতির মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে বা যেতে হয়। বিশেষ করে যখন কেউ কোনও কাজ করে না বা স্বামীর উপর নির্ভরশীল, তখন খারাপ বিবাহিত জীবন থেকে বেরিয়ে আসা খুবই কঠিন। আর এই মন্তব্য ঘিরেই শুরু হয়েছে জলঘোলা। ফতিমা কি তাহলে এমন কোনও বৈবাহিক সম্পর্কে ছিলেন? নায়িকা এখনও পর্যন্ত এই কৌতূহল মেটানোর প্রয়োজন বোধ করেননি!

প্রসঙ্গত, আজীব দাসতানস, প্রযোজনা করেছেন করণ জোহর (Karan Johar) এবং পরিচালনার দায়িত্বে ছিলেন কায়োজি ইরানি (Kayoze Irani), নীরাজ ঘায়ওয়ান (Neeraj Ghaywan), শশাঙ্ক খৈতান ও রাজ মেহতা (Raj Mehta)।

ফতিমা ছাড়াও এতে বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে দেখা গিয়েছে নুসরত ভারুচা (Nushrratt Bharuccha), অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় (Abhishek Banerjee), কঙ্কণা সেন শর্মা (Konkona Sen Sharma), অদিতি রাও হায়দারি (Aditi Rao Hydari), শেফালি শাহ (Shefali Shah) ও মানব কলকে (Manav Kaul)।

Published by:Simli Raha
First published:

লেটেস্ট খবর