‘আবারও আমি আদর্শ প্রেমিক’, তুহিনার সঙ্গে রোম্যান্স করবেন ‘মনের মানুষ’-এর দেবতনু

তুহিনার সঙ্গে এক ফ্রেমে দেবতনু । নিজস্ব চিত্র ।

তা হলে কি দেবতনু (DevTanu) সব জায়গাতেই আদর্শ প্রেমিক ? রিয়েল লাইফে কতটা ? উত্তর দিলেন ‘অপরাজিতা’র সাহেব ।

  • Share this:

#কলকাতা: বাবা-মেয়ের জটিল সম্পর্কের রসায়ন । আর তারই মাঝে গালের খাঁজে রাখা এলাচ দানার মতো, আদর্শ প্রেমিক হয়ে ঢুকে পড়েছেন গল্পের নায়ক দেবতনু (DevTanu) । গত বছর পুজোর সময় যাঁর ‘মনের মানুষ’ (Moner Manush) তুমুল ভাইরাল হয়েছিল সোশ্যাল মিডিয়ায় । সেখানেও তিনি ছিলেন মেয়েদের চোখে ‘আইডিয়াল বয়ফ্রেন্ড’ ।

আসছে নতুন ছবি ‘অপরাজিতা’ (Aparajita)। রোহন সেনের এই ছবিতে শান্তিলাল মুখোপাধ্যায় (Shantilal Mukherjee)-এর মেয়ে হয়েছেন তুহিনা দাস (Tuhina Das) । তিনিই নাম ভূমিকায় । তুহিনার বয়ফ্রেন্ড দেবতনু । তুহিনা শান্তিলাল ছাড়াও ছবিতে রয়েছেন অমৃতা দে, দেবতনু ও রানা বসু ঠাকুর ৷ সবে শেষ হয়েছে ছবির শ্যুটিং । এখন চলছে পোস্ট প্রোডাকশন ।

গল্পের নায়ক দেবতনু নিউজ১৮ বাংলার সঙ্গে কথা বললেন তাঁর চরিত্র নিয়ে । গত বছরের ‘মনের মানুষ’-এর পর থেকেই তিনি ইন্ডাস্ট্রিতে বেশ পোক্ত জায়গা বানিয়েছেন নিজের । তাঁর ‘ফ্ল্যাটমেট’ মুক্তি পেয়েছে সদ্য । এখন হাতে রয়েছে রাজা চন্দ’র ‘কাটাকুটি’ আর ‘অপরাজিতা’ । পুজোর পর হয়তো আরও একটি ফিউজারিস্টিক ওয়েব ছবিতে দেখা যাবে দেবতনু’কে । পরিচালক অভিষেক চৌধুরি ।

কেমন লাগল ‘অপরাজিতা’য় কাজ করে? দেবতনু’কে মুঠোফোনে ধরতেই উচ্ছ্বাস তাঁর গলায় । জানালেন, ‘অনেক অভিজ্ঞ অভিনেতাদের সঙ্গে কাজ করলাম । অনুভূতিটাই আলাদা । অনেক কিছু শেখা যায় । এই চরিত্রটা একেবারে প্রেমিক চরিত্র । যেমন বয়ফ্রেন্ড মেয়েরা চায় ।’

তা হলে কি দেবতনু সব জায়গাতেই আদর্শ প্রেমিক ? রিয়েল লাইফে কতটা ? এই প্রশ্নে অবশ্য সাবধানে পা ফেললেন অভিনেতা । প্রচণ্ড হাসতে হাসতে তাঁর উত্তর, ‘সেটা তো ক্রমশ প্রকাশ্য । আমি আদর্শ কিনা সেটা তো আমি বলতে পারি না । আর আদর্শ হওয়াটা একেক জনের কাছে একেক রকম । জীবনের শর্ত গুলো মিলে গেলে তবেই তো আদর্শ হওয়া যায় । তবে আমি আদর্শ প্রেমেই বিশ্বাস করি । আজ আছি, কাল নেই...এটা ঠিক হজম হয় না ।’

এ ছবির পরিচালক রোহন সেন । দেবতনু’কে ফোন করে হঠাৎই একদিন অফারটা দেন রোহন । ‘পরিচালকের চোখ দিয়ে দেখেই গল্পটাকে ভালবেসে ফেলেছিলাম । ২১ বছরের ছোট্ট পরিচালক । সবে ইন্ডাস্ট্রিতে এসেছে রোহন । কিন্তু ওঁর চিন্তাভাবনা কী প্রচণ্ড ক্লিয়ার । ওঁর মুখ থেকে গল্পটা শুনে আর না করতে পারিনি’’, এমনটাই জানালেন দেবতনু । তবে ইন্ডাস্ট্রিতে কারও সঙ্গে প্রতিযোগিতায় তিনি বিশ্বাস করেন না। নিজে নতুন, আলাদারকম, ভাল ভাল কাজ করে যেতে চান শুধু, অকপট জানালেন অভিনেতা ।

‘অপরাজিতা’র গল্প বেশ জটিল আর সূক্ষ সম্পর্কের রসায়নের উপর ভিত্তি করে তৈরি । বাবা আর মেয়ের সম্পর্ক ভাল নয় । তাঁদের মধ্যে কোনও কথা হয় না । শুধু একটা ডায়রির মাধ্যমে তাঁরা একে অপরের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করে চলে । অপরাজিতা একজন স্বাধীন মহিলা যে একটি কর্পোরেট কোম্পানিতে চাকরি করে। অপরাজিতার একটি সম্পর্ক রয়েছে। বয়ফ্রেন্ডের কাছে সে তাঁর রাগ , দুঃখ, অভিমান প্রকাশ করতে পারে। দেবতনু’র নাম এখানে ‘সাহেব’ ।

অপরাজিতার বড় দিদি বিদেশে থাকে । সাহেব বা তাঁর দিদি কেউই অপরাজিতার সঙ্গে তাঁর বাবার সম্পর্ক ঠিক করতে পারে না। গল্প যত এগোয় বাবা-মেয়ের সম্পর্ক তত জটিল হয়ে উঠতে থাকে ৷ শেষমেশ এই সম্পর্কের পরিণতি কী হয়, তা নিয়েই এই ছবি।

Published by:Simli Raha
First published: