মানালিতে চোখধাঁধানো ম্যানসন কঙ্গনার, দেখুন অন্দরমহল...

জন্মদিনে ঘুরে দেখা যাক কঙ্গনার মানালির ম্যানসন, জাঁকজমক চমকে দেবে!

যখন বলিউডে জায়গা শক্ত হল, হাতে টাকা এল, সেই সময় থেকে নিজের বড় হয়ে ওঠার জায়গায় একটা বাড়ি তৈরিতে হাত দিয়েছিলেন নায়িকা।

  • Share this:
#মুম্বই: আজ ৩৪ বছরে পা রেখেছেন বলিউডের রুপোলি পর্দার ক্যুইন। তাহলে কি ৬৭তম জাতীয় পুরস্কারে সেরা অভিনেত্রীর তকমা পাওয়াটাকে তাঁর জন্মদিনের উপহার বলা যায়? এই নিয়ে বিতর্ক থাকতেই পারে। কিন্তু কঙ্গনা রানাউত (Kangana Ranaut) যে নিজের যোগ্যতায় খেটে-খুটে বলিউডে পায়ের নিচে মাটি শক্ত করেছেন, সে নিয়ে কোনও বিতর্ক থাকতেই পারে না। নানা সময়ে নানা ঘটনাকে কেন্দ্র করে বলিউডের তাবড় তাবড় ব্যক্তিত্বদের আক্রোশের মুখে পড়েছেন তিনি, কিন্তু সব সমালোচনার জবাব দিয়েছেন নিজের কাজ দিয়ে। কঙ্গনার বাড়ি কঙ্গনার বাড়ি উত্তরাখণ্ডের মানালির মেয়ে কঙ্গনা। যখন বলিউডে জায়গা শক্ত হল, হাতে টাকা এল, সেই সময় থেকে নিজের বড় হয়ে ওঠার জায়গায় একটা বাড়ি তৈরিতে হাত দিয়েছিলেন নায়িকা। জানিয়েছিলেন সংবাদমাধ্যমকে যে বাড়িটা একটু বড় করেই তৈরি করতে চান। যাতে তাঁর বিশাল পরিবারের সকলে হাত-পা মেলে আনন্দের জীবন কাটাতে পারে। তাঁর মানালি ম্যানসনের কাঠের দরজা সেই জাঁকজমকেরই ইঙ্গিত দিচ্ছে। সেই সঙ্গে ধরিয়ে দিয়েছে বরফে মোড়া পাহাড়ি এলাকার অভিজাত বাসভবনের দৃষ্টিনন্দন দিকটি। কঙ্গনার বাড়ি কঙ্গনার বাড়ি পাহাড়ের কোলে যে খেলে বেড়ায় আকাশের নীলের হরেক শেড, তার সঙ্গে পাল্লা দিয়েই সেজে উঠেছে কঙ্গনার মানালির এই বাড়ি। হোম ডেকোরেশনে মূলত ঘন নীল, সাদা আর প্যাস্টেল শেডকেই প্রাধান্য দিয়েছেন নায়িকা। যা নিঃসন্দেহেই চোখ জুড়িয়ে দেয়। সেই সঙ্গে তৈরি করে দেয় এক সুখী গৃহকোণের আমেজ। সেই সঙ্গে কাচ দিয়ে মোড়া অজস্র জানলা সুনিশ্চিত করে ফুরফুরে রোদের আনাগোনা। মানালির বাড়ি থেকে নানা সময়ে নিজের নানা ছবি পোস্ট করে থাকেন কঙ্গনা। আর সেই সূত্র ধরে আমরা একু একটু করে বাড়ির অন্দরমহলের সঙ্গে পরিচিত হই। এখানে যেমন আমরা কাঠের মেঝেওয়ালা বাড়িটার বারের এক ঝলক দেখছি! নানা পানপাত্র, বোতল আর ঝাড়লন্ঠনের কোলাজে কঙ্গনার বাড়ি যেন কাচের স্বর্গ! কঙ্গনার বাড়ি কঙ্গনার বাড়ি শুধু সামনে বা ভিতর থেকেই নয়, পাখির চোখে দেখলেও কঙ্গনার এই ম্যানসন বিস্ময় জাগায়! ৭৬০০ স্কোয়ার ফুটের এই বাড়িতে রয়েছে ৭টা শোওয়ার ঘর এবং ৭টা স্নানের ঘর। সবুজের সমারোহের মাঝে এই প্রাসাদ যেন ক্যুইনের আভিজাত্যেরই প্রতীক!
First published: