Home /News /entertainment /
Aparajito: "অ্যাকশন আর কাটের মাঝে গায়ে কাঁটা দিত, সত্যিই পথের পাঁচালীর দুর্গা আমি!" আবেগতাড়িত অনুষা বিশ্বনাথন

Aparajito: "অ্যাকশন আর কাটের মাঝে গায়ে কাঁটা দিত, সত্যিই পথের পাঁচালীর দুর্গা আমি!" আবেগতাড়িত অনুষা বিশ্বনাথন

Interview of Anusha Viswanathan: পদবীর ভার বয়ে বেড়ানোর চাপ রয়েছে তাঁর কাঁধে৷ সঙ্গে কেরিয়ারের শুরু দিকে এমন ছবির সঙ্গে নাম জুড়ে যাওয়া, নিঃসন্দেহে প্রত্যাশার পারদ চড়াবে৷

  • Share this:

ছবি মুক্তির পর থেকে দম ফেলার সময় নেই তাঁর হাতে৷ ঘনঘন ফোন৷ কখনও বন্ধু-আত্মীয়রা প্রশংসা জানাচ্ছেন, তো কখনও সাংবাদিকদের প্রশ্ন ভেসে আসছে ফোনের ওপার থেকে৷ ফিল্মি ব্যাকগ্রাউন্ডে বড় হওয়া অনুষা বিশ্বনাথন (Anusha Viswanathan) যেন এখনও রয়েছেন এক অদ্ভুত ঘোরে৷ অপরাজিত (Aparajito) ছবির দুর্গা, থুড়ি উমা তিনি৷ "ছোট থেকে বাড়িতে প্রচুর ছবি দেখেছি, দাদু-বাবা-মায়ের সঙ্গে ছবি নিয়ে আলোচনা হত"৷ তবে কাজের শুরুতেই এমন একটা বাংলা ছবির অংশ হতে পেরে, খুবই উচ্ছ্বসিত অশোক বিশ্বনাথন-মধুমন্তী মৈত্রের সুকন্যা অনুষা বিশ্বনাথন৷

অনীক দত্তের অপরাজিত নিয়ে জয়জয়কার পড়ে গিয়েছে৷ মুক্তি পেতেই শনি-রবিবার প্রায় সব হলের সামনে ঝুলেছে হাউজফুল নোটিশ৷ খুবই খুশি কলাকুশলীরা৷ "নিয়মিত কথা হচ্ছে অনীকদা-জিতুদার সঙ্গে৷ হল ভিজিট চলছে আমাদের"৷ জানালেন অনুষা৷ "যে সময় ছবিটা আসে আমার কাছে, খুব নার্ভাস ছিলাম৷ তবে এক্সাইটেডও ছিলাম৷ পথের পাঁচালীর যে সব দৃশ্যগুলো তৈরি করা হয়েছে, এবং দুর্গার যে উপস্থিতি ছবিতে, সেগুলি বারবার করে দেখতে শুরু করি৷ সব ভিডিও ফোনে সেভ করে রেখেছিলাম৷ বারবার দেখতাম৷ এমনভাবে দেখতাম যেন সিনগুলো আমার মাসল মেমরিতে ঢুকে যায়"৷ একটানা বলে গেলেন অনীক দত্তের ছবি উমা৷

শুধু দুর্গার চরিত্রে অভিনয় করা নয়, যেভাবে সমান্তরাল গতিতে এগিয়েছে বাস্তব আর রিলের গল্প, সেটা বেশি আকর্ষণীয় সকলের কাছে, বলছেন অনুষা৷ কারণ তিনি নিজেও মজা পেয়েছেন এভাবে অভিনেত্রীর চরিত্রে নিজেকে ফুটিয়ে তুলতে পেরে৷ তাঁর কথায় "বিটিএস (বিহাইন্ড দা সিন) গুলি বেশি প্রভাব ফেলেছে৷ ছবির মধ্যে ছবি তৈরি, এবং কীভাবে সেই গল্পগুলো এগোচ্ছে, সেটা বেশ চমকপ্রদ"৷

শ্যুটিং-এর সময় কখনও টাইম মেশিনে চড়ে সময়টা পিছিয়ে দিতে ইচ্ছে করেছে? অনুষা বলছেন "তেমন সুযোগ খুব একটা তৈরি হয়নি৷ কারণ সেটে পরিচালক অনীকদা খুব অ্যাকটিভ৷ সবসময় নির্দেশ দিচ্ছেন তিনি৷ তবে অ্যাকশন আর কাটের মাঝে বেশ গায়ে কাঁটা দিত", স্বীকার করেছেন অভিনেত্রী৷ আর সত্যজিতের চরিত্রে যে জিতুকে নিয়ে এত চর্চা, সেই জিতুর মধ্যে সত্যিই যেন বরেণ্য পরিচালকের ছায়া দেখতে পেয়েছিলেন অনুষা৷ "সেটে ব্রেকের সময় কখনও জিতুদা পাজামা-পাঞ্জাবি পরে হেঁটে যেত, বেশ গা ছমছম করত৷ ক্ষণিকের জন্য সত্যজিত রায় বলে মনে হত!" মানছেন অনুষা৷

ছবিতে তাঁর অভিনয় দর্শকদের ভাল লেগেছে জানতে পেরে খুব খুশি বিশ্বনাথন বাড়ির তৃতীয় প্রজন্মের৷ পদবীর ভার বয়ে বেড়ানোর চাপ রয়েছে তাঁর কাঁধে৷ সঙ্গে কেরিয়ারের শুরু দিকে এমন ছবির সঙ্গে নাম জুড়ে যাওয়া, নিঃসন্দেহে প্রত্যাশার পারদ চড়াবে৷ আপাতত অপরাজিত হিট হওয়া নিয়ে আনন্দে থাকতে চান তিনি৷ সঙ্গে আরও কিছু কাজ রয়েছে হাতে, তাতে মনোনিবেশ করতে চান৷

আরও পড়ুন Aparajito: অপরাজিতর মতো ছবি বানাতে সাহস লাগে! সত্যজিতের ভূমিকায় জিতু কেমন, কী বলছেন সায়নী

পথের পাঁচালী যাঁরা হলে দেখা সুযোগ পেয়েছিলেন, তাঁরা আবারও সেই ছবি তৈরির গল্প চাক্ষুষ করতে পারবেন৷ আর যাদের পথের পাঁচালীর কোনও অভিজ্ঞতা নেই, নতুন প্রজন্মের অনেকে জানতে পারবেন সেই গল্প৷ বাংলা ছবির ধারা, পরিচালক সত্যজিত রায়কে চেনার সুযোগ পাবেন অপরাজিত ছবির মাধ্যমে৷ ছবিটার মাধ্যমে একটা সময়কে তুলে ধরা হয়েছে৷ বিশ্বের দরবারে বাংলা ছবি পৌঁছনোর ইতিহাস উঠে আসবে, বাঙালি আবেগ এবং নস্টালজিয়ায় ডুব দেবেন এই ছবি দেখে৷ বলছেন অনুষা৷ আপাতত অভিনেত্রী হিসেবে এই সময়টা তিনিও উপভোগ করতে চান৷ "সবাই ভাল বলছে, বড় বড় রিভিউ লেখা হচ্ছে, এর থেকে আনন্দের কী হতে পারে"৷ বলেই দিলেন হাসিখুশি ছটফটে যুবতী৷

Published by:Pooja Basu
First published:

Tags: Anusha Viswanathan, Aparajito, Tollywood

পরবর্তী খবর