Home /News /education-career /
Higher Secondary 2022 : বিকেলে ফল বিক্রেতা, সকালে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থী! বড় হওয়ার স্বপ্ন দেখে আশিক

Higher Secondary 2022 : বিকেলে ফল বিক্রেতা, সকালে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থী! বড় হওয়ার স্বপ্ন দেখে আশিক

বিকেলে ফল বিক্রেতা, সকালে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থী! বড় হওয়ার স্বপ্ন দেখে আশিক

বিকেলে ফল বিক্রেতা, সকালে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থী! বড় হওয়ার স্বপ্ন দেখে আশিক

Higher Secondary 2022 : মুর্শিদাবাদ জেলার খড়গ্রাম ব্লকের নগর হাজরাবাটি গ্রামের বাসিন্দা আশিক হোসেন। নগরের আজিজা স্মৃতি উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র আশিক পড়ে কলা বিভাগে।

  • Share this:

    #মুর্শিদাবাদ: জীবনের রঙ্গমঞ্চে আশিক হোসেনের ভূমিকা ফল বিক্রেতার। প্রতিদিনের জীবনে সে ভূমিকা বড় কঠিন বাস্তব। কিন্তু খিদের জন্য দুবেলা অন্ন সংস্থানের কাজ করতে করতেও সে স্বপ্ন দেখে অন্য কিছু করার। চেষ্টা করে স্বপ্নকে সাকার করতে। আর সেই স্বপ্নের উড়ানে ভর দিয়ে সে এবছরের উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থী।

    মুর্শিদাবাদ জেলার খড়গ্রাম ব্লকের নগর হাজরাবাটি গ্রামের বাসিন্দা আশিক হোসেন। নগরের আজিজা স্মৃতি উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র আশিক পড়ে কলা বিভাগে। পড়ার সঙ্গে সঙ্গেই চলে তার জীবনের লড়াই। অসম সেই লড়াই কে হার মানিয়ে এগিয়ে চলেছে আশিক। গত শনিবার থেকে শুরু হয়েছে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা। সংসারের গুরু দায়িত্ব মাথায় নিয়ে ফল বিক্রি করে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা দিচ্ছে আশিক হোসেন।

    পাঁচ বছর আগে মৃত্যু হয়েছে বাবার। সংসারের একমাত্র রোজগেরে মানুষের মৃত্যু নড়বড়ে করে দিয়েছিল পায়ের তলার ভিত। বাধ্য হয়েই সংসারের জোয়াল কাঁধে তুলে নেয় সে। নগর বাজারেই ফলের ব্যবসা শুরু করে আশিক। শুধু মায়ের দায়িত্ব নয়, কাকা কাকিমার দায়িত্বও আশিকের কাঁধে। মা তুহিনা বেগমের একমাত্র সন্তান আশিক সমস্ত রকমের প্রতিকূলতাকে দূরে সরিয়ে রেখে, শুধু নিজের অদম্য ইচ্ছাকে কাজে লাগিয়ে পড়াশোনা করে চলেছে।

    আরও পড়ুন- কোমর থেকে পা পুরোটাই অচল! প্রতিবন্ধকতাকে দূরে ঠেলে চাকরির স্বপ্ন দেখে উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার্থী মুজিবুর

    মাটির বাড়ি, খড়ের চাল। দিন আনা দিন খাওয়া সংসারে আশিকই একমাত্র রোজগেরে ছেলে। ফল বিক্রি করে যে অর্থ উপার্জন হয় তাই দিয়েই চলে সংসার। আর তার লড়াই এবছর উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা দেওয়ার। তার লড়াইয়ে সে পাশে পেয়েছে স্কুলের শিক্ষকদেরও। সারা দিন পরীক্ষার পরে বিকেলে ফল বিক্রি, আর সন্ধ্যা হলেই বাড়ি ফিরে পড়াশুনো। আর্টস নিয়ে পড়লেও তার ইচ্ছা সেনা বাহিনীতে যোগদান করার।

    শুধু জন্ম দাত্রী মা নয়, দেশমাতৃকার জন্যও অসীম ভালোবাসা আশিকের। তাই দু'চোখ ভরে স্বপ্ন দেখে সে ভবিষ্যতে দেশের হয়ে কাজ করবে। তার শিক্ষকরাও চান, স্বপ্ন সাকার হোক আশিকের। দেশের ভবিষ্যৎ এগিয় চলুক আশিকের হাত ধরে।

    Published by:Swaralipi Dasgupta
    First published:

    Tags: Higher Secondary 2022

    পরবর্তী খবর