ফাঁসি হচ্ছেই,কেঁদে ভাসালো নির্ভয়ার ধর্ষক বিনয়,বাবাকে বলল জড়িয়ে ধরতে

ফাঁসি হচ্ছেই,কেঁদে ভাসালো নির্ভয়ার ধর্ষক বিনয়,বাবাকে বলল জড়িয়ে ধরতে

কিছুতেই সেই কান্না থামানো যায়নি৷ এমনকি এক সময় বাবাকে বলে, জড়িয়ে ধরো আমায়

  • Share this:

#নয়াদিল্লি:  নির্ভয়াকাণ্ডে দোষীদের ফাঁসির সাজা বহাল থাকল৷ দিল্লির আদালত দোষীদের ফাঁসির দিন নির্ধারিত করার পর বিনয় ও মুকেশ কিউরেটিভ পিটিশনের জন্য আবেদন জানায়৷ কিন্তু সেই আবেদনও খারিজ হয়ে যায়৷ তাই ২২শে জানুয়ারী নির্ভয়াকাণ্ডের দোষীদের ফাঁসি হচ্ছেই, তা একপ্রকার নিশ্চিত৷ মঙ্গলবার এই খবর সামনে আসতেই কান্নায় ভেঙে পড়ে বিনয় শর্মা৷ তিহার জেল সূত্রের খবর কিউরেটিভ পিটিশন খারিজের পর বাবার সঙ্গে দেখা করে সে৷ জেলের অফিসেই দেখা হয় তাদের৷ এবং সেখানেই বাবা সামনে কেঁদে ফেলে বিনয়৷ ফাঁসী হতে চলেছে তার, এটা কিছুতেই মানতে পারেনি সে৷ তাই নিজের কাছের মানুষকে সামনে পেয়ে অঝোরে কাঁদতে থাকে বিনয়৷ কিছুতেই সেই কান্না থামানো যায়নি৷ এমনকি এক সময় বাবাকে বলে, জড়িয়ে ধরো আমায়৷

আরও পড়ুনঘর থেকে টেনে নিয়ে গিয়ে মূক-বধির যুবতীকে ধর্ষণের অভিযোগ

ফাঁসির দিন ঘোষণা হওয়ার পর তিহার জেলের ৪ নম্বর কসুরি ওয়ার্ডের সরিয়ে নিয়ে আসা হয় নির্ভয়কাণ্ডের দোষীদের৷ জেল সূত্রের খবর যে বাবার সঙ্গে দেখা করার সময় দু’বার ভারসাম্য হারিয়ে ফেলেন বিনয়৷ যদিও জেল কর্তৃপক্ষ তাকে সামলে নেন৷

জেলের যে ঘরে থাকার ব্যবস্থা করা হয়েছে নির্ভয়ার ধর্ষকদের সেখানে টিভি রয়েছে৷ মঙ্গলবার দিনভর সেই টিভিতে নজর ছিল৷ বিনয় ও মুকেশের কিউরেটিভ পিটিশন যে নাকচ হয়েছে, টিভিতেই সেই খবর দেখে তারা৷ খবর দেখার পর মুকেশও ভেঙে পড়ে৷ তবে পবন ও অক্ষয় শান্তই ছিল৷ জেল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে যে ৪জনই ঠিক মতো খাওয়াদাওয়া করছে৷ জেলের কর্তৃপক্ষের সঙ্গে তারা কথা বলছে না৷ এমনকি নিজেদের মধ্যেই কোনও কথা হচ্ছে না তাদের৷ দোষীদের যে দু’জন কিউরেটিভ পিটিশন দাখিল করেছিল সেই বিনয় ও মুকেশ রাতে ঘুমোতে পারছে না৷ সব ঠিক থাকলে ২২ জানুয়ারী সকাল ৭টায় তিহার জলে ফাঁসী হবে তাদের৷

First published: January 15, 2020, 10:20 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर