ক্রাইম

corona virus btn
corona virus btn
Loading

‘একদিন সবার থেকে হিসেব নেব’ - গ্যাংস্টার স্বামীর শেষকৃত্যে এসে যা বললেন বিকাশের স্ত্রী রিচা

‘একদিন সবার থেকে হিসেব নেব’ - গ্যাংস্টার স্বামীর শেষকৃত্যে এসে যা বললেন বিকাশের স্ত্রী রিচা

গ্যাংস্টার স্বামীর শেষকৃত্যে এসে সংবাদমাধ্যমকে অকথা ভাষায় গালিগালাজ বিকাশ দুবের স্ত্রী -র

  • Share this:

#কানপুর : উত্তরপ্রদেশের মোস্ট ওয়ান্টেড অপরাধী বিকাশ দুবেকে উত্তরপ্রদেশের এসটিএফ এনকাউন্টারে মেরে ফেলেছে ৷ কানপুরের ভ্যাঁয়সা কুন্ডে স্বামীর শেষকৃত্যের সময় এসে সংবাদমাধ্যমের ওপর প্রচণ্ড ক্ষোভ উগড়ে দিলেন বিকাশ দুবের স্ত্রী ৷ সংবাদমাধ্যমের কর্মীদের ওপর অকথ্য গালাগালি দিতে দিতে তিনি জানিয়ে দেন, ‘ সকলের থেকে হিসেব নেব৷’

মিডিয়ার ক্যামেরার সামনে অবশ্য সরাসরি আসননি তিনি ৷ দূর থেকেই মিডিয়াকে একহাত নেন বিকাশ দুবের স্ত্রী রিচা ৷ বিকাশ দুবের শব সন্ধ্যা সওয়া সাতটায় ভৈরব ঘাট বিদ্যুৎবাহিত শবাগারে পৌঁছন ৷ সেখানেই হিস্ট্রিশিটারের শেষকৃত্য সমাধা হয় ৷ পুলিশের উপস্থিতিতে এই শবদাহ অনুষ্ঠানে হাজির ছিলেন বিকাশের স্ত্রী ও পরিবারের একদম কাছের ব্যক্তিরা ৷

এর আগে উত্তরপ্রদেশ পুলিশের ৮ জনকে এনকাউন্টারে মারার মূল অভিযুক্ত বিকাশ দুবে শুক্রবার সকালে কানপুরের কাছেই মারা যায়৷ উত্তরপ্রদেশের এসটিএফ -র গাড়ি উল্টে যাওয়ার পর সে এক পুলিশের পিস্তল নিয়ে পালানোর চেষ্টা করে ৷সে সময় তাকে আত্মসমর্পণ করার কথা বলা হয় ৷ কিন্তু গ্যাংস্টার দুবে সে সময় পুলিশের ওপর গুলি চালাতে শুরু করেছিল ৷ পুলিশের পাল্টা ফায়ারিংয়ে সে মারা যায় ৷

এরপর বিকাশ দুবের দেহ হৈলট হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় , সেখানেই তার পোস্টমর্টেম করা হয় ৷ কিন্তু এরপর যখন শবদেহ পরিবারের হাতে তুলে দেওয়ার কথা বলা হয় তখন বিকাশের পরিবার তাঁদের খুনী ছেলের মৃতদেহ নিতে অস্বীকার করে ৷  পুলিশ বিকাশ দুবের বউকে ডেকে ঘণ্টার পর ঘণ্টা জেরা করেছিল ৷ কানপুর এনকাউন্টারে তার কোনও যোগসাজশ আছে কিনা তা খতিয়ে দেখা হচ্ছিল ৷ তবে এই জেরায় তাঁকে নির্দোষ পাওয়ায় তাঁকে ছেড়ে দেওয়া হয় ৷ এই জেরার সময় বিকাশের স্ত্রী-র সঙ্গে তাঁর নাবালক পুত্র সন্তানও ছিল ৷

মেডিক্যাল কলেজের প্রিন্সিপাল  চিকিৎসক জানিয়েছে গ্যাংস্টার বিকাশ দুবের বুকে তিনটি গুলি লেগেছিল ৷ এছাড়াও একটা গুলি হাতে লেগেছিল ৷ তিনি আরও জানিয়েছেন বিকাশ দুবেকে মৃত অবস্থায় হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় ৷ এরপর তার করোনা পরীক্ষাও করা হয়৷ বিকাশ দুবের এনকাউন্টারের সময় ২ জন পুলিশ আধিকারিকও আহত হয়েছেন৷ তাদের চিকিৎসা চলছে ৷

এদিকে এর আগে  গ্যাংস্টার বিকাশ দুবের এনকাউন্টার নিয়ে একাধিক প্রশ্নের মুখে পড়তে হচ্ছে উত্তর প্রদেশ পুলিশকে৷ কানপুরের ডনের সঙ্গে পুলিশের এনকাউন্টারের কিছুক্ষণ আগেই কেন সংবাদমাধ্যমকেও পুলিশের কনভয়কে ধাওয়া করা থেকে আটকানো হল, তা নিয়েও প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে৷

বৃহস্পতিবার মধ্যপ্রদেশের উজ্জয়িনী থেকে গ্রেফতার করা হয় বিকাশ দুবেকে৷ রাতেই সড়কপথে বিকাশ দুবেকে নিয়ে কানপুরের উদ্দেশ্যে রওনা দেয় পুলিশ৷ কড়া নিরাপত্তার মধ্যে নিয়ে আসা হচ্ছিল বিকাশকে৷ পুলিশের কনভয়ে ছিল বেশ কয়েকটি গাড়ি৷ বিকাশ দুবেকে নিয়ে পুলিশ ফেরায় ওই কনভয়ের পিছু নিয়েছিল কয়েকটি সংবাদমাধ্যমের গাড়িও৷

অভিযোগ, ভোর সাড়ে ৬টা নাগাদ কানপুরের সাচেন্ডি এলাকায় হঠাৎই সংবাদমাধ্যমের গাড়ি আটকে দেয় পুলিশ৷ ফলে তারা আর বিকাশ দুবেকে নিয়ে যাওয়া কনভয়ের পিছু নিতে পারেনি৷ এর কিছুক্ষণের মধ্যেই এনকাউন্টারের ঘটনা ঘটে৷ ঝাঁসিতেও সংবাদমাধ্যমের গাড়ি পুলিশ আটকে দেয় বলে খবর৷ এনকাউন্টারের ঠিক আগে কেন এভাবে সংবাদমাধ্যমের গাড়ি পুলিশ আটকাল, তা নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে৷ ইতিমধ্যেই এনকাউন্টারের সত্যতা নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন বিরোধীরা৷ ফলে ঘটনার সাক্ষী না রাখতেই সংবাদমাধ্যমকে আটকানো হয় বলে অভিযোগ উঠছে৷

পুলিশ দাবি করে, যে গাড়িতে বিকাশকে নিয়ে আসা হচ্ছিল সেটি আচমকা উল্টে যায়৷ সেই সময় পুলিশের বন্দুক ছিনিয়ে নিয়ে পালানোর চেষ্টা করে বিকাশ দুবে৷ তাঁকে আত্মসমর্পণ করতে বলে পুলিশ৷ তা না করে বিকাশ পাল্টা গুলি চালাতে শুরু করে বলে অভিযোগ৷ তখনই আত্মরক্ষার স্বার্থেই গুলি চালাতে বাধ্য হয় পুলিশ৷ গুলির লড়াইতে গুরুতর আহত হয় বিকাশ৷ পরে হাসপাতালে নিয়ে গেলে মৃত্যু হয় বিকাশ দুবের৷

শুধু সংবাদমাধ্যমকে আটকানোই নয়, এনকাউন্টারের ঘটনায় আরও একাধিক প্রশ্ন উঠছে৷ যেমন বিকাশ দুবে যখন উল্টে যাওয়া গাড়িতে থাকা পুলিশকর্মীদের কাবু করে বেরিয়ে গেল, তখন কনভয়ে থাকা অন্যান্য গাড়ির পুলিশকর্মীরা তাকে বাধা দিলেন না কেন, সেই প্রশ্ন উঠছে৷ পালানোর চেষ্টা করে থাকলে বিকাশ দুবের বুকে কীভাবে গুলি লাগল, তা নিয়েও প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে৷ পুলিশের অবশ্য দাবি, আত্মসমর্পণ না করে তাদের লক্ষ্য করে গুলি চালায় বিকাশ৷ তারই জবাব দেয় পুলিশ৷

এন সি আস্থানা নামে প্রাক্তন এক আইপিএস অফিসারও দাবি করেছেন, পারিপার্শ্বিক পরিস্থিতি এবং ঘটনাস্থলের ছবি দেখে পরিষ্কার, গোটা ঘটনাই সাজানো৷ ঘটনার পর পুলিশের গাড়িটি যেভাবে উল্টে পড়ে থাকতে দেখা গিয়েছে, তা নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন ওই প্রাক্তন পুলিশকর্তা৷ পাশাপাশি চতুর্দিকে খোলা মাঠ থাকা সত্ত্বেও অত পুলিশকর্মীর মধ্যে বিকাশ দুবে কেন পালানোর ঝুঁকি নেবে, সেই প্রশ্নও তুলেছেন অবসরপ্রাপ্ত ওই আইপিএস অফিসার৷ কারণ সেক্ষেত্রে সহজেই পুলিশ যে তাকে ঘায়েল করতে পারবে, বিকাশের মতো একজন দুঁদে অপরাধীর তা সহজেই বোঝার ক

Published by: Debalina Datta
First published: July 10, 2020, 11:39 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर