• Home
  • »
  • News
  • »
  • crime
  • »
  • পণের দাবিতে গৃহবধূকে শ্বাসরোধ করে খুন, ঘরের মেঝে খুঁড়ে মৃতদেহ উদ্ধার বধূর

পণের দাবিতে গৃহবধূকে শ্বাসরোধ করে খুন, ঘরের মেঝে খুঁড়ে মৃতদেহ উদ্ধার বধূর

গত ১৭ সেপ্টেম্বর সেই ঘটনার পর বধূর বাপেরবাড়ির লোকজন ক্ষুব্ধ হয়ে শ্বশুরবাড়িতে ব্যাপক ভাঙচুর চালিয়েছে

গত ১৭ সেপ্টেম্বর সেই ঘটনার পর বধূর বাপেরবাড়ির লোকজন ক্ষুব্ধ হয়ে শ্বশুরবাড়িতে ব্যাপক ভাঙচুর চালিয়েছে

গত ১৭ সেপ্টেম্বর সেই ঘটনার পর বধূর বাপেরবাড়ির লোকজন ক্ষুব্ধ হয়ে শ্বশুরবাড়িতে ব্যাপক ভাঙচুর চালিয়েছে

  • Share this:
    #কুলপি: পণের দাবিতে এক বধূকে শ্বাসরোধ করে খুনের অভিযোগ উঠেছিল কুলপির কাটরা মনোহরপুরে। গত ১৭ সেপ্টেম্বর সেই ঘটনার পর বধূর বাপেরবাড়ির লোকজন ক্ষুব্ধ হয়ে শ্বশুরবাড়িতে ব্যাপক ভাঙচুর চালিয়েছেন । পাশাপাশি নিহত বধূ রোশেনারা সেখের দেহের ময়না তদন্তের পর ১৮ সেপ্টেম্বর শেষকৃত্য না করে শ্বশুরবাড়ির ঘরের মেঝে দেহটি পুঁতে দিয়ে যান এলাকার মানুষ। ঘটনায় বধূর স্বামী বাদশা শেখ ও শাশুড়ি মাফিয়া বিবিকে গ্রেপ্তার করে পুলিস। দু’‌জনেই এখন জেলবন্দি। ঘটনায় অন্য ৩ অভিযুক্ত পলাতক। এই পরিস্থিতিতে নিহত বধূর দেওর বাপী সেখ ডায়মন্ড হারবার এসিজেএম আদালতের দারস্থ হয়। এদিন আদালতের নির্দেশে বধূর দেহ মাটি থেকে তোলা হয়। উপস্থিত ছিলেন কুলপির বিডিও সঞ্জীব সেন, ওসি সঞ্জয় দে। এদিন রোশেনারার দেহের শেষকৃত্য করা হয়। পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, বাদশা ও রোশেনারার পরিবারের আগে থেকে আত্মীয়তা ছিল। গত ৬ মাস আগে তাঁদের বিয়ে হয়। বাদশা পেশায় টোটোচালক। বিয়ের সময় রোশেনারার পরিবারের পক্ষ থেকে প্রচুর উপহার দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু পরে বাদশা ২০ হাজার টাকা দাবি করে। বধূর পরিবারের লোকজন সেই পণের টাকা দিতে কিছুদিন সময় চেয়েছিল। এরমধ্যে রোশেনারার উপর অত্যাচার শুরু হয় বলে অভিযোগ। ১৭ সেপ্টেম্বর বাড়ির মধ্যে থেকে রোশেনারাকে গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। পরে ডায়মন্ড হারবার হাসপাতালে নিয়ে গেলে রোশেনারাকে মৃত বলে ঘোষণা করা হয়।
    First published: