"বিষ থেকে বাঁচতেই টিকা নেওয়া" করোনা ভ্যাকসিন নিয়ে মিঠুনকে জোরালো আক্রমণ মদনের

মদনের ভ্যাকসিন আক্রমণ Photo-Collected

মিঠুন চক্রবর্তীকে জোরালো আক্রমণ করে মদনের সংযোজন, “পদ্মফুলে ছাপ, ঘরে ঢুকবে গোখরো সাপ।"

  • Share this:

    #কলকাতা : ধবধবে সাদা পাঞ্জাবি, কোচা করা ধুতি, চোখে ব্র্যান্ডেড রোদ-চশমা। আর মুখে ‘খেলা হবে’ লেখা মাস্ক। নিজস্ব স্টাইল স্টেটমেন্ট বজায় রেখেই করোনা ভ্যাকসিন নিলেন কামারহাটির প্রার্থী ও তৃণমূল নেতা মদন মিত্র। শুক্রবার কামারহাটির সাগর দত্ত হাসপাতালে (Sagar Dutta Medical College and Hospital) করোনার টিকা নিতে পৌঁছে গিয়েছিলেন কামারহাটির প্রাক্তন বিধায়ক মদন মিত্র। একইসঙ্গে হাসপাতালের রোগী ও রোগীর আত্মীয়দের মধ্যে এদিন তিনি বিলি করলেন ‘খেলা হবে’ লেখা মাস্ক ও টুপি। রথ দেখা আর কলা দুটোই মাথায় রেখে নিজের কোভিড সুরক্ষা নিশ্চিত করা ও জনসচেতনতা বাড়ানোর পাশাপাশি ভোট প্রচারও সেরে ফেললেন এক প্রকার।

    টিকা নিয়ে এদিন মদন বলেন, “মিঠুন চক্রবর্তী বলেছেন এক ছোবলেই ছবি। তাই আমি ভয়ে আগে থেকে ভ্যাকসিন নিয়ে নিলাম।" পরে তিনি অবশ্য আরও একটু বিস্তারে গিয়ে বলেন, "মুম্বই থেকে কোনও আর্টিস্টরা আসতে চাইছেন না করোনার ভয়ে। এদিকে প্রতিদিন বিজেপির বহিরাগতরা আসছেন বাইরে থেকে। তাঁদের কারও সংক্রমণ আছে কিনা বা ভ্যাকসিন দেওয়া আছে কি না জানি না। ফলে সংক্রমণ ছড়াতেই পারে। তাই আগেভাগেই এই সাবধানতা।"

    মিঠুন চক্রবর্তীকে জোরালো আক্রমণ করে মদনের সংযোজন, “পদ্মফুলে ছাপ, ঘরে ঢুকবে গোখরো সাপ। তাই যে যেখানে আছেন ভ্যাকসিনটা নিয়ে রাখুন। আর আমি মিঠুন চক্রবর্তীকে বলব, মিঠুনদা নাচুন না, আপনি দয়া করে বম্বে চলে যান না। এভাবে এত লোক নিয়ে রাস্তায় বের হলে যে করোনা হু হু করে বাড়বে।”

    ৪৫ ঊর্ধ্ব অথচ কো-মর্বিডিটি আছে এমন সমস্ত নাগরিককে করোনার টিকা দিচ্ছে স্বাস্থ্যমন্ত্রক। সেই অভিযানে অংশ নিলেন তৃণমূলের কামারহাটির প্রার্থী মদন মিত্রও। তবে একইসঙ্গে রাজনৈতিক আক্রমণের সুযোগটুকুও হাতছাড়া করলেন না পোড়খাওয়া রাজনৈতিক নেতা। উল্লেখ্য, এদিন বরানগরে বিজেপি প্রার্থী পার্নো মিত্রর সমর্থনে বিরাট রোড শো করেন মিঠুন চক্রবর্তী। সেখানে মহাগুরুকে ঘিরে কার্যত জনপ্লাবন দেখা যায়। শুধু এখানেই নয়, গত কয়েকদিনে যেখানে যেখানে মিঠুন প্রচারে গিয়েছেন, তাঁকে দেখতে ভিড় জমিয়েছেন সাধারণ মানুষ। ভ্যাকসিন নিয়ে সেদিকেই মূলত আক্রমণ শানিয়েছেন মদন মিত্র।

    Published by:Sanjukta Sarkar
    First published: