Coronavirus Vaccine: ভ্যাকসিনের আকাল, তার মধ্যেই নষ্ট হয়েছে এত লক্ষ ডোজ করোনার টিকা!

প্রতীকী ছবি৷

বিরোধী শাসিত এই রাজ্যগুলির অভিযোগ, জনসংখ্যার অনুপাতে পর্যার্ত পরিমাণ ভ্যাকসিন তাদের দেওয়া হচ্ছে না৷

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: একদিকে ভ্যাকসিনের আকাল৷ পশ্চিমবঙ্গ সহ অনেক রাজ্যই অভিযোগ করছে, চাহিদার তুলনায় ভ্যাকসিন অপ্রতুল৷ অন্যদিকে সরকারি তথ্যই বলছে, বহু রাজ্যেই যথাযথ সংরক্ষণের অভাবে নষ্ট হচ্ছে প্রচুর পরিমাণ ভ্যাকসিন৷

    জানুয়ারি মাসের মাঝামাঝি সময় থেকে ভারতে করোনার টিকাকরণ শুরু হয়েছিল৷ এনডিটিভি-তে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন অনুযায়ী, তথ্যের অধিকার আইনে পাওয়া সরকারি তথ্য অধিকার আইন অনুযায়ী গত ১১ এপ্রিল পর্যন্ত সবথেকে বেশি ভ্যাকসিন নষ্ট করেছে তামিলনাড়ু (১২.১০ শতাংশ)৷ কেন্দ্রের তরফে রাজ্যগুলিকে কতটা ভ্যাকসিন পাঠানো হয়েছে, তার ভিত্তিতেই কী পরিমাণ ভ্যাকসিন নষ্ট হয়েছে তার হিসেব করা হয়েছে৷ তামিলনাড়ুর পর হরিয়ানা (৯.৭৪ শতাংশ), পঞ্জাব (৮.১২ শতাংশ), মণিপুর (৭.৮ শতাংশ) এবং তেলেঙ্গানায় (৭.৫৫ শতাংশ) ভ্যাকসিন নষ্ট করেছে৷

    ওই তথ্যেই জানা গিয়েছে, গত ১১ এপ্রিল পর্যন্ত কেন্দ্রের তরফে রাজ্যগুলিকে ১০ কোটি ডোজ ভ্যাকসিনের ডোজ পাঠানো হয়েছে৷ তার মধ্যে ৪৪ লক্ষ ডোজই নষ্ট হয়েছে৷

    যে রাজ্য বা কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলিতে ভ্যাকসিন নষ্ট হয়নি বললেই চলে তার মধ্যে রয়েছে কেরল, তামিলনাড়ু, হিমাচল প্রদেশ, মিজোরাম, গোয়া, আন্দামান এবং নিকোবর দ্বীপপুঞ্জ, দামান এবং দিউ, লাক্ষাদ্বীপ প্রভৃতি৷ ভ্যাকসিনের অপ্রতুল জোগানের অভিযোগ নিয়ে মহারাষ্ট্র, পঞ্জাব, দিল্লির মতো বেশ কয়েকটি রাজ্যের সঙ্গে কেন্দ্রীয় সরকারের কার্যত রাজনৈতিক লড়াই শুরু হয়েছে৷ বিরোধী শাসিত এই রাজ্যগুলির অভিযোগ, জনসংখ্যার অনুপাতে পর্যার্ত পরিমাণ ভ্যাকসিন তাদের দেওয়া হচ্ছে না৷

    ভ্যাকসিনের জোগান বাড়াতে ইতিমধ্যেই বিদেশে অনুমোদিত করোনার টিকাগুলিকে জরুরি ভিত্তিতে ছাড়পত্র দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার৷ গতকাল, সোমবারই অর্থ মন্ত্রকের শীর্ষ এক সূত্র দাবি করেছে, ভারতে ভ্যাকসিনের উৎপাদন বাড়াতে টিকা উৎপাদনকারী সংস্থাগুলিকে সাড়ে ৪ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে৷ এর মধ্যে ৩ হাজার কোটি টাকা দেওয়া হয়েছে কোভিশিল্ডের উৎপাদনকারী সিরাম ইনস্টিটিউটকে৷ আর ১৫০০ কোটি টাকা দেওয়া হয়েছে কোভ্যাক্সিন-এর নির্মাতা ভারত বায়োটেককে৷ কেন্দ্রীয় সরকারের অভিযোগ, অধিকাংশ রাজ্যেই ভ্যাকসিন নষ্ট হওয়া এবং অব্যবস্থার কারণে ভ্যাকসিনের ঘাটতি দেখা দিচ্ছে৷

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published: