corona virus btn
corona virus btn
Loading

মুম্বইয়ে গিয়েছিলেন চিকিৎসা করাতে, করোনা আক্রান্ত হয়ে শহরে ফিরলেন মা-ছেলে

মুম্বইয়ে গিয়েছিলেন চিকিৎসা করাতে, করোনা আক্রান্ত হয়ে শহরে ফিরলেন মা-ছেলে
ফাইল ছবি

মুম্বইয়ে চিকিৎসা করাতে গিয়ে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন মা ও ছেলে। তাঁদের নমুনা পরীক্ষার রিপোর্টে করোনা পজিটিভ মেলায় তাঁদের দুর্গাপুরের সনকা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

  • Share this:

#আউশগ্রামঃ পূর্ব বর্ধমানের আউশগ্রামের একই পরিবারের দু'জন করোনায় আক্রান্ত হলেন। মুম্বইয়ে চিকিৎসা করাতে গিয়ে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন মা ও ছেলে। তাঁদের  নমুনা পরীক্ষার রিপোর্টে করোনা পজিটিভ মেলায় তাঁদের দুর্গাপুরের সনকা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পূর্ব বর্ধমানের জেলাশাসক বিজয় ভারতী জানান, মাকে নিয়ে চিকিৎসা করাতে গিয়েছিলেন ছেলে। অ্যাম্বুলেন্সে তাঁরা বাড়ি ফিরছিলেন। আসানসোলে তাঁদের শারীরিক পরীক্ষা হয়। সেখানেই তাঁদের দেহে করোনার সংক্রমণ মেলে।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, লকডাউনে মুম্বইয়ে আটকে ছিলেন তাঁরা। বিমান বা ট্রেন চলাচল বন্ধ থাকায় তাঁরা অ্যাম্বুলেন্সে বাড়ি ফিরছিলেন। পশ্চিম বর্ধমান জেলার সীমানা আসানসোলের ডুবুরডিহিতে তাদের শারীরিক পরীক্ষা করা হয়। থার্মাল স্ক্রিনিংয়ের মাধ্যমে দেহের তাপমাত্রা নেওয়া হয়। তাদের শরীরে করোনার উপসর্গ মেলায় বাড়ি ফেরার অনুমতি না দিয়ে তাদের কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে তাদের নমুনা পরীক্ষা ব্যবস্থা করা হয়। সেই পরীক্ষায় তারা দু'জনই করোনায় আক্রান্ত বলে রিপোর্ট আসে। এরপরই তাদের চিকিৎসার জন্য দুর্গাপুরের কোভিড থ্রি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

তবে এরই মধ্যে স্বস্তির খবরও রয়েছে। মেমারি শহরের সোমেশ্বর তলা এলাকার এক যুবক কলকাতায় চিকিৎসা করাতে গিয়ে করোনা আক্রান্ত হয়েছিলেন। তিনি দুর্গাপুরের সনকা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। সুস্থ হয়ে ওঠায় তিনি বাড়ি ফিরে এসেছেন। তার সংস্পর্শে আসার কারণে পরিবারের পাঁচ  জনকে কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। নমুনা পরীক্ষায় তাঁদের সকলেরই করোনা নেগেটিভ রিপোর্ট এসেছে।

সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন বর্ধমানের সুভাষপল্লী এলাকার করোনা আক্রান্ত নার্সও। তিনি কলকাতায় কর্মরত ছিলেন। বর্ধমানে বাড়ি ফেরার পর তিনি করোনা আক্রান্ত হন। তাঁকেও চিকিৎসার জন্য দুর্গাপুরের সনকা হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেই সঙ্গে তার পরিবারের সদস্যদেরও কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে রেখে তাঁদের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছিল, তাঁদের সকলেরই পরীক্ষার রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে।  সুস্থ হয়ে সুভাষপল্লীর বাড়িতে ফিরেছেন ওই নার্স।

Saradindu Ghosh

Published by: Shubhagata Dey
First published: May 15, 2020, 5:57 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर