মিলল না খাবার! তিন দিনের যাত্রাপথে জল খেয়েই কাটাল পরিযায়ী শ্রমিকের পরিবার

কেন্দ্রীয় সরকারি সূত্রে জানা গিয়েছে, পরিযায়ী শ্রমিকদের কাজের ব্যবস্থা করার জন্য ৬ রাজ্যের ১১৬টি জেলাকে ইতিমধ্যেই চিহ্নিত করা হয়েছে৷ এই জেলাগুলিতে সবথেকে বেশি সংখ্যক পরিযায়ী শ্রমিক ফিরে এসেছেন৷

ওই পরিযায়ী শ্রমিকের দাবি, যাত্রাপথে একটিও হোটেল খোলা পাননি তাঁরা৷ ফলে প্রায় তিন দিনের যাত্রাপথে শুধু জল খেয়েই কাটাতে হয়েছে তাঁদের৷

  • Share this:

    #জৌনপুর: তিন দিনের যাত্রা৷ বাবা মায়ের সঙ্গে দীর্ঘ পথ পাড়ি দিল দেড় বছরের শিশুও৷ কিন্তু গোটা পথে কোথাও মিলল না একদানা খাবার৷ মুম্বই থেকে উত্তর প্রদেশের জৌনপুর আসার পথে শুধু জল খেয়েই বেঁচে থাকল পরিযায়ী শ্রমিকের পরিবার৷

    উত্তর প্রদেশের জৌনপুরের বাসিন্দা আশিস বিশ্বকর্মা নামে ওই যুবক মুম্বইতে কাঠের মিস্ত্রি হিসেবে কাজ করতেন৷ কিন্তু লকডাউনের জেরে মার্চ মাসের শেষ সপ্তাহ থেকেই কর্মহীন হয়ে পড়েন তিনি৷ এই পরিস্থিতিতে প্রায় দেড় মাস অপেক্ষার পর অবশেষে গ্রামের বাড়িতে ফেরার সিদ্ধান্ত নেন তিনি৷ ৬ হাজার টাকার বিনিময়ে জৌনপুরগামী একটি ট্রাকে স্ত্রী এবং দেড় বছরের মেয়েকে নিয়ে জায়গা পান তিনি৷ ওই ট্রাকে তাঁদের সঙ্গে আরও ৩৫ জনের ফেরার কথা ছিল৷ কিন্তু শেষ পর্যন্ত একটি ট্রাকেই অন্তত ৫০ জন ফেরেন৷

    মুম্বইয়ের নাল্লাসোপারা এলাকায় পরিবারকে নিয়ে থাকতেন ওই পরিযায়ী শ্রমিক৷ তিনি জানান, প্রথমে গত ১০ মে ট্রাকটি রাতে ছাড়ার কথা ছিল৷ কিন্তু ওই এলাকায় করোনা সংক্রমণ বাড়ছে, এই আশঙ্কাতেই তাড়াহুড়ো করে বিকেলেই ছেড়ে দেয় ট্রাকটি৷ আর সেই তাড়ায় নিজেদের সঙ্গে কোনও খাবার না নিয়েই স্ত্রী, কন্যাকে নিয়ে ট্রাকে উঠে পড়েন আশিস৷

    ওই পরিযায়ী শ্রমিকের দাবি, যাত্রাপথে একটিও হোটেল খোলা পাননি তাঁরা৷ ফলে প্রায় তিন দিনের যাত্রাপথে শুধু জল খেয়েই কাটাতে হয়েছে তাঁদের৷ আশিস জানিয়েছেন, মেয়ের জন্য কিছুটা গুঁড়ো দুধ ছিল তাঁদের কাছে৷ জলে গুলে কোনওক্রমে সেটাই তাকে খাওয়ানো হয়৷ প্রচণ্ড গরমে প্রায় গোটা রাস্তাই কাঁদতে কাঁদতে আসে শিশুটি৷

    জৌনপুরে পৌঁছনোর পরও অবশ্য বাড়িতে ঢুকতে পারেন আশিসরা৷ কারণ গ্রামের বাইরে একটি মাঠের মধ্যেই আপাতত থাকতে হচ্ছে তাঁদের৷ নিজেদের পরিবারের বাকি সদস্যদের সঙ্গে নিরাপদ দূরত্ব বজায় রাখতেই এমনটা করতে হয়েছে৷ কারণ আশিসের আড়াই বছরের ছেলেও তাঁর দাদু-ঠাকুমার সঙ্গে জৌনপুরেই থাকত৷ সবার স্বাস্থ্যের কথা ভেবে কোনও ঝুঁকি নেননি ওই পরিযায়ী শ্রমিক৷ আশিসের দাবি, জৌনপুরে প্রতিদিন মুম্বই থেকে দু'- তিনটি ট্রাকে করে পরিযায়ী শ্রমিকরা ফিরছেন৷ এখন তাঁর আশা, লকডাউন উঠলে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলেই মুম্বইতে ফিরে আবার কাজ শুরু করবেন৷

     
    Published by:Debamoy Ghosh
    First published: