corona virus btn
corona virus btn
Loading

কলকাতা পুলিশে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ, বাহিনীর মনোবল বাড়াতে তিন থানায় নগরপাল

কলকাতা পুলিশে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ, বাহিনীর মনোবল বাড়াতে তিন থানায় নগরপাল
বিভিন্ন থানায় ঘুরলেন সিপি৷ PHOTO- COLLECTED

বিভিন্ন থানায় ঘুরে কর্মী অফিসারদের মনোবল বাড়ানো ছাড়াও এই মুহূর্তে পুলিশের যে ক'জন করোনা আক্রান্ত রয়েছেন, তাঁদের শারীরিক অবস্থার সম্পর্কে নিয়মিত খোঁজ নিচ্ছেন সিপি।

  • Share this:

#কলকাতা: ইতিমধ্যেই কলকাতা পুলিশের ১৩ জন কর্মী করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। যাঁদের মধ্যে তিন থানার ওসি রয়েছেন। পরিস্থিতি যা তাতে সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলেই আশঙ্কা লালবাজারের। এই পরিস্থিতিতে কর্মী অফিসারেরা কাজ করতে গিয়ে যাতে মনোবল না হারান বা থানার কাজে যাতে এতটুকুও ব্যাঘাত না ঘটে, তা নিশ্চিত করার উপর জোর দিলেন পুলিশ কমিশনার অনুজ শর্মা। সেজন্য শনিবার শহরের একাধিক করোনা আক্রান্ত থানা, ট্রাফিক গার্ড ও স্পর্শকাতর এলাকায় যান তিনি।

যেকোনও পরিস্থিতিতেই তিনি যে বাহিনীর পাশেই রয়েছেন তা প্রথম থেকেই বুঝিয়েছেন পুলিশ কমিশনার। বারবার সচেতনতার বার্তা দিয়েছেন বাহিনীকে। এবার কর্মী অফিসারদের মনোবল চাঙ্গা করতে করোনা আক্রান্ত থানায় হাজির হলেন। সেখানে গিয়ে প্রত্যেক কর্মী অফিসারের কাছে জানতে চান তাদের ক'জনের করোনা পরীক্ষা হয়েছে। কারও যদি কোনও উপসর্গ থেকে থাকে, সেক্ষেত্রে কোনও দ্বিধাবোধ না করে দ্রুত পরীক্ষা করানোর পরামর্শ দেন পুলিশ কমিশনার।

এখনও পর্যন্ত শহরের যে থানার ও ট্র্যাফিক গার্ডের অফিসাররা করোনা আক্রান্ত হয়েছেন, সেই জায়গাগুলি নিয়ম করে স্যানিটাইজ করা হচ্ছে কিনা সে বিষয়ে খোঁজখবর নেন সিপি। থানার মেস, ক্যান্টিনে পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখার জন্যও প্রয়োজনীয় নির্দেশ দেন তিনি। পাশাপাশি থানার ওসি ও অন্য অফিসারেরা করোনা আক্রান্ত হওয়ার পর কীভাবে থানার কাজ চলছে, তা ডিসিদের থেকেও জেনে নেন।

প্রত্যেক থানায় কর্মীও অফিসারদের মধ্যে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে তাঁদের সঙ্গে কথা বলেন সিপি। দেন করোনা সচেতনতায় প্রয়োজনীয় বার্তা। সাবান দিয়ে ভালো করে হাত ধোয়া, হ্যান্ড গ্লাভস পরা, মাস্ক পরা কতটা জরুরি তা অফিসারদের বোঝান সিপি।

এদিন দুপুরে নিজের বাংলো থেকে বেরিয়ে প্রথমে পার্ক সার্কাস সেভেন পয়েন্টস-এ যান নগরপাল। সেখানে গাড়ি থেকে নেমে অফিসারদের সঙ্গে কথা বলেন ও প্রয়োজনীয় পরামর্শ দেন। সেখান থেকে সোজা প্রগতি ময়দান থানায় যান। এই থানার ওসি করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। সেখানে অফিসারদের সঙ্গে কথা বলার পর তালতলা থানায় যান তিনি। সেখান থেকে জোড়াবাগান থানা ও জোড়াবাগান ট্রাফিক গার্ডে গিয়ে কর্মী অফিসারদের সঙ্গে কথা বলেন ও পরামর্শ দিয়ে আসেন। সেখান থেকে যান বউবাজার থানায়। এই থানার থানার ওসি এবং এক সার্জেন্ট করোনা আক্রান্ত। সেখানে গিয়ে অফিসারদের কাছে প্রত্যেকের বাড়ি কোথায় জানতে চান। সেক্ষেত্রে বাড়ি যাওয়ার পর কেউ যাতে অন্য কোথাও  না বেরোন, সেই পরামর্শ দেন তিনি।

বিভিন্ন থানায় ঘুরে কর্মী অফিসারদের মনোবল বাড়ানো ছাড়াও এই মুহূর্তে পুলিশের যে ক'জন করোনা আক্রান্ত রয়েছেন, তাঁদের শারীরিক অবস্থার সম্পর্কে নিয়মিত খোঁজ নিচ্ছেন সিপি। তাঁদের মনোবল চাঙ্গা রাখতে প্রয়োজনে সরাসরি তাঁদের সঙ্গে কথাও বলছেন তিনি।

Published by: Bangla Editor
First published: May 9, 2020, 7:44 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर