• Home
  • »
  • News
  • »
  • coronavirus-latest-news
  • »
  • বড় সাফল্য! ব্রিটেন থেকে আসা করোনা ভাইরাস স্ট্রেনকে প্রথম দেশ হিসেবে আইসোলেট করল ভারত

বড় সাফল্য! ব্রিটেন থেকে আসা করোনা ভাইরাস স্ট্রেনকে প্রথম দেশ হিসেবে আইসোলেট করল ভারত

করোনার জেরে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে হৃদযন্ত্র। এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে শারীরিক পরিস্থিতি খারাপ হয়েছে ও হাসপাতালে ভর্তি হতে হয়েছে, এমন অর্ধেকেরও বেশি মানুষের নতুন করে হৃদযন্ত্রের সমস্যা দেখা দিয়েছে, বলছে ইউরোপিয়ান হার্ট জার্নালে প্রকাশিত একটি সমীক্ষা। তার কারণ হিসেবে ট্রপোনিনের মাত্রা বেড়ে যাওয়াকে দায়ী করছেন গবেষকরা।

করোনার জেরে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে হৃদযন্ত্র। এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে শারীরিক পরিস্থিতি খারাপ হয়েছে ও হাসপাতালে ভর্তি হতে হয়েছে, এমন অর্ধেকেরও বেশি মানুষের নতুন করে হৃদযন্ত্রের সমস্যা দেখা দিয়েছে, বলছে ইউরোপিয়ান হার্ট জার্নালে প্রকাশিত একটি সমীক্ষা। তার কারণ হিসেবে ট্রপোনিনের মাত্রা বেড়ে যাওয়াকে দায়ী করছেন গবেষকরা।

ভারতের সমস্ত বিমানবন্দর সূত্র অনুযায়ি এই বছর নভেম্বরে ১০.৪৪ লক্ষ আন্তর্জাতিক যাত্রী ভারত থেকে আসা যাওয়া করেছেন৷

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: দিল্লিতে আইসিএম আর (Indian Council of Medical Research)  শনিবার বড় ঘোষণা করেছে৷ তারা জানিয়েছে ব্রিটেনে থেকে আসা করোনা ভাইরাসের নয়া স্ট্রেন (Coronavirus New strain) -কে সাফল্যের সঙ্গে আটকে দিতে পেরেছে ভারত৷ তারা জানিয়েছে ভারত সাফল্যের সঙ্গে করোনার নয়া স্ট্রেনকে কালচার করেছে৷ এই পদ্ধতিতে নিয়ন্ত্রিত ভাবে একটি পরিস্থিতি করে সেখানে জিনিসটিকে তৈরি করা হয়, যে রকম পরিস্থিতিতে স্বাভাবিকভাবে সেই জিনিসটি থাকতে পারে৷

    আই সি এম আর নিজেদের ট্যুইটে জানিয়েছে কোনও দেশ ব্রিটেনে থেকে পাওয়া সার্স কোভ ২ কে সাফল্যের সঙ্গে আলাদা করে কালচার করতে পারেনি৷ আইসিএমআর আরও জানিয়েছে ব্রিটেন থেকে প্রাপ্ত নতুন প্রকারের সমস্ত স্বরূপ নিয়ে তারা সাফল্যের সঙ্গে পৃথক ও কালচার করতে পেরেছে আইসিএমআর (ICMR)। এই নমুনা ব্রিটেন থেকে ফেরত মানুষদের শরীর থেকে সংগ্রহ করা হয়েছিল৷

    ভারতে এখনও অবধি করোনা ভাইরাসের নয়া স্ট্রেনে সংক্রমিত হয়েছে ২৯ জন৷ ব্রিটেনে সদ্যই পাওয়া গেছে করোনা ভাইরাসের স্ট্রেন৷ যা ৭০ শতাংশ বেশি সংক্রামক৷ কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রালয় শুক্রবার জানিয়েছে সার্স কোভ ২ - এ ভারতে এখনও অবধি ২৯ জনের সংক্রমণের খবর পাওয়া গেছে৷

    কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রক জানিয়েছে জিনোম সিকোয়েন্সিং -জানানো হয়েছে ১৪ দিন ধরে (৯-২২ ডিসেম্বর) অবধি ভারতে আসা সমস্ত আন্তর্জাতিক যাত্রীকে দেখা হয়েছে৷ যাঁদের মধ্যে কোনও লক্ষণ পাওয়া গেলে বা সংক্রমিত হলে তাঁকে সিকোয়েন্সিং-র অংশ করা হবে৷

    ভারতের সমস্ত বিমানবন্দর সূত্র অনুযায়ি  এই বছর নভেম্বরে ১০.৪৪ লক্ষ  আন্তর্জাতিক যাত্রী ভারত থেকে আসা যাওয়া করেছেন৷ ব্রিটেনে পাওয়া যাওয়া নয়া স্ট্রেন আরও অনেকগুলি দেশে ইতিমধ্যেই ছড়িয়ে পড়েছে৷ এই স্ট্রেন পাওয়া গেছে ডেনমার্ক, নেদারল্যান্ডস, অস্ট্রেলিয়া, ইতালি, সুইডেন, ফ্রান্স, স্পেন, সুইৎজারল্যান্ড, জার্মানি, কানাডা, জাপান, লেবানন এবং সিঙ্গাপুরেও৷

    Published by:Debalina Datta
    First published: