• Home
  • »
  • News
  • »
  • coronavirus-latest-news
  • »
  • বেড়াতে এসেছিলেন সাজান সংসার রেখে, স্বামীর আচমকা মৃত্যুতে লকডাউনের গেরোয় দিশেহারা তরুণী

বেড়াতে এসেছিলেন সাজান সংসার রেখে, স্বামীর আচমকা মৃত্যুতে লকডাউনের গেরোয় দিশেহারা তরুণী

লকডাউনের আগে উত্তরপ্রদেশ থেকে  গলসিতে মামার বাড়ি বেড়াতে এসেছিলেন। কয়েকদিন থেকে ফিরে যাওয়ার পরিকল্পনা ছিল। কিন্তু হঠাৎ লকডাউন ঘোষনা হয়।

লকডাউনের আগে উত্তরপ্রদেশ থেকে গলসিতে মামার বাড়ি বেড়াতে এসেছিলেন। কয়েকদিন থেকে ফিরে যাওয়ার পরিকল্পনা ছিল। কিন্তু হঠাৎ লকডাউন ঘোষনা হয়।

লকডাউনের আগে উত্তরপ্রদেশ থেকে গলসিতে মামার বাড়ি বেড়াতে এসেছিলেন। কয়েকদিন থেকে ফিরে যাওয়ার পরিকল্পনা ছিল। কিন্তু হঠাৎ লকডাউন ঘোষনা হয়।

  • Share this:

#গলসিঃ লকডাউনে আত্মীয় বাড়িতে আটকে মহিলা। খবর পেয়েছেন হঠাৎ অসুস্থ হয়ে মৃত্যু হয়েছে স্বামীর। কিন্তু ফিরতে পারছেন না বাড়িতে। স্বামীকে অনেকদিন দেখেননি। তাঁর মৃতদেহটুকুও কি একটি বারের জন্য দেখতে পাবেন না? নিশ্চয়তা মেলেনি। হত্যে দিলেন থানায়। একটি বার মৃত স্বামীকে চোখে দেখার ব্যবস্থা করে দেওয়ার কাতর অনুরোধ জানালেন। পুলিশ জানিয়েছে, ওই মহিলা ও তাঁর আত্মীয়দের জেলা প্রশাসনের সঙ্গে যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে।

মহিলার নাম ফুলবতী গৌতম। বাড়ি উত্তর প্রদেশের ফিরোজাবাদে। সেখানেই থাকতেন স্বামী অজয় গৌতমের সঙ্গে। লকডাউনের আগে উত্তরপ্রদেশ থেকে  গলসিতে মামার বাড়ি বেড়াতে এসেছিলেন। কয়েকদিন থেকে ফিরে যাওয়ার পরিকল্পনা ছিল। কিন্তু হঠাৎ লকডাউন ঘোষনা হয়। বাস ট্রেন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। স্বামীর কাছে ফেরা হয়নি ফুলবতীর।

বৃহস্পতিবার পূর্ব বর্ধমানের গলসি থানায় বসে অঝোরে কাঁদছিলেন মহিলা। কাতর আবেদন জানাচ্ছিলেন উত্তরপ্রদেশে পাঠানোর ব্যবস্থা করে দেওয়ার জন্য। স্বামীর সঙ্গে আর ঘর করা হবে না বুঝেছেন। এখন শুধু শেষ দেখাটা দেখতে চান। বলছিলেন, প্রতিদিনই স্বামী ও পরিবারের অন্যান্যদের সঙ্গে ফোনে কথা হত। আর কয়েকদিন পর লকডাউন উঠলেই বাড়ি ফেরা যাবে বলে আশা করছিলাম। স্বামী জানিয়েছিল গলায় একটা সমস্যা হচ্ছে। গতকাল তার শরীর খুবই খারাপ হয়। আজ সকালে তাঁর মৃত্যুর খবর আসে।

গলসি থানার পুলিশ জানিয়েছে, মহিলাকে  উত্তর প্রদেশে পাঠানোর অনুমতি দেওয়ার এক্তিয়ার তাঁদের নেই। জেলা প্রশাসনের কাছে আবেদনের পরামর্শ দিয়েছে তারা। জেলা প্রশাসন জানিয়েছে, এমন কোনও আবেদন আসেনি। ওই পরিবারের পক্ষ থেকে যোগাযোগ করা হলে বিষয়টি মানবিক দৃষ্টিতে দেখা হবে।

Saradindu Ghosh

Published by:Shubhagata Dey
First published: