Modular Hospital: স্বাস্থ্য ব্যবস্থায় কড়া, ১০০ শয্যা বিশিষ্ট ৫০ মডিউলার হাসপাতাল তৈরির সিদ্ধান্ত কেন্দ্রের

স্বাস্থ্য ব্যবস্থায় কড়া, ১০০ শয্যা বিশিষ্ট ৫০ মডিউলার হাসপাতাল তৈরির সিদ্ধান্ত কেন্দ্রের

এই মডিউলার হাসপাতলগুলি ইতিমধ্যেই বিদ্যমান হাসপালগুলির অংশ হিসাবেই নির্মিত হবে। এছাড়া ১০০ সয্যা বিশিষ্ট এই হাসপাতালগুলি তিন সপ্ত

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: দেশজুড়ে মারণ ভাইরাস করোনার (Corona Virus) প্রভাব পড়েছে দেশের চিকিৎসাব্যবস্থার উপর। করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে সংক্রমণ অত্যাধিক পরিমাণে বৃদ্ধি পাওয়ায় দেশজুড়ে হাসপাতালের সঙ্কটময় চিত্র দেখেছে দেশবাসী। এই পরিস্থিতিতে ৫০টি ইনোভেটিভ মডিউলার হাসপাতাল (Modular Hospital) স্থাপনের পরিকল্পনার সিদ্ধান্ত ঘোষণা করল কেন্দ্র। আগামী দুই থেকে তিন মাসের মধ্যেই এই হাসপাতালগুলি স্থাপন করা হবে বলেও জানানো হয়েছে।

টাইমস অফ ইন্ডিয়ার (Times of India) একটি প্রতিবেদন অনুসারে, উন্নত নতুন প্রযুক্তি সম্পন্ন এই মডিউলার হাসপাতলগুলি ইতিমধ্যেই বিদ্যমান হাসপালগুলির অংশ হিসাবেই নির্মিত হবে। এছাড়া ১০০ সয্যা বিশিষ্ট এই হাসপাতালগুলি তিন সপ্তাহের মধ্যে প্রায় ৩ কোটি টাকা খরচ করে তৈরি করা হবে এবং ৬ থেকে ৭ সপ্তাহের মধ্যে হাসপাতালগুলির পরিষেবা প্রদানের কাজ শুরু হয়ে যাবে।

এই ১০০ শয্যার মডিউলার হাসপাতটির প্রথম ব্যাচটি বিলাশপুর, অমরাবতী, পুনে, জালনা, মহালি এবং রাইপুরে চালু হবে। রাইপুরে তৈরি হবে ২০টি বেডর একটি হাসপাতাল। বেঙ্গালুরুতে প্রাথমিকভাবে থাকবে ২০, ৫০ এবং ১০০ টি বেড বিশিষ্ট হাসপাতাল।

এই হাসপাতালগুলি ২৫ বছর পর্যন্ত স্থায়ী হতে পারে। তাছাড়াও এক সপ্তাহের কম সময়ে এই হাসপাতালগুলি এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় স্থানান্তরিত করা যেতে পারে এমনকি ভেঙে ফেলাও যেতে পারে।

গত সপ্তাহে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী (PM Narandra Modi) ঘোষণা করেন, ২১ জুন থেকে কেন্দ্রীয় সরকার ১৮ বছরের উর্ধ্বে সকলকে ভ্যাকসিন প্রদানের স্বার্থে রাজ্যগুলিতে বিনামূলে করোনা ভাইরাসের টিকা পাঠাবে। সেই সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী এটাও জানান যে, সংক্রমণ ঠেকাতে আগামী দিনে দেশে ভ্যাকসিনের সরবরাহ উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি করা হবে।

প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা, “ভ্যাকসিন প্রস্তুতকারকদের থেকে ভারত সরকার নিজেই ৭৫ শতাংশ করোনা ভ্যাকসিন কিনবে এবং রাজ্য সরকারগুলিতে তা বিনামূল্যে দেওয়া হবে।”

ভ্যাকসিন নিয়ে রাজনীতি করার অভিযোগ তোলায় বিরোধী রাজ্যগুলির সমালোচনা করতেও শোনা যায় নরেন্দ্র মোদীকে। প্রধানমন্ত্রীর কথায়, "দেশে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ হ্রাস হতে থাকার মধ্যেই কেন্দ্রীয় সরকারের সামনে বিভিন্ন পরামর্শ আসতে শুরু করে, বিভিন্ন দাবি করতে শুরু করে বিরোধীরা।"

গত দু’সপ্তাহ ধরে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণে মৃত্যুর হার কমতে থাকলেও রবিবার সপ্তাহ শেষে ভারতে সেই হার ফের ১৯ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। টাইসম অফ ইন্ডিয়ার রিপোর্ট অনুসারে, গত তিন সপ্তাহের মধ্যে এই সপ্তাহেই করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে সবচেয়ে বেশি প্রাণহানির ঘটনা ঘটছে।

Published by:Raima Chakraborty
First published: